খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনা সংক্রান্ত আর্থিক বিলটাকে তিনি যদি আইনে পরিণত না করেন তা হলে দেশের করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। সে কারণে নিজের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে আর্জি জানালেন ভাবী প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

যাঁদের বার্ষিক আয় ৭৫ হাজার ডলার, তাঁদের ৬০০ ডলার করে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে ওই বিলে। কিন্তু ট্রাম্প চাইছেন, তাঁদের ২০০০ ডলার করে দেওয়া হোক। মতবিরোধের সূত্রপাত এখান থেকেই। সে কারণেই কিছুতেই এই বিল সই করতে চাইছেন না ট্রাম্প।

কিন্তু এমনটা করলে দেশের পরিস্থিতি আরও সংকটজনক হবে বলে মনে করেন বাইডেন। তিনি বলেন, “দেশে করোনার জন্য যে আর্থিক ত্রাণবিল আনা হয়েছে তার জন্য ট্রাম্পের সই জরুরি। তিনি সই করলেই বিলটিকে আইনে পরিণত করা যাবে।”

এর পরই উদ্বেগ প্রকাশ করে তাঁর মন্তব্য, “ট্রাম্প যদি এই বিলে সই করতে আরও দেরি করেন তা হলে গভীর সঙ্কটের মুখে পড়বে দেশ।”

উল্লেখ্য, গত সোমবার হাউস অব রিপ্রেসেন্টেটিভ এবং সেনেটে এই বিলটি পাশ হয়। কিন্তু তার পরের দিনই বিলের বিরুদ্ধে ভেটো আনেন ট্রাম্প। তাঁর অভিযোগ বিলে যে পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করা হচ্ছে দেশবাসীর জন্য সেটা খুবই সামান্য।

‘ভিত্তিহীন’, দাবি ট্রাম্পের

এই প্যাকেজ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন ট্রাম্প। ট্রাম্প বলেন, “আমি চাই, আমার দেশের মানুষ ৬০০ ডলারের পরিবর্তে ২০০০ ডলার করে সাহায্য পান। কিন্তু বিলে যা অর্থ বরাদ্দ করা হচ্ছে তা মোটেই কাম্য নয়।”

ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তে অখুশি বাইডেন। ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, “লাখ লাখ পরিবার এখনও জানে না কী ভাবে তাঁদের রুজি-রুটি জোগাড় হবে।” এর জন্য আর্থিক সহায়তা নিয়ে ট্রাম্পের মনোভাবকেই দায়ী করেছেন বাইডেন।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

ছয় মাসে সর্বনিম্ন দৈনিক সংক্রমণ ভারতে, সংক্রমণের হার দুই শতাংশেরও কম

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন