স্বামীর এবং পরিজনদের সঙ্গে নন্দিনী। নিজস্ব চিত্র

কলকাতা: ডিভোর্স পেপারে সই না করায় স্ত্রীকে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

মৃতার নাম নন্দিনী সাউ (২৩)। স্বামীর নাম সঞ্জীব সাউ। রিজেন্ট পার্ক থানা এলাকার পালপাড়ায় বাড়ি।  চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে বিয়ে হয়। বিয়ের আটদিন পর থেকেই দু’জনের মধ্যে অশান্তি শুরু হয়। পণ হিসেবে ১০ লক্ষ টাকা ও চারচাকা গাড়ি দাবি করা হয়। মৃতার বাপের বাড়ির লোকজন সাড়ে তিন লক্ষ টাকা দিলেও তাতে সন্তুষ্ট হয়নি সঞ্জীবের পরিবার।দিন দশেক আগে ডিভোর্সের পেপারে সাইন করানোর চেষ্টা করানো হয়। নন্দিনী তাতে রাজি না হওযায় তার উপর অত্যাচার শুরু হয় বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন চাঁদার জুলুমের অভিযোগ সোনারপুরের একটি ক্লাবের বিরুদ্ধে, তদন্তে পুলিশ

বৌদির সঙ্গে সঞ্জীবের অবৈধ সম্পর্ক আছে বলে অভিযোগ করত নন্দিনী। গতকাল দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ শেষ কথা হয় নন্দিনীর সঙ্গে তার পরিবারের। সন্ধেবেলা মেয়ের মা প্রভা দেবীকে ফোন করে জানানো হয় নন্দীনি ঘরের দরজা খুলছে না। বিষয়টি জানান নন্দিনীর শ্বশুর শঙ্কর সাউ। রাতে হাসপাতালে গিয়ে তারা জানতে পারেন নন্দীনি মারা গিয়েছেন। এই ঘটনায় চন্দন সাউ নন্দিনীর বাবা রিজেন্ট পার্ক থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার পর থেকেই পলাতক শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন