Connect with us

বিজ্ঞান

অবাক কাণ্ড! বিশ্বের এই জায়গাগুলিতে সূর্য কখনো অস্ত যায় না!

পৃথিবীতে এমন কিছু দেশ রয়েছে, যেখানে নির্দিষ্ট সময়কালে সূর্য কখনোই অস্ত যায় না!

Published

on

যেখানে সূর্য অস্ত যায় না। ছবি: ফোর্বস-এর সৌজন্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: বিজ্ঞান বলে, সূর্যের চার দিকে ঘুরছে পৃথিবী। যে কারণে ২৪ ঘণ্টার একটা পূর্ণাঙ্গ দিনের ১২ ঘণ্টা দিন আর ১২ ঘণ্টা রাত। এ রকম মহাজাগতিক কর্মকাণ্ডে আমরা অনেকটাই স্বস্তি পাই। তবে এমন কয়েকটি জায়গা রয়েছে, যেখানে কোনো রকমের বিরতি ছাড়াই ২৪ ঘণ্টা সূর্যের আলো অনুভব করা যায়।

সূর্য যদি কখনোই অস্ত না যায়, তা হলে সে বিষয়টিকে অভিহিত করা হয় ‘দ্য মিডনাইট সান’ নামে। এই প্রাকৃতিক ঘটনাটি উত্তর মেরু এবং অ্যান্টার্কটিক বৃত্তের দক্ষিণে স্থানীয় গ্রীষ্মের মাসগুলিতে ঘটে। পোলার নাইট নামে বিপরীত ঘটনাটি ঘটে, যখন সূর্য শীতকালে দিগন্তের নীচে থেকে যায়।

Loading videos...

সূর্য যেখানে অস্ত যায় না

১. নরওয়ে

নরওয়ে মধ্যরাতের সূর্যের দেশ হিসাবে পরিচিত। নরওয়ের অধিক উচ্চতার কারণে, দিনের আলো থাকার সময়টি ঋতুভেদে বিস্তর ফারাক সৃষ্টি করে। এই দেশে মে মাসের শেষ থেকে জুলাইয়ের শেষের দিকে প্রায় ৭৬ দিনের জন্য, সূর্য প্রায় ২০ ঘণ্টার জন্য কখনোই অস্ত যায় না।

২. ফিনল্যান্ড

এই দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলে গ্রীষ্মকালে টানা ৭৩ ঘণ্টা সরাসরি সূর্যকে জ্বলজ্বল করতে দেখা যায়। এ দেশের নাগরিকরা শীতের সময় সূর্যের আলো অনুভব করেন না। মধ্যরাতের সূর্যটি আর্কটিক বৃত্তের উপরে উজ্জ্বল হয় তবে এখানে সূর্য সংক্ষিপ্ত ভাবে দিগন্তের বাইরে চলে যায় এবং আবার উত্থিত হয়। যার ফলে শেষ রাত এবং ভোরের মধ্যে সীমারেখা ঝাপসা হয়ে যায়।

৩. সুইডেন

মে মাসের প্রথম থেকে আগস্টের শেষের দিকে সূর্য মধ্যরাতের আশেপাশে ডুবে যায় এবং ভোর ৪টে নাগাদ আবার ওঠে। এই দেশে স্থায়ী ভাবে সূর্যের আলোর সময়কাল এক বছরের মধ্যে ছ’মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

৪. আলাস্কা

মে মাসের শেষ থেকে জুলাইয়ের শেষের দিকে আলাস্কায় সূর্য অস্ত যায় না। ফেয়ারব্যাঙ্কস, আলাস্কা আর্কটিক সার্কেলের দক্ষিণে যেখানে গ্রীষ্মের সময় নিরক্ষরেখা থেকে সূর্যের দূরতম স্থানে অবস্থানকালে বেলা সাড়ে ১২টায় সূর্য অস্ত যায়। কারণ ফেয়ারব্যাঙ্কসটি আদর্শ সময় মানের অঞ্চল থেকে ৫১ মিনিট এগিয়ে।

৫. আইসল্যান্ড

সূর্য কখনোই পুরোপুরি ভাবে অস্ত যায় না। রাতের বেলাতেও দিগন্ত জুড়ে অনুভূত হয়। ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম দ্বীপ মে মাসের প্রথম থেকে জুলাই পর্যন্ত অন্ধকার দেখতে পায় না। কারণ সূর্য সব সময় দিগন্তের উপরে থাকে। মেরু অঞ্চলে গ্রীষ্মের সময়, মধ্যরাতে সূর্য অস্ত যায় এবং ভোর ৩টের সময় ফের উঠে আসে।

৬. কানাডা

কানাডার ইনুভিক এবং উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলগুলির মতো কিছু জায়গায় গ্রীষ্মে প্রায় ৫০ দিনের জন্য অবিরাম সূর্যের আলো দেখা যায়। দেশটি সারা বছরই তুষারে ঢাকা থাকে।

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া টুডে

বিজ্ঞান

দ্বিতীয় বার কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে তরুণদের, দাবি ল্যানসেটের নয়া রিপোর্টে

তিন হাজার জন অংশগ্রহণকারীকে নিয়ে গবেষণা। কী তথ্য উঠে এল?

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: প্রথম বার করোনা সংক্রমিত হয়ে সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও ফের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তরুণদের। দ্য ল্যানসেট রেসপিরেটরি মেডিসিন জার্নালে প্রকাশিত একটি পর্যবেক্ষণ গবেষণায় এমনটাই বলা হয়েছে।

রিপোর্টটিতে বলা হয়েছে, প্রথম বার কোভিডে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠলেও তা তরুণদের পুনরায় সংক্রমণ থেকে সম্পূর্ণ ভাবে রক্ষা করে না। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং রোগের সংক্রমণ কমাতে তাদের টিকা দেওয়ার দরকার রয়েছে।

Loading videos...

এই গবেষণা চালানোর জন্য ইউএস মেরিন কর্পস-এর প্রায় তিন হাজারেরও বেশি স্বাস্থ্যবান সদস্যকে বেছে নেওয়া হয়। যাঁদের বেশির ভাগের বয়স ১৮-২০ বছরের মধ্যে। এর পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সিনাই পর্বতের আইকাহন স্কুল অব মেডিসিনের গবেষকরা জোরের সঙ্গে দাবি করেছেন, তরুণদের যত দ্রুত সম্ভব টিকা নেওয়া উচিত।

গবেষকরা লক্ষ্য করেছেন যে, আগেপ সংক্রমণ এবং অ্যান্টিবডিগুলির উপস্থিতি সত্ত্বেও, প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং পুনরায় সংক্রমণ রোধ করতে বা কমাতে টিকা দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। গবেষণার নেতৃত্বে থাকা আইসাহন স্কুল অব মেডিসিনের অধ্যাপক স্টুয়ার্ট সিলফন বলেছেন, “কম বয়সিরা দ্বিতীয় বার কোভিডে আক্রান্ত হতে পারেন। পাশাপাশি অন্যদের মধ্যেও তা ছড়িয়ে দিতে পারেন”।

তাঁর কথায়, “অতীতের সংক্রমণের মাধ্যমে অনাক্রম্যতা নিশ্চিত করা যায় না এবং যাঁদের কোভিড -১৯ হয়েছে, তাঁদের অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য টিকা নেওয়া প্রয়োজন”।

২০২০ সালের মে এবং নভেম্বর মাসের মধ্যে পরিচালিত এই গবেষণায় দেখা গিয়েছে, এক বার সংক্রমিত ১৮৯ জন অংশগ্রহণকারীর মধ্যে ১৯ জন পুনরায় কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন। যদিও গবেষণাটি অল্প বয়স্ক, স্বাস্থ্যবান এবং বেশির ভাগই পুরুষের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল, গবেষকরা মনে করেন, তাঁদের গবেষণায় পাওয়া মূল্যায়ন বড়ো অংশের তরুণদের জন্য প্রযোজ্য।

ওই গবেষণায় বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা অবশ্যই ছিল। তবুও বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে সংক্রমণের হার, উপসর্গ ইত্যাদি বিষয়গুলির বিশ্লেষণ করে গবেষকরা উপসংহারে জানিয়েছেন, প্রথম বার আক্রান্তদের মধ্যে পুনরায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি হ্রাসের মূল কারণ শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হওয়া। কিন্তু ওই নির্দিষ্ট বয়সি অংশগ্রহণকারীদের এক বার আক্রান্ত হওয়ার পর তৈরি অ্যান্টিবডি দ্বিতীয় বার সংক্রমণ আটকানোর জন্য পর্যাপ্ত নয়।

আরও পড়তে পারেন: Corona Update: সংক্রমণ, সুস্থতা এবং মৃত্যুর সংখ্যায় ফের রেকর্ড, তবে কিছু রাজ্যে সংক্রমণে লাগাম পড়ার ইঙ্গিত

Continue Reading

প্রবন্ধ

First Man In Space: ইউরি গাগারিনের মহাকাশ বিজয়ের ৬০ বছর আজ, জেনে নিন কিছু আকর্ষণীয় তথ্য

আজ থেকে ঠিক ৬০ বছর আগে ১৯৬১-এর ১২ এপ্রিল মহাকাশে হিয়েছিলেন গাগারিন।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ‘মানুষ চূর্ণিল আজ নিজ মর্ত্যসীমা’ – ১৩ এপ্রিল, ১৯৬১। আনন্দবাজার পত্রিকার প্রথম পাতায় আট কলম জুড়ে ব্যানার হেডিং। মানুষ বিস্মিত, হতচকিত – মহাকাশে পৌঁছে গিয়েছে মানুষ?

তখনকার দিনে ঘরে ঘরে সংবাদ পৌঁছে দেওয়ার সব চেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম ছিল সংবাদপত্র। রেডিও ছিল, তবে তা ঘরে ঘরে ছিল না। আর টিভি তো ক’টা দেশে ছিল, তা হাতে গোনা যায়। তাই সংবাদপত্রই মূলত পৌঁছে দিল সেই খবর।

Loading videos...

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ভাষার প্রত্যেকটি কাগজে সে দিন প্রথম পাতার খবর – মানুষের মহাকাশ জয়। মানব-ইতিহাসে সব চেয়ে স্মরণীয় ঘটনা।

দিনটা ছিল ১২ এপ্রিল, ১৯৬১। সোভিয়েত নভশ্চর ইউরি গাগারিন মহাকাশযান ভস্তক ১-এ চেপে মর্ত্যের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে পৌঁছে গেলেন মহাকাশে। মহাকাশজয়ী প্রথম মানব হিসাবে স্মরণীয় হয়ে থাকলেন গাগারিন।

যুদ্ধবিমানের বিমানের পাইলট গাগারিন মহাকাশে ছিলেন ১ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট। তাঁর মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল অধুনা কাজাখস্তানের বৈকনুর কসমোড্রোম থেকে। পশ্চিম রাশিয়ার সিটি অফ এঞ্জেলস-এর কাছে গাগারিনের মহাকাশযান পৃথিবীর কক্ষপথে প্রবেশ করে। মহাকাশযান থেকে প্যারাশ্যুটে লাফিয়ে পড়েন গাগারিন, নিরাপদে পৌঁছে যান ভূপৃষ্ঠে।

৬০ বছর আগে গাগারিনের সেই মহাকাশ-অভিযান মহাকাশবিজ্ঞান নিয়ে মানুষের গবেষণায় নতুন দিগন্ত খুলে দিল। এর পর থেকে মানুষ মহাকাশ নিয়ে কী করল, সে সব আজ আর কোনো অজানা তথ্য নয়।

ভস্তক ১ মিশন নিয়ে কিছু আকর্ষণীয় তথ্য

(১) বৈকানুর কসমোড্রোম থেকে যে মুহূর্তে ভস্তক ১ যাত্রা শুরু করেছিল, সেই মুহূর্তে গাগারিনের মুখ থেকে একটা শব্দ বেরিয়ে এসেছিল – “পোয়েখালি!” (যাওয়া যাক)।

(২) যে ভাবে পরিকল্পনা করা হয়েছিল, ঠিক সেই ভাবে চালিত হয়নি মিশন। যে উচ্চতায় কক্ষপথে ভস্তক ১-এর প্রবেশ করার কথা ছিল, তার চেয়ে বেশি উচ্চতায় প্রবেশ করেছিল। এর অর্থ মহাকাশযানটির ব্রেক ফেল করতে পারত। তা হলে আরও বেশি ক্ষণ গাগারিনকে মহাকাশে থাকতে হত। তবে তা হয়নি। ব্রেক ভালো ভাবেই কাজ করেছে এবং ফেরার সময় গাগারিন পরিকল্পনামাফিকই পৃথিবীর কক্ষপথে প্রবেশ করেছেন।

(৩) জানা যায়, ভূপৃষ্ঠ ছোঁয়ার সঙ্গে সঙ্গে গাগারিনকে প্রথম দেখেছিলেন এক কৃষক ও তাঁর কন্যা। সেই সময়টা ছিল ঠান্ডা যুদ্ধের। গাগারিনকে তাঁরা মার্কিন গুপ্তচর মনে করেছিলেন। তাঁদের বোঝাতে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছিল গাগারিনকে।

(৪) গোটা মিশনটা নিয়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন চরম গোপনীয়তা অবলম্বন করেছিল। গাগারিন পৃথিবীতে নিরাপদে পৌঁছে যাওয়ার পরে ইউরি গাগারিনের এই অবিস্মরণীয় কৃতিত্বের খবর প্রকাশ করা হয়। সারা বিশ্ব যেন একটা ধাক্কা খায়, বিশ্বাস করে উঠতে পারে না ঘটনাটা – মনে মনে ভাবে, এমনও হয়!

(৫) গাগারিনের মহাকাশ-বিজয় উপলক্ষ্যে উৎসব-সমারোহের আয়োজন করা হয় সেন্ট পিটার্সবার্গে। হাজার হাজার লোক তাতে যোগ দেন। অসংখ্য মডেল রকেট আকাশে ছোড়া হয়। সেই সঙ্গে চলে আতসবাজির নানা খেলা।

Continue Reading

বিজ্ঞান

কোভিড ‘মরশুমি’ রোগের আকার নিতে পারে, বলছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের গবেষণা

মরশুমি বিপদে পরিণত হতে পারে কোভিড, আশঙ্কার কথা শোনাল রাষ্ট্রসঙ্ঘের গবেষণা!

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: একটি ‘মরশুমি’ রোগে পরিণত হতে পারে কোভিড-১৯ (Covid-19)। আবহাওয়াজনিত কারণের ভিত্তিতে মহামারি সংক্রান্ত ব্যবস্থা শিথিল করার বিরুদ্ধে সতর্ক করে বৃহস্পতিবার তেমনই সম্ভাবনার কথা বলেছে রাষ্ট্রসঙ্ঘ (United Nations)।

করোনাভাইরাস অতিমারি (Coronavirus pandemic) প্রথম চিনে ধরা পড়েছিল। ওই ঘটনার এক বছরেরও বেশি সময় পরে, এখনও এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘিরে অনেক রহস্য রয়েছে। বিশ্বব্যাপী প্রায় ২৭ লক্ষ মানুষের প্রাণ গিয়েছে কোভিডে আক্রান্ত হয়ে।

Loading videos...

মরশুমি বিপদে পরিণত হতে পারে কোভিড

কোভিড -১৯-এর বিস্তার সম্পর্কে সম্ভাব্য আবহাওয়া এবং বায়ুর গুণগত মানের প্রভাবগুলি পরীক্ষা করে সেই রহস্যগুলির মধ্যে একটির উপর আলোকপাত করার দায়িত্ব পেয়েছিল একটি বিশেষজ্ঞ দল। তাদের প্রথম প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এমন কিছু লক্ষণ দেখা দিয়েছে যে, এই রোগটি বিশ্বের কাছে মরশুমি বিপদে পরিণত হতে পারে।

রাষ্ট্রসঙ্ঘের ওয়ার্ল্ড মেটিরিওলজিক্যাল অর্গানাইজেশন ১৬ সদস্যের ওই বিশেষজ্ঞ দলটি গঠন করেছিল। বিশেষজ্ঞরা প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন, শ্বাসজনিত ভাইরাল সংক্রমণ প্রায়শই মরশুমি হয়। বিশেষত শরৎকাল এবং শীতকালে ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রকোপ বাড়ে। করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রেও শীতকালীন আবহাওয়াকে বিশেষ ভূমিকা নিতে দেখা গিয়েছে।

কোভিডবিধি সমান ভাবে মেনে চলা উচিত

রিপোর্টে বলা হয়েছে, এ ভাবে দিনের পর দিন চললে কোভিড-১৯ এক দিন মরশুমি রোগের আকার নিতে পারে। একই সঙ্গে কোভিডের প্রকোপ কমার কারণ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে মাস্কের ব্যবহার এবং চলাচলের উপর সরকারি বিধিনিষেধ জারির বিষয়গুলিকেও। যে কারণে বিশেষজ্ঞ দল বলেছে, শুধুমাত্র আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য করোনা সংক্রমণ কমতে পারে, এমন ধারণা পোষণ করা ঠিক নয়। কোভিডবিধিগুলিও সমান ভাবে মেনে চলা উচিত।

এই বিশেষজ্ঞ দলের নেতৃত্বে থাকা জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থ অ্যান্ড প্ল্যানেটারি সায়েন্সেস বিভাগের অধ্যাপক বেন চাইচিক বলেছেন, সরকারি বিধিনিষেধ শিথিল করে দিলে আবহাওয়া এবং বায়ুর মানের কারণে করোনা সংক্রমণ কমে যাবে, এই পর্যায়ের নমুনাগুলি তা মোটেই প্রমাণ করে না।

তিনি বলেন, প্রথম বছরের অতিমারির সময় কোথাও কোথাও শীতকালে তা খুব বেড়ে গিয়েছিল। এ বছরেও যে তেমনটা ঘটবে না, তার কোনো নিশ্চয়তা নেই।

বায়ু দূষণে কি সংক্রমণ প্রভাবিত হয়?

মূলত আবহাওয়া এবং বায়ুর মানের উপর ভিত্তি করেই করোনা ভাইরাস সংক্রমণে সম্ভাব্য দিকগুলির উপর আলোকপাত করেছে এই বিশেষজ্ঞ দলটি। গবেষণায় জানা গিয়েছে, ভাইরাসটি শীত, শুষ্ক আবহাওয়ায় লম্বা সময় বেঁচে থাকতে পারে। বিশেষত, যখন খুব অল্প অতিবেগুনি রশ্মি নির্গত হয়, সে সময়।

যদিও আবহাওয়া সংক্রান্ত প্রভাবগুলি ভাইরাসের সংক্রমণে প্রকৃতঅর্থে কতটা কার্যকরী, তা এখনও অস্পষ্ট। তবে বায়ুর গুণমান খারাপ থাকার কারণে (দূষণ বেশি) কোভিডরোগীর মৃত্য়ুর হার বেড়েছে বলে প্রাথমিক প্রমাণ মিলেছে। কিন্তু বায়ু দূষণের ফলে সারস-কোভ-২-এর সংক্রমণ সরাসরি প্রভাবিত হয়, সেটা বলা যাচ্ছে না।

আরও পড়তে পারেন: সংক্রমণ পেরোল ৩৫ হাজারের গণ্ডি, দৈনিক মৃত্যুর হার মাত্র ০.৪৭ শতাংশ

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
insurance
শিল্প-বাণিজ্য10 mins ago

জীবন বিমা পলিসি কত রকমের হয়? কেনার সময় নিজের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রাখুন

দেশ47 mins ago

কোভিডের মধ্যে অক্সিজেন বণ্টনে নজর রাখতে টাস্কফোর্স গঠন করল সুপ্রিম কোর্ট

রাজ্য1 hour ago

Covid Crisis: রাজ্যকে সাহায্য করুক কেন্দ্র, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন অধীররঞ্জন চৌধুরী

দেশ2 hours ago

Covid Crisis: জলে গুলে খেতে হবে, করোনারোধী ওষুধে ছাড়পত্র দিল ডিজিসিআই

Coronavirus Delhi
দেশ2 hours ago

Coronavirus Second Wave: ১২ দিনে ১২ শতাংশ কমল সংক্রমণের হার, স্বস্তি ফিরছে দিল্লিতে

দেশ2 hours ago

Vaccination Drive: শীঘ্রই চতুর্থ কোভিড-টিকা পেয়ে যেতে পারে ভারত

দঃ ২৪ পরগনা3 hours ago

সুন্দরবনের পিঁপড়েখালি সেতু ভেঙে গুরুতর জখম ১

দেশ3 hours ago

শেষ সাত দিনে ১৮০টি জেলায় নতুন করে কোভিড আক্রান্ত নেই, জানালেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী

রাজ্য3 days ago

কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে পুনর্গণনার দাবিতে আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি শুভেন্দু অধিকারীর

sourav ganguly
ক্রিকেট2 days ago

Covid Crisis in IPL: জৈব সুরক্ষা বলয়ে কোনো ফাঁক ছিল বলে মনে করেন না সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

দেশ2 days ago

Corona Update: দু’তিনটে রাজ্যে সংক্রমণবৃদ্ধির জের, ভারতের দৈনিক সংক্রমণ ভেঙে দিল অতীতের রেকর্ড

রাজ্য2 days ago

Post-Poll Violence: ইন্ডিয়া টুডে-র সাংবাদিকের ছবি পোস্ট করে হিংসায় মৃত হিসেবে বর্ণনা বিজেপির

রাজ্য3 days ago

Bengal Corona Update: দৈনিক সংক্রমণ ১৮ হাজারের গণ্ডি পেরোলেও কমল সংক্রমণের হার, পর পর ৪ দিন সুস্থতার হারে বৃদ্ধি

ক্রিকেট1 day ago

England vs India 2021: ঋদ্ধি, শামি ছাড়াও ইংল্যান্ডগামী টেস্ট দলে ঠাঁই পেলেন বাংলার আরও এক

রাজ্য2 days ago

সুখবর! রাজ্য সরকারি কর্মীরা পাচ্ছেন অ্যাড-হক বোনাস

পরিবেশ3 days ago

২০ বছরে বাংলাদেশের সুন্দরবনে ২৫ বার আগুন, পুড়ে গেছে প্রায় ৮১ একর বনভূমি

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা3 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে