চেন্নাই: মহাবলিপুরমের কাছে গোল্ডেন বে রিসর্টে বিধায়কদের তিন দিন ধরে প্রায় নজরবন্দি করে রেখেছেন শশীকলা, কিন্তু দলে ভাঙন এড়াতে পারছেন না। শশীকলার হৃদকম্প বাড়িয়ে রাজ্যের মন্ত্রীরা একে একে ভিড়ছেন পন্নিরসেলভম তথা ওপিএস-এর শিবিরে। শুধু মন্ত্রীই নয়, ওপিএস-এর দিকে আসছেন দলের এমপি, কর্মকর্তারাও।

ওপিএস শিবিরে আপাতত সর্বশেষ সংযোজন গ্রামীণ শিল্পমন্ত্রী পি বেঞ্জামিন। শনিবার রাতে তিনি শশীকলা শিবির ছেড়ে ওপিএস শিবিরে যোগ দেন। এ দিন রাজ্যের আরও দুই মন্ত্রী চলে এসেছেন ওপিএস-এর দিকে। এঁরা হলেন শিক্ষামন্ত্রী কে পান্ডিয়ারাজন এবং মৎস্যমন্ত্রী জয়কুমার। কে পান্ডিয়ারাজনই প্রথম মন্ত্রী যিনি অস্থায়ী মুখ্যমন্ত্রীর শিবিরে যোগ দিলেন। তিনি বলেন, “আমার বিশ্বাস এই মানুষটিই জনতার হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। আম্মার উত্তরাধিকার বয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা ওঁরই আছে। তাই এখানে এলাম। আজ যা দেখছেন, আমাদের সংখ্যা তার চেয়ে অনেক বেশি হবে এবং শেষ পর্যন্ত ১৩৫-এ দাঁড়াবে।”

তিন মন্ত্রী ছাড়াও ওপিএস শিবিরে যোগ দিয়েছেন তিরুপুরের সাংসদ ভি সত্যভামা। সত্যভামাকে নিয়ে দলের ৪ এমপিকে ওপিএস-এর দিকে এলেন। এমপি সত্যভামা ছাড়াও পন্নিরসেলভমের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন দলের প্রবীণ নেতা ও মুখপাত্র সি পোন্নাইইয়ান।

এ দিকে শনিবার সন্ধ্যায় গোল্ডেন বে রিসর্টে বিধায়কদের সঙ্গে দেখা করে আসার পর শশীকলা বলেছেন, সব বিধায়ক সুখে, আনন্দে আছেন। তাঁর অভিযোগ, দলে ভাঙন ধরানোর জন্য রাজ্যপাল ইচ্ছে করে সময় নিচ্ছেন। তাই রবিবার থেকে তাঁরা নতুন ধরনের প্রতিবাদ শুরু করবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন