ওয়েবডেস্ক: লম্বা সফরে একজন সঙ্গী পেলে মন্দ লাগে না কারোরই। কিন্তু সে সঙ্গী যদি হয় আস্ত একটা পাইথন সাপ, কেমন হবে সে সফর? ভাবতে পারছেন না তো। করাইক্কাল কোট্টায়াম এক্সপ্রেসের যাত্রীরাও ভাবতে পারেননি। বলা ভালো, যাত্রা শেষ হওয়া পর্যন্ত জানতেই পারেননি কেউ। ট্রেনের খালি আসনে একটি ব্যাগ পড়ে থাকতে দেখেও সন্দেহ হয়নি কারোর। ব্যাগের মধ্যে থেকে নড়াচড়া শুরু হলে টনক নড়ে পাইথনের সহযাত্রীদের। ট্রেন অন্তিম স্টেশনে পৌঁছে গেলে ব্যাগ খুলে উদ্ধার করা হয় তাকে। সূত্রের খবর অনুযায়ী জিজো জর্জ নামের এক বছর ২৯-এর  যুবক চুরি করে নিজের সঙ্গে নিয়ে যাচ্ছিল পাইথনটিকে। ভুল করে অতিথি সমেত ব্যাগটি নিজের আসনে ফেলেই মাঝপথে ট্রেন থেকে নেমে পড়ে জিজো। পাইথনটিকে উদ্ধার করে বন দফতরে খবর দেয় রেল কর্তৃপক্ষ। গ্রেফতার করা হয়েছে জিজো জর্জকে।

বছরের প্রথম দিনে ওট্টাপালামে আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ফিরছিলেন জিজো। শ্রীকৃষ্ণপুরমে এসে দেখেন এক জায়গায় অনেক লোক জমায়েত হয়েছেন। ব্যাপারখানা কি, খোঁজ নিতেই শুনলেন দেখা মিলেছে এক পাইথনের। শুনেই পাইথনটিকে ব্যাগবন্দি করে ফিরে গেলেন ওট্টাপালামে, ট্রেন ধরবেন বলে। ট্রেন যে সোজা তাঁর বাড়ি কোট্টায়াম পর্যন্তই যাবে, জানতেন না জিজো। এড়নাকুলমে নেমে পড়লেন নিজে, আর ব্যাগ সমেত পাইথন রয়ে গেল ট্রেনেই। ব্যাগের নড়াচড়া নজরে আসতে অন্তিম স্টেশনে খবর দেওয়া হল ট্রেনের ক্লিনারকে। ব্যাগের চেন খুলতেই অবাক কাণ্ড। ভেতরে রয়েছে আস্ত একটা পাইথন। ব্যাগ থেকে উদ্ধার হল জিজোর পরিচয় পত্রও। বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন, ১৯৭২-এর আওতায় গ্রেফতার করা হয়েছে জিজোকে। দোষী সাব্যস্ত হলে ২৫০০০ টাকা জরিমানা সহ ৩ বছরের জেল হতে পারে জিজো জর্জের।

কোট্টায়াম পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, জিজো নাকি প্রায়শই সাপ টাপ চুরি করে ধরে এনে খেয়ে ফেলেন। শুধু জিজো নন, কেরালার ওই অঞ্চলে এমন ঘটনা নাকি আকছার ঘটে। বর্ষবরণের উদযাপনটা হবে পাইথনের ঝোল দিয়ে, এমন ইচ্ছে থেকেই নাকি এত কাণ্ড করেছেন জর্জ।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন