potential missile

ওয়াশিংটন: ক্ষেপণাস্ত্র সম্পর্কিত ক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও গভীরতর করার লক্ষ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। পেন্টাগনের রিপোর্ট অনুযায়ী, আমেরিকার ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় রণনীতির ক্ষেত্রে নয়াদিল্লি একটি বিশেষ ভূমিকা রাখে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ৮১ পাতার একটি ‘মিশাইল ডিফেন্স রিভিউ রিপোর্ট’ প্রকাশ করেছেন। তাতে পেন্টাগন জানিয়েছে, ভারত রাশিয়ার কাছ থেকে পাঁচ লক্ষ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয়ে এস ৪০০ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কিনতে চলেছে। তাতে প্রকাশ্যে অসন্তোষ জানিয়েছে আমেরিকা।

ক্ষেপণাস্ত্র সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক রিভিউ রিপোর্টে পেন্টাগন জানিয়েছে, তাবড় যুদ্ধাস্ত্র তৈরির ক্ষেত্রে ক্ষমতা আর ভাণ্ডার এখন আর বিশ্বের কয়েকটি দেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। তা ছড়িয়ে পড়েছে। এখানে বলা হয়েছে, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি এলাকা গত কয়েক দশকে ক্ষেপণাস্ত্র আর সামুদ্রিক যুদ্ধের ক্ষেত্রে ব্যবহার্য অস্ত্রসস্ত্রের ব্যাপারে বেশ উন্নতি করেছে।

আরও পড়ুন ঃ পথের কুকুর হঠাৎ হাজির র‌্যাম্পে, হাঁটল সিদ্ধার্থ মালহোত্রার সঙ্গেই, কাড়ল নজর, দেখুন ভিডিও

রিপোর্টে এ-ও বলা হয়েছে সাংঘাতিক উন্নতি করেছে চিন আর রাশিয়া। এই দু’দেশের উন্নতি আমেরিকার কাছে হুমকির শামিল।

এই প্রেক্ষিতে ক্ষেপণাস্ত্র সম্পর্কিত বিষয়ে ভারত-মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তবে তাতে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক বিষয়ে আর কিছু জানানো হয়নি।

প্রসঙ্গত, গত কয়েক দশকে স্থল, জল আর মহাকাশ সম্পর্কিত প্রযুক্তিতে চিন অস্বাভাবিক উন্নতি করেছে। বিশেষ করে হাইপারসোনিক মিশাইলের ক্ষেত্রে। তাতে স্বাভাবিক ভাবেই যুদ্ধ বাঁধলে তাকে ঠেকানো বেশ চিন্তার। আর তাই সাকল্যে চিন সাগরে তাইওয়ানকে ঘিরে আমেরিকার আধিপত্য টিকিয়ে রাখার বিষয়টিই কপালে ভাঁজ ফেলেছে আমেরিকার।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here