আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাসমতো সোমবার দুপুরের পর থেকে প্রবল বৃষ্টি নামল কলকাতায়। বৃষ্টির ফলে সম্পূর্ণ থমকে গেছে শহর কলকাতা। জলমগ্ন হয়ে পড়েছে উত্তর থেকে দক্ষিণ কলকাতার প্রায় সব গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা। ই এম বাইপাস থেকে পার্ক স্ট্রিট, রাসবিহারী অ্যাভিনিউ থেকে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, সাদার্ন অ্যাভিনিউ থেকে মহাত্মা গান্ধী রোড জলের তলায়। এছাড়াও জল জমেছে আমহার্স্ট স্ট্রিট, কলেজ স্ট্রিট, ঠনঠনিয়া, মুক্তারামবাবু স্ট্রিট-সহ আরও অনেক রাস্তায়। গাছ পড়েছে শহরের চার জায়গায়। এর ফলে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে শহর জুড়ে। বিপাকে পড়েছে অফিসফেরতা মানুষ। ট্রেন পরিষেবাতেও প্রভাব ফেলেছে এই বৃষ্টি। শিয়ালদহ মেন শাখায় শ্লথ গতিতে চলছে ট্রেন। বেলা আড়াইটে থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত আলিপুরে বৃষ্টি হয়েছে ৮৬ মিলিমিটার আর দমদমে হয়েছে ৭৩ মিলিমিটার। সন্ধে গড়িয়ে রাত হয়ে যাওয়ার পরেও বৃষ্টি সমানে হয়ে চলেছে।

এ দিন বৃষ্টির খবর পেয়ে বিদেশ থেকে ফোন করে কলকাতার হাল-হকিকত জানেন  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সব রকম পরিস্থিতির জন্য প্রশাসনকে তৈরি থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। শুধু কলকাতাই নয়, দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই জোর বৃষ্টি নেমেছে। বৃষ্টির ফলে নদীগুলিতে জলস্তর বেড়ে যাওয়ায় ফের জল ছাড়ছে ডিভিসি জলাধারগুলি। রাতেই দুর্গাপুর ব্যারেজ থেকে জল ছাড়া হয়েছে। ফলে ফের বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে দক্ষিণবঙ্গে।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপের ফলে আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জোর বৃষ্টি হবে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায়। সোমবার দুপুরের পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে নিম্নচাপটি বাংলাদেশ আর সংলগ্ন দক্ষিণবঙ্গের ওপর অবস্থান করছে। পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া আর দক্ষিণ ২৪ পরগণায় অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে। ভারী বৃষ্টি হবে বাকি জেলাগুলিতে। তার পরের ৪৮ ঘণ্টায় অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা না থাকলেও ভারী বৃষ্টি চলবে দক্ষিণবঙ্গের সব জেলায়। দক্ষিণের পাশাপাশি ভালো বৃষ্টি হচ্ছে উত্তরবঙ্গের চার জেলা দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার আর কোচবিহারে।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here