bushra bibi

ওয়েবডেস্ক: তিন তালাক পর্ব সেরে এই নিয়ে তিন বার যখন নিকাহ কবুল করলেন তেহরিক-ই-ইনসাফ প্রধান, পাকিস্তানের ইমরান খান, তখন সবাই চমকে গেল! পাশাপাশি রহস্যের আঁধার আরও ঘনীভূত হল, যখন জানা গেল বশরা বিবি, ইমরানের এই তৃতীয় পক্ষ পেশায় আধ্যাত্মিক উপদেষ্টা। তামাম পাকিস্তান যাঁকে পিঙ্কি পীর নামে এক ডাকে চেনে!

কে এই বশরা বিবি ওরফে পিঙ্কি পীর? বছর চল্লিশের এই মহিলা পীরে রূপান্তরিত হলেনই বা কী ভাবে?

bushra bibi

জানা গিয়েছে, বশরার পূর্ব নাম বশরা মানেকা। তিনি পাকিস্তানের বতু গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত। তা হলে তাঁর নাম বশরা বতু না হয়ে মানেকা কেন?

সেই রহস্য লুকিয়ে রয়েছে বশরার পূর্ব বিবাহের ইতিবৃত্তে। বতু গোষ্ঠীরই এক শাখাগোষ্ঠী হল মানেকা। এই মানেকা বংশোদ্ভূত, পেশায় কাস্টমস অফিসার, খবর ফরিদ মানেকার সঙ্গে প্রথম বার বিয়ে হয়েছিল বশরার। সেই প্রথম বিয়ের সূত্রে পাঁচটি সন্তানও প্রসব করেছিলেন তিনি।

তবে এ সব বাদ দিয়েও বশরার রয়েছে এক আশ্চর্য গুণ- তিনি ভবিষ্যৎ বলে দেওয়ার ক্ষমতা ধরেন। এই প্রতিভাকে অন্দরমহলের ঘেরাটোপে আটকে রাখেননি বশরা। বরং, ব্যবহার করেছেন, পেশায় পরিণত করেছেন তাকে। সেই পেশার সূত্রেই তাঁর ছদ্মনাম পিঙ্কি পীর। নাম ছদ্ম হলেও প্রতিভা যে নয়- তারই প্রমাণ হাতে-নাতে পেয়ে চমকে গিয়েছিলেন ইমরান খান।

imran khan and bushra bibi

জানা গিয়েছে, ইমরান যখন তেহরিক-ই-ইনসাফ দল গঠন করে রাজনীতির খাতায় নিজের নাম তুলতে ব্যস্ত, সে সময় ভবিষ্যতে দলে কী কী হবে, কোন দিকে বাঁক নেবে ইমরানের রাজনৈতিক জীবন- তা গুণে-গেঁথে বলে দিয়েছিলেন পিঙ্কি পীর। ইমরান চমকে যান, যখন দেখেন প্রত্যেকটি কথাই অক্ষরে অক্ষরে মিলে গিয়েছে।

এর পরে গল্পের যেটুকু পড়ে থাকে, তা বেশ দ্রুত গতির। নিয়মিত ভাবে ভবিষ্যৎ জানার জন্য এবং জীবনপথের সঠিক হদিশের খোঁজে পীরের দ্বারস্থ হতে থাকেন ইমরান। যা ক্রমশ রূপান্তরিত হয় গভীর প্রেমে। এর পর আর দ্বিধা করেননি বশরা। স্বামীকে সব কথা জানিয়ে, তালাক নিয়ে অবশেষে ঘর বাঁধলেন মনের মানুষটির সঙ্গে।

iomran khan and bushra bibi

তা, সম্পর্ক যে ক্রমশ বিয়ের দিকে এগোচ্ছে, সেটা কি জানতে পেরেছিলেন বশরা? তাঁর আধ্যাত্মিক জীবন কি এই নিয়ে কিছু ইঙ্গিত দিয়েছিল আগেভাগে?

বশরা বা ইমরান- কেউই এর কোনো উত্তর দিচ্ছেন না!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here