housewife murder
মৃত অর্পিতা। নিজস্ব চিত্র।

কলকাতা: ফের পণের কারণে গৃহবধুকে খুনের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। নৃশংস অত্যাচার চালিয়ে তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ। যদিও শ্বশুরবাড়ির দাবি আত্মহত্যা করেছেন ওই গৃহবধূ। তবে এ কথা মানতে রাজি নয় তাঁর পরিবার। অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে ইতিমধ্যেই আইনি পরামর্শ নেওয়া শুরু করেছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন ‘শহুরে নকশাল’ নয়, ভিমা-কোরেগাঁও হিংসার মূল চক্রীদের নাম জানাল কমিটি

বছর দশেক আগে বাঁকুড়ার যুবক পিন্টু আঠার সঙ্গে পরিচয় হয় অর্পিতার। প্রেম করে বিয়ে করেন তাঁরা। তাঁদের একটি সাত বছরের সন্তানও হয়। কিন্তু অভিযোগ, শ্বশুরবাড়িতে মাঝেমধ্যেই মারধর করা হত অর্পিতাকে। পণ চেয়ে মারধর করা হত বলে পরিবারের অভিযোগ। অভিযুক্ত পিন্টু সে ভাবে কিছু করত না। তবে তাদের পারিবারিক ব্যবসা আছে।

দেহে ক্ষতচিহ্ন। নিজস্ব চিত্র

অর্পিতার পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, নিয়মমাফিক মেয়ের খোঁজ নেওয়ার জন্য মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ফোন করেন। তখন পিন্টু বলে আত্মহত্যা করেছেন অর্পিতা। যদিও আত্মহত্যার কথা মানতে পারছে না অর্পিতার পরিবার। কারণ তাঁর দেহের একাধিক জায়গায় কোপানোর চিহ্ন রয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন