thailand caves

ওয়েবডেস্ক: বারোজন কিশোর ফুটবলারকে নিয়ে এক সপ্তাহ আগে দেশের দীর্ঘতম থাম লুয়াং গুহা দর্শনে গিয়েছিলেন থাইল্যান্ডের এক যুব দলের সহকারি কোচ। তার পর থেকে সেখানেই আটকে তাঁরা। প্রবল বৃষ্টির ফলে ভেসে গিয়েছে গুহা। প্রতিকূল আবহাওয়ার জন্য রবিবার পর্যন্ত তাদের উদ্ধারে কোনো দিশা খুঁজে পায়নি প্রশাসন। অবশেষে আবহাওয়া একটু উন্নত হতেই উদ্ধারের জন্য রওনা হয়েছে উদ্ধারকারী দল।

জানা গিয়েছে, এক সপ্তাহ আগে গুহার মধ্যে প্রবেশ করার পরেই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। তারা কেমন আছে, কী ভাবে আছে, কিছুই জানা যাচ্ছে না। শুধু এই টুকুই জানা গিয়েছে যে গুহাটি প্লাবিত হয়ে গিয়েছে।

তাদের উদ্ধারের জন্য আন্তর্জাতিক সহায়তা চেয়েছে প্রশাসন। তবে রবিবারের পর বৃষ্টি থামায় উদ্ধারকারী দলের আশা, দশ কিলোমিটার লম্বা ওই গুহা থেকে খুব দ্রুতই আটক ব্যক্তিদের বের করে নিয়ে আসা হবে।

দলটি যখন গুহায় ঢুকেছিল, তখন সে দলে ছিলেন না প্রধান কোচ, নপার্ট কান্ঠাভং। তাদের নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ব্যাপারে তিনিই প্রথম খবর দিয়েছিলেন। উদ্ধারকাজ শুরু হওয়ায় অনেকটা স্বস্তিতে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, “আমি অনেক দিন এর কম খুশি হইনি। অনেক কিছু ভালো জিনিস হচ্ছে। বৃষ্টি বন্ধ হয়েছে। গুহায় যাতে জল না ঢোকে সে জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করে উদ্ধারকারী দল। কিশোরদের অভিভাবকরাও এখন অনেক শান্তিতে।”

এক হাজার জন থাই উদ্ধারকারীর পাশাপাশি উদ্ধারকাজে হাত লাগিয়েছে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, জাপান, চিন এবং যুক্তরাষ্ট্রও। গুহা থেকে যাতে জল বের করে দেওয়া যায় সেই কারণে আশেপাশের গ্রামে বড়ো বড়ো পাম্প বসানো হয়েছে।

আধিকারিকদের আশা, যে গুহায় এই দলটি আটকে পড়েছে, সেখানে তারা আগেও বেশ কয়েক বার গিয়েছে এবং গুহার ব্যাপারে অনেক কিছুই তাদের জানা। সুতরাং গুহার মধ্যে কোনো নিরাপদ স্থানেই তারা থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

ভালোয় ভালোয় ছেলেগুলো এবং তাদের স্যারকে ফিরিয়ে আনাই এখন একমাত্র লক্ষ্য উদ্ধারকারীদের। উদ্ধারের অপেক্ষায় প্রহর গুনছে গোটা থাইল্যান্ড।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here