বোগোটা (কলোম্বিয়া) : পেটের যন্ত্রণায় কষ্ট পাচ্ছিলেন এক মহিলা। পেটে অস্ত্রোপচারের পর বেরিয়ে এলো ৫ হাজার ৭০০ মার্কিন ডলার।

আসলে বিশ্বাসঘাতক স্বামীকে শিক্ষা দিতে নিজেদের সঞ্চয়ের গোটাটাই গিলে নিয়েছিলেন স্ত্রী।

অদ্ভুত শোনালেও এটাই সত্যি।

কলোম্বিয়ার একটি সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, ২৮ বছরের সান্দ্রা মিলেনা আল্মেইদা, স্বামী বিশ্বাসঘাতকতা করছেন জানতে পেরে ঠিক করেন স্বামীকে ছেড়ে চলে যাবেন। তুলে নেন তাঁদের জমানো সমস্ত নগদ সঞ্চয়। তা লুকিয়ে রাখেন নিজেদের বাড়িতেই।

অন্যদিকে সান্দ্রা যে এই সব পরিকল্পনা করছেন বা তাঁর আনুগত্যহীনতার ব্যাপারেও খবর পেয়ে গেছেন সেটা বুঝতে পেরে যান সান্দ্রার স্বামী। তিনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নগদ অর্থের ভাগবাটোয়ারা করে ঝামেলা মিটিয়ে নিতে চান। কিন্তু পরিস্থিতি ঠিক তখনই হাতের বাইরে বেরিয়ে যায়।

 

জোড়াজুড়ির মুহূর্তে লুকিয়ে রাখা ৭০০০ মার্কিন ডলারের গোটা বান্ডিলটা হুট করে গিলে ফেলেন সান্দ্রা।

এর পর পেটের যন্ত্রণা শুরু হয়। তিনি চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। প্রথমে চিকিৎসকরা তাঁকে মাদকাসক্ত ভেবেছিলেন। এক্স-রে করা হয় তাঁর পেটের। তাতে ধরা পড়ে একটা প্যাকেট পেটের মধ্যে রয়েছে। চিকিৎসকরা জানান, এটাই পাকস্থলী আর অন্ত্রের মধ্যে বাধার সৃষ্টি করছে। সেই জন্যই এই ব্যাথা। অস্ত্রোপচার করতে হবে।

অস্ত্রোপচার করতে গিয়ে চিকিৎসকদের চোখ এক প্রকার কপালে। পেট থেকে উদ্ধার হল ১০০ ডলারের ৫৭টা নোট।

সান্তান্দের ইউনিভার্সিটি হসপিট্যালের চিফ সার্জেন জুন পাউলো সেরানো কলম্বিয়ার একটি রেডিও চ্যানেলকে জানান, অপারেশন থিয়েটরে সেগুলো পরিষ্কার করে শুকিয়ে নেওয়ার পর পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। বাকি টাকা পাচকরসের জন্য নষ্ট হয়ে গেছে। এখন বিচারকই ঠিক করবেন কী ভাবে এই টাকার ভাগ বাটোয়ারা করবেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here