লন্ডন: কয়েক মাস আগে পর্যন্তও ঋষি সুনক তাঁর অত্যন্ত পছন্দের ছিল, এখন তিনিই তাঁর ঘনিষ্ঠদের বলছেন যে ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যাঁকে খুশি সমর্থন করা হোক, কিন্তু ঋষি নয়।

একদা ঋষি সুনক ছিলেন তাঁর অন্যতম সমর্থক। সেই ঋষিই কিছু দিন আগে তাঁর বিরুদ্ধে একরাশ অভিযোগের তির ছুড়ে দিয়ে পদত্যাগ করেছেন। কার্যত তার জেরেই গদি হারিয়ে তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী হিসাবে কাজ চালাতে হচ্ছে বরিস জনসনকে। সেই বরিসই এ বার ঋষির বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার জন্য দলের সাংসদদের বলতে শুরু করেছেন। একাধিক সংবাদমাধ্যমের খবরে তেমনটাই দাবি করা হচ্ছে

কনজারভেটিভ দলের নেতা হিসাবে এখন পর্যন্ত যে কয়েকটি ধাপে ভোট হয়েছে তাতে স্পষ্ট, প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে এগিয়েই রয়েছেন ভারতীয় তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিসের কর্ণধার নারায়ণমূর্তির জামাই ঋষি। ওই খবর অনুযায়ী, এমনটা না পসন্দ বরিসের।

ঋষির বদলে অন্য কে প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন প্রকাশ্যে কোনো নাম বলছেন না বরিস। তবে ঘনিষ্ট সূত্রে খবর, প্রধানমন্ত্রী হিসাবে লিজ ট্রাসই তাঁর প্রথম পছন্দ। যাঁকে শপথ নেওয়ার পরেই তিনি বিদেশমন্ত্রী করেছিলেন। এ ছাড়া তাঁর পছন্দের তালিকায় রয়েছেন পেনি মরডান্ট। তবে আরও যে-ই হোক ‘ঋষি কখনই নয়’।

সংবাদমাধ্যমগুলির প্রতিবেদন অনুযায়ী, বরিসের অনুগামীরা ইতিমধ্যেই ‘গোপনে’ জোরদার প্রচার শুরু করে দিয়েছেন ঋষির বিরুদ্ধে। তবে ঋষির পদত্যাগের কয়েক মিনিটের মধ্যে ইস্তফা দেন বরিসের মন্ত্রিসভার আর এক মন্ত্রী সাজিদ জাভিদ।

যদিও জাভিদের বিরুদ্ধে অবশ্য কোনো ক্ষোভ নেই ব্রিটেনের তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রীর। ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট থেকে তাঁকে বার করে দেওয়ার পিছনে তাঁর প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ঋষির হাত রয়েছে বলেই মনে করেন বরিস।

আরও পড়তে পারেন

পশ্চিমবঙ্গে দৈনিক কোভিড মৃত্যুহার মাত্র ০.১৬ শতাংশ, বাড়িতে চিকিৎসাধীন সাড়ে ৯৭ শতাংশ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন