হীরকজয়ন্তী বর্ষে লাইব্রেরি বানিয়ে বাবুবাগান শ্রদ্ধা জানাচ্ছে বাংলার মনীষীদের

0
Babubagan Sarbojanin
বাবুবাগানের পূজামণ্ডপ। ছবি: দীপঙ্কর চক্রবর্তী

কলকাতা: হীরকজয়ন্তী বর্ষে বাবুবাগানের মণ্ডপে ঢুকলে মনে হবে আপনি একটা লাইব্রেরিতে এসে পড়েছেন। একটি লাইব্রেরিই তৈরি করা হয়েছে বাবুবাগানের মণ্ডপে। বাংলার নবজাগরণে যে সব মনীষীর অবদান সর্বাগ্রে মনে পড়ে তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই এই অভিনব থিম।

স্বাধীনতা-পূর্ব সময়ে রাজা রামমোহন রায়, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ, স্বামী বিবেকানন্দ, রবীন্দ্রনাথ, কাজী নজরুল, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশ, নেতাজি সুভাষচন্দ্র, শ্রীঅরবিন্দ, আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু, আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের মতো মনীষীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। এঁদের ঐকান্তিক লড়াইয়ের ফলেই বাংলার সমাজব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন এসেছিল। এঁদের অবদান কখনও ভোলার নয়। স্বাধীনতোত্তর কালে আমরা আরও অনেককে পেয়েছি। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রী ডা. বিধানচন্দ্র রায়।

এই সব ব্যক্তিত্বের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে তাঁদের লেখা বই আর তাঁদের সম্পর্কে লেখা বই দিয়ে বাবুবাগানের এ বারের মণ্ডপ-লাইব্রেরি সাজানো হয়েছে। শুধু ব্যক্তিত্বই নয়, যে সব সংগঠন বাংলার নবজাগরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, তাদেরও কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরে স্মরণ করা হয়েছে।

পূজাকমিটি বাদ দেয়নি বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। কমিটি মনে করে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে রাজ্যের অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে। তাই তাঁর লেখা বই এবং তাঁকে নিয়ে লেখা বইও স্থান পেয়েছে বাবুবাগানের লাইব্রেরিতে।  

বাবুবাগানের পূজামণ্ডপ। ছবি: দীপঙ্কর চক্রবর্তী।

শিল্পী সনাতন পালের গড়া মা দুর্গার মূর্তিতেও রয়েছে নতুনত্ব। আবহ সংগীত রচনা করেছেন কল্যাণ সেন বরাট। আগের বছরগুলোর মতো এ বারেও থিমের পরিকল্পনা অধ্যাপিকা সুজাতা গুপ্তের।  

করোনা পরিস্থিতিতে দর্শনার্থীদের ঠাকুর দর্শনের ব্যাপারে সরকারি নির্দেশিকা অক্ষরে অক্ষরে পালন করা হবে বলে পূজা কমিটির তরফ থেকে জানানো হয়েছে। মণ্ডপে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা রয়েছে, রয়েছে থার্মাল স্ক্রিনিং-এরও ব্যবস্থা। প্রয়োজনে দর্শনার্থীদের দু’টো ডোজ টিকার সার্টিফিকেটও দেখাতে হতে পারে। পুজোর সঙ্গে যাঁরা যুক্ত তাঁদের সকলের টিকাকরণ সম্পূর্ণ হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।

গড়িয়াহাটের দিক থেকে গেলে ঢাকুরিয়া ব্রিজ পেরিয়ে অল্প এগিয়ে বাঁ দিকে গলির ভেতর মণ্ডপ।

আরও পড়তে পারেন

দুর্গাপুজোর মণ্ডপসজ্জায় ‘রাজনৈতিক ইস্যু’, পুজো কমিটিকে আইনি নোটিশ

নোটিশ পেয়েও জুতো সরাতে নারাজ পুজো কমিটি, আইনি পথেই জবাব

অক্সিজেন প্রকল্প যে কত জরুরি সেই ভাবনাই তুলে ধরা হচ্ছে ৫৬তম বর্ষে তেলেঙ্গাবাগানের পুজোয়

পশ্চিম পুটিয়ারির পল্লি উন্নয়ন সমিতির পুজোয় এ বার ৬০০ বছরের প্রাচীন সৌরা চিত্রকলা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন