খবর অনলাইন: অনুকূল চন্দ্র আশ্রমের সেবক নিত্যরঞ্জন পাণ্ডেকে হত্যার দায় নিল আইএসআইএল তথা দ্য ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভ্যান্ট। সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ নামে আমেরিকার এক মনিটরিং সার্ভিসের সূত্রে এই খবর জানা গিয়েছে। গত সপ্তাহ থেকে এই নিয়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের তিন জনকে হত্যার দায় নিল আইএসআইএল। বাংলাদেশ সরকার তাদের দেশে আইএসআইএল-এর উপস্থিতি স্বীকার করে না। তাদের বক্তব্য, স্থানীয় জঙ্গি গোষ্ঠীই এই হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ পুলিশের জঙ্গিদমন অভিযানের সূত্রে এ পর্যন্ত জামাত-ই-ইসলামির ৩০০০ জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা করেছেন, গুপ্তহত্যায় যারা জড়িত তাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব খুঁজে বার করা হবে। ভূখণ্ডের দিক থেকে বাংলাদেশ খুব ছোট। এখানে সবাই সবাইকে চিনতে পারে, জানতে পারে। এগুলো খুঁজে বার করা খুব কঠিন কাজ নয়। এটা শুধু সময়ের ব্যাপার। শনিবার আওয়ামি লিগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “এদের সূত্রটা কী ? কোথা থেকে টাকা আসছে ? কাদের মদতে এরা এ সব করছে ? সেই সূত্রগুলোও আমরা খুঁজে বের করব। তার কিছু কিছু সূত্র আছে। আমরা পাচ্ছি। এক সময় সবটাই বেরিয়ে আসবে। দেশি-বিদেশি যারাই এর পিছনে থাক, বাংলাদেশের মানুষ তা মেনে নেবে না। এই বাংলাদেশে কোনও রকমের জঙ্গি কার্যকলাপ বা সন্ত্রাসবাদ বরদাস্ত করা হবে না।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here