thong

ওয়েবডেস্ক: এক ১৭ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে এক ২৭ বছরের যুবকের বিরুদ্ধে। সংশ্লিষ্ট আদালতে বিচার চলাকালীন অভিযুক্তের আইনজীবী ওই কিশোরীর একটি অন্তর্বাস বিচারপতির সামনে হাজির করেন। এবং তিনি সেটা হাতে তুলে নিয়েই সওয়াল করতে শুরু করেন। বলেন, দেখুন সে (অভিযোগকারিণী) ঠিক কেমন ভাবে ধরনের অন্তর্বাস পরেছিল। এর থেকেই স্পষ্ট সে আমার মক্কেলের সঙ্গে যৌনক্রীড়ায় সম্মতি জানিয়েছিল।

এর পরই আয়ারল্যান্ডের এই ঘটনাকে ঘিরে শুরু হয় প্রবল আন্দোলন। রাস্তায় নেমে পড়েন হাজার হাজার নারী। তাঁদের প্রত্যেকের হাতে ধরা অন্তর্বাস।

 underwear

সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই নিয়ে হয় জোরালো প্রতিবাদ। উঠে আসে বিবিধ প্রশ্ন। জানতে চাওয়া হয়, আজকের অতিআধুনিক সভ্যতায় একটা অন্তর্বাস কি ধর্ষণের প্রমাণ হতে পারে, এটা কেমন ধরনের বিচার ব্যবস্থা?

 underwear

অভিযুক্তের আইনজীবী দাবি করছেন, ওই কিশোরী এমন একটি অন্তর্বাস পরেছিল, যেটির ফিতে সামনের দিকে। অর্থাৎ, প্রবল ভাবে সম্মতি ছিল তারও।

 underwear

প্রতিবাদকারীদের দাবি, এই ধরনের সেকেলে চিন্তাধারা ঝেড়ে ফেলতে হবে। আমরা সবাই জানি ভিতরে কী পরে রয়েছি, তার সঙ্গে কাউকে সম্মতি জানানোর কোনো প্রশ্নই ওঠে না।

 underwear

একই সঙ্গে যুক্তযুক্ত ভাবেই বলা হচ্ছে, এ ভাবে আদালতে শুনানি চলাকালীন ধর্ষিতার অন্তর্বাস হাজির করা ঘোর অন্যায় এবং অমানবিক।

সোশ্যাল মিডিয়াতেও উঠেছে ঝড়। যেখানে ‘দিস ইজ নট কনসেন্ট’ হ্যাজ ট্যাগে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন প্রত্যেকে। পুরোটা দেখে নিন ভিডিওয়-

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here