Connect with us

কলকাতা

ঘূর্ণিঝড় ‘উম্পুন’: কলকাতায় উপকূলরক্ষী বাহিনীর সদর দফতরে প্রস্তুতি

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় ‘উম্পুন’-এর (cyclone amphan) মোকাবিলা করতে নিজেদের পুরোপুরি প্রস্তুত রেখেছে উপকূলরক্ষী বাহিনী (coast guard)। এখনও পর্যন্ত যা খবর তা থেকে জানা যাচ্ছে, ‘উম্পুন’-এর অভিমুখ পশ্চিমবঙ্গ (West Bengal) ও ওড়িশার (Odisha) উপকূলের দিকে। সে কথা মাথায় রেখে উপকূলরক্ষী বাহিনীর উত্তর-পূর্বের সদর দফতর কলকাতায় (Kolkata) প্রস্তুতিমূলক সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন: রাজ্যে ‘উম্পুন’ মোকাবিলায় প্রস্তুতি, সাইক্লোন শেল্টারে মাস্ক, স্যানিটাইজার

উপকূলবর্তী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশার প্রশাসন এবং ওই দুই রাজ্যের মৎস্য দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছে উপকূলরক্ষী বাহিনী।

সামুদ্রিক সন্ধান ও উদ্ধার অভিযানে সমন্বয় সাধনের কাজে নোডাল এজেন্সি হল উপকূলরক্ষী বাহিনী। এ ছাড়াও সমুদ্রগামী মৎস্যজীবীদের সাহায্য করাও তাদের কাজ। আবহাওয়া ভালো হওয়া পর্যন্ত মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে বারণ করেছে উপকূলরক্ষী বাহিনী।

সমুদ্রে মাছ ধরার যে সব নৌকা এবং ডিঙি রয়েছে তাদের নিরাপদ জায়গায় ফিরে যাওয়ার জন্য বাহিনীর জাহাজ এবং বিমান থেকে অবিরাম নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়াও উপকূল অঞ্চলে নজরদারি ব্যবস্থার মাধ্যমে স্থানীয় ভাষায় অবিরাম সতর্কতামূলক বার্তা প্রচার করা হচ্ছে।

কলকাতা

উম্পুন-দুর্গতদের জন্য ডাঃ শশী পাঁজার হাতে ত্রাণ তুলে দিল হরি ঘোষ স্ট্রিট দুর্গোৎসব কমিটি

খবর অনলাইন ডেস্ক: উম্পুনে (Amphan) বিধ্বস্ত অঞ্চলের মানুষের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল হরি ঘোষ স্ট্রিট দুর্গোৎসব কমিটি (Hari Ghosh Street Durgotsav Committee) । সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড়-দুর্গতদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রী তুলে দেওয়া হল রাজ্যের মন্ত্রী ডাঃ শশী পাঁজার (Dr. Shashi Panja) হাতে।

এই ত্রাণকাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন উত্তর কলকাতার ১৭নং ওয়ার্ডের সকল দুর্গাপূজা কমিটি। তা ছাড়া কাশী বোস লেন, হরি ঘোষ স্ট্রিট, ভীম ঘোষ লেন, ভীম ঘোষ বাই লেন, কালী মিত্র লেন, শিবু বিশ্বাস লেন, জগদীশ নাথ রায় লেন, বিধান সরণি, রাম নারায়ণ ভট্টাচার্য লেন ও বিডন রো-র অধিবাসীবৃন্দ।

ওই সব এলাকার নাগরিকবৃন্দ স্বেচ্ছায় নিজেদের সাধ্যমতো বস্ত্র এবং খাদ্যসামগ্রী জোগাড় করে ও কিনে এবং তা একত্রিত  শ্যামপুকুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়িকা তথা রাজ্যের নারী ও শিশুকল্যাণ দফতরের ডাঃ শশী পাঁজার হাতে তুলে দেন।   

যে সব ত্রাণসামগ্রী মাননীয়া মন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে তা হল শাড়ি ৩০০টি, পুরুষদের পোশাক ১৫০টি, বাচ্চাদের পোশাক ১৫০টি, চিঁড়ে ৪৫ কেজি, মুড়ি ৪০০ প্যাকেট (২৫০ গ্রাম করে), গুঁড়ো দুধ ৫০০ প্যাকেট, বিস্কুট ১৪০০ প্যাকেট, কেক ৩৬৫টি, হরলিক্স ২০ প্যাকেট,  ছাতু ৩৭০ প্যাকেট (১০০ গ্রাম করে), ভাজা চিঁড়ে ৫৩ প্যাকেট, হাত ধোয়ার সাবান ৩৫০টি ও বাতাসা ২৫০ গ্রাম।

এ ছাড়াও দুর্গোৎসব কমিটি র তরফে  ভারত সেবাশ্রম সংঘকে ৫০০০ টাকা,  মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ৫০০০ টাকা এবং ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের ত্রাণ তহবিলে ৩০০০ টাকার অনুদান পাঠানো হয়েছে। এই কর্মযজ্ঞে শামিল হওয়ার জন্য সমস্ত এলাকাবাসীকে কমিটির তরফে কৃতজ্ঞতা জানানো হয়েছে।

Continue Reading

কলকাতা

দু’মাস বন্ধ থাকার পর চালু হচ্ছে কলকাতা আর হাওড়ার মধ্যে ফেরি পরিষেবা

খবর অনলাইনডেস্ক: দু’ মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকার পর সোমবার থেকেই কলকাতা আর হাওড়ার মধ্যে ফেরি পরিষেবা শুরু হচ্ছে। রাজ্য পরিবহণ নিগম ও হুগলি নদী জলপথ পরিবহণ সমবায় সমিতির তরফে চালানো হবে লঞ্চ।

সরকারি ভাবে লকডাউন (Lockdown) জারি থাকলেও সাধারণ মানুষকে বেরোতে হচ্ছে। অফিস খুলে যাচ্ছে। এ দিকে তুলনায় গণপরিবহণ কম। রাস্তায় বেরিয়ে নাকাল হচ্ছেন যাত্রীরা।

ট্রেন বা মেট্রো কবে চলবে কোনো ঠিক নেই। এই পরিস্থিতিতেই এ বার ফেরি পরিষেবা শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে কোরোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বেশ কিছু নিয়মকানুন জারি করা হচ্ছে। শারীরিক দূরত্ববিধি বজায় রাখার জন্য ভেসেলের যাত্রী ক্ষমতার ৪০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে চালানো হবে লঞ্চগুলিকে ।

পাশাপাশি লঞ্চে ওঠার ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে মাস্ক। কেউ মাস্ক না পরে থাকলে তাকে লঞ্চে উঠতে দেওয়া হবে না বলেও জানানো হয়েছে।

হাওড়া-বাগবাজার, হাওড়া-চাঁদপাল ঘাট, নাজিরগঞ্জ-মেটিয়াব্রুজ এবং নুরপুর-গাদিয়াড়ার মধ্যে ফেরি চালাচল শুরুর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। প্রতিটি রুটে এক ঘণ্টা অন্তর লঞ্চ চালানো হবে। সকাল আটটা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ভেসেল চলবে। কর্মীরা থাকবেন সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত।

Continue Reading

কলকাতা

সোমবার থেকে খুলছে নিউমার্কেট-সহ আরও ৪৫ পুরবাজার

কলকাতা: আগামী সোমবার ১ জুন থেকে খুলে যাবে নিউমার্কেট-সহ (New Market) কলকাতার আরও ৪৫টি পুরবাজার।

তবে শর্তসাপেক্ষে এই বাজারগুলি খোলা যাবে। পুরসভার নির্দেশ, বাজার খোলা থাকবে সকাল ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত। তার পরেই বাজারের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হবে।

মার্চের শেষ সপ্তাহে লকডাউন (Lockdown) শুরু হওয়ার পর থেকেই বন্ধ হয়ে যায় কলকাতা সব বাজার আর শপিং মল। বাজারগুলির অন্তর্গত নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দোকান খোলার অনুমতি দেওয়া হলেও বাকি সব দোকান বন্ধই রাখা হয়। দীর্ঘদিন দোকান বন্ধ থাকায় মাথায় হাত ওঠে ব্যবসায়ীদের।

এরই মধ্যে গত ১৮ মে একটি নির্দেশিকায় কলকাতাকে করোনার আবহে ‘এ’, ‘বি’ এবং ‘সি’ জোনে ভাগ করা হয়। ‘এ’ জোন, অর্থাৎ সংক্রমিত জোনে কোনো দোকান খোলা যাবে না। ‘বি’ অর্থাৎ বাফার জোনে একটি বাজারের মধ্যে থাকা নন-এসেনশিয়াল দোকানের ২৫ শতাংশ খোলা যাবে। আর ‘সি’, অর্থাৎ ক্লিন জোনে খোলা যাবে সব দোকান।

পুরসভা সূত্রের খবর, পুর বাজারগুলি আপাতত ‘ক্লিন জোনে’ রয়েছে বলে খবর। তবে যদি দেখা যায় বিশেষ কোনো বাজারের কাছে করোনা সংক্রমণের খবর মিলেছে, তা হলে সেই বাজার আবার বন্ধ করে দেওয়া হবে।

নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, বাজারে নিয়মিত জীবাণুনাশক ছড়াতে হবে। বড়ো দোকানে পাঁচ জন ও ছোটো দোকা‌নে দু’জনের বেশি ক্রেতাকে দাঁড়াতে দেওয়া হবে না। দোকানদার ও কর্মীদের অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। রাখতে হবে হ্যান্ড স্যানিটাইজ়ার।

এই বাজারগুলির খোলার ফলে ব্যবসায়ীরা যে কিছুটা হাঁফ ছেড়ে বাঁচবেন তা বলাই বাহুল্য।

Continue Reading

ট্রেন্ড্রিং