donald trump

ওয়েবডেস্ক: ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই মুসলিম-বিরোধী বার্তা পাওয়া গিয়েছিল ডোনাল্ড ট্রাম্পের বক্তব্যে। মুসলিম দেশগুলোর নাগরিকদের মার্কিন দেশে যাতায়াত বন্ধই করে দিতে চেয়েছিলেন তিনি। বিতর্ককে সঙ্গী করেই সেই মর্মেই একাধিক খসড়া প্রস্তুত করা হয়। এ বার মার্কিন শীর্ষ আদালত ট্রাম্পের ‘ট্র্যাভেল ব্যান’ সিদ্ধান্তকে সমর্থন করল।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে এই ‘ট্র‌্যাভেল ব্যান’ সংক্রান্ত প্রথম খসড়া সই করেন ট্রাম্প। সেখানে বলা হয়েছিল, প্রাথমিক ভাবে ৯০ দিনের জন্য ৭টি মুসলিম দেশের নাগরিকরা আমেরিকায় প্রবেশাধিকার পাবে না। পাশাপাশি যে কোনো দেশের শরণার্থীদের আমেরিকায় আসা নিষিদ্ধ ঘোষণা করার কথা উঠেছিল।

এর পর মার্চ মাসে খসড়াটি সংশোধন করা হয়। নতুন খসড়ায় নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয় ইরাকের উপর থেকে। সেই সঙ্গে সিরিয়ার উদ্বাস্তুদের প্রতি নিষেধাজ্ঞাও রদ করে নেওয়া হয়। জুন মাসে সুপ্রিম কোর্ট সেই খসড়ার অনেক বিধিই অনুমোদন করে। পাশাপাশি ১২০ দিনের মেয়াদ সামনে রেখে যে কোনো দেশের উদ্বাস্তুদেরই আমেরিকায় আসা বন্ধ করা হয়।

কিন্তু এতেও সন্তুষ্ট হননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেপ্টেম্বরে আরও দুই অ-মুসলিম দেশকে এই নিষেধ-তালিকার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তারা যথাক্রমে উত্তর কোরিয়া এবং ভেনেজুয়েলা। ‘ট্র্যাভেল ব্যান’ সংক্রান্ত এই নতুন সংযোজিত দেশগুলোর খসড়ায় সম্প্রতি অনুমোদন দিল সুপ্রিম কোর্ট। বাকি ছ’টি দেশ হল চাদ, ইরান, লিবিয়া, সোমালিয়া, সিরিয়া এবং ইয়েমেন।

অবশ্য সুপ্রিম কোর্ট যে রায়ই দিক না কেন, বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না মার্কিন দেশের। ইতিমধ্যে এই অভিযোগও উঠেছে যে, আমেরিকার সর্বোচ্চ বিচার কাঠামো প্রেসিডেন্টের মনোরঞ্জনের দিকে তাকিয়েই কাজ করছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here