trump

ওয়াশিংটন: ‘অবাধ্য’ পাকিস্তানকে সঠিক পথে আনার জন্য নিজের দুই বিশ্বস্ত সৈনিককে সে দেশে পাঠাচ্ছেন ট্রাম্প। এমনই ঘোষণা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

সপ্তাহখানেক আগেই পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসের আঁতুড়ঘর’ বলে তোপ দেগেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর পর সেই দেশে নিজের কূটনৈতিক এবং সামরিক উপদেষ্টাকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। এ মাসের শেষেই পাকিস্তান যাত্রা করবেন মার্কিন বিদেশ সচিব রেক্স টিলেরসন। তার পরেই পাকিস্তান যাবেন প্রতিরক্ষা সচিব জিম ম্যাটিস।

এই দুই উপদেষ্টাকে পাঠিয়ে পাকিস্তানের উদ্দেশে কড়া বার্তা দিতে চাইছেন ট্রাম্প, এমনই ধারণা বিশেষজ্ঞদের। এমনিতে পাকিস্তান এবং যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে প্রভাব ফেলেছে সন্ত্রাসবাদ। সেই সম্পর্কে আরও খারাপ হয় ২০১১-তে, তখন অ্যাবোটাবাদে বাড়িতে ঢুকে ওসামা বিন লাদেনকে গুলি করে মারে মার্কিন সেনা।

পড়তে পারেন : ট্রাম্পের প্রভাব? হাফিজ সঈদের সন্ত্রাসবাদী সংগঠনকে নিষিদ্ধ করল পাকিস্তান

প্রেসিডেন্ট পালটালেও পাকিস্তানে কড়া বার্তা ট্রাম্পও দিচ্ছেন। গত আগস্টে তিনি বলেছিলেন, “আমরা পাকিস্তানকে কোটি কোটি টাকা অর্থসাহায্য করছি, অথচ ওরা ওই টাকা দিয়ে সন্ত্রাসবাদীদের তৈরি করছে। এটা বন্ধ করতে হবে।”

তবে দুই সচিবের সফর নিয়ে খুব একটা বিচলিত নন এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী খোওয়াজা আসিফ। তিনি বলেন, “এখন দোষারোপের সময় নয়। এই দুই সচিবের পাকিস্তান সফর যাতে ভালো ভাবে সম্পন্ন হয়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে।”

সেপ্টেম্বরে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক হয় পাক প্রধানমন্ত্রী মাইক পেন্সের। ট্রাম্পের কঠোর মনোভাব সত্ত্বেও বৈঠক যথেষ্ট বন্ধুত্বপূর্ণ আবহতেই হয়েছে বলে জানান আসিফ। তবে পাকিস্তানকে বেশি চটানোও যে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে সম্ভব নয়, এমনও মত রয়েছে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে। তাদের দাবি আফগানিস্তানের সেনাকে সামরিক ভাবে সাহায্য করার জন্য পাকিস্তানকে প্রয়োজন যুক্তরাষ্ট্রের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here