শুরু হল বাংলা ভাষায় স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রথম ওয়েব পত্রিকা ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’

swasthyaonline inauguration
প্রদীপ জ্বালিয়ে পোর্টালের সূচনা করছেন ডাঃ সুজিৎ চৌধুরী। তাঁকে সাহায্য করছেন ‘মিডিয়া ফাইভ’-এর অন্যতম কর্ণধার অসীম চক্রবর্তী। মঞ্চে রয়েছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক পথিক গুহ, ডাঃ সুদীপ্ত ঘোষ, ডাঃ অদ্রিজা রহমান মুখোপাধ্যায়, ডাঃ দেবকুমার রায়, বিজ্ঞানলেখক আশীষ লাহিড়ী ও ছোটন দত্তগুপ্ত। নিজস্ব চিত্র।
smita das
স্মিতা দাস

মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্যে দিয়ে উদ্বোধন হয়ে গেল মিডিয়া ফাইভের আরও একটি উদ্যোগ ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’-এর। ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’ বাংলা ভাষায় প্রথম স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েব জার্নাল। রবিবার দক্ষিণ কলকাতার ইনফিনিটি কোয়েস্ট হলে এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। অনুষ্ঠানের সার্থক রূপায়ণে সহযোগিতা করে ‘জিমাস’।

বোতাম টিপে পোর্টালটির উদ্বোধন করলেন বিশিষ্ট চিকিৎসক সুজিৎ চৌধুরী। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার বিশিষ্ট চিকিৎসকবর্গ। সম্মানিত প্রধান অতিথিদের মধ্যে ছিলেন ডাক্তার দেবকুমার রায়, ডাক্তার অদ্রিজা রহমান মুখোপাধ্যায়, চিকিৎসক সুদীপ্ত ঘোষ, বিশিষ্ট বিজ্ঞান সাংবাদিক পথিক গুহ, বিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ লেখক আশীষ লাহিড়ী। অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন করেন ইন্দ্রাণী ভৌমিক। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন ছো‌টন দত্তগুপ্ত।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত শ্রোতা-দর্শকদের একাংশ। নিজস্ব চিত্র।

প্রসঙ্গত, স্বাস্থ্য অনলাইনের আগে মিডিয়া ফাইভ খবরঅনলাইন ও তার পর ভ্রমণঅনলাইন নিয়ে এসেছে। তাদের মাসিক পাঠক সংখ্যা প্রায় ছয় লক্ষ।

অনুষ্ঠানে ডাক্তার সুজিৎ চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য সম্বন্ধে মাতৃভাষায় ওয়েব জার্নালের ক্ষেত্রে এটিই প্রথম প্রচেষ্টা। তিনি মনে করেন, এটি সাধারণ মানুষের খুবই উপকারে লাগবে। তাঁরাও কয়েক জন মিলে সমাজের কিছু কাজ করে থেকেন। সেই সংস্থার নাম ‘জিমাস’। তাঁদের মনে হয়েছে এই পদ্ধতির মাধ্যমে খবর সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে। বলেন, এখন মানুষের কাছে বই পড়ার সময় অনেক কমে গিয়েছে। কিন্তু তাঁরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইনে অনেক কিছুই জানতে পছন্দ করেন। সেই পথ ধরেই এই স্বাস্থ্যঅনলাইন ভবিষ্যতে সাধারণ মানুষের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পোর্টালে পরিণত হবে।

পড়ুন – ক্যানসারের প্রথমিক ৫টি লক্ষণ, এগুলি দীর্ঘদিন থাকলেই সচেতন হন

অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন ডাঃ অদ্রিজা রহমান মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন, তিনি অনেক দিন ধরেই চাইছিলেন স্বাস্থ্য নিয়ে বাংলায় কিছু কাজ হোক। কারণ মানুষের স্বাস্থ্য সম্পর্কে জানার ইচ্ছা অনেক, কিন্তু জানতে পারার সুযোগ কম। তাই মানুষের কাছে অনায়াসে এই বিষয়ে কিছু জরুরি তথ্য তুলে ধরার জন্য এই জাতীয় বাংলা পোর্টাল খুবই দরকার। কারণ এখন মানুষের কাছে সময় নেই যে, স্বাস্থ্য বিষয়ক যে সমস্ত বই আছে তা পড়ে তার থেকে জ্ঞান আহরণ করবে। তা ছাড়া যে কয়টি স্বাস্থ্যবিষয়ক পোর্টাল আছে তার সব ক’টিই ইংরাজিতে। ফলে কোথাও একটা সংযোগের অভাব হয়। তাই মাতৃভাষায় এই জাতীয় পোর্টাল হওয়া দরকার ছিল।

সহযোগী সংস্থা ‘জিমাস’ সম্পর্কে জানালেন চিকিৎসক সুদীপ্ত ঘোষ। তিনি এই প্রয়াসকে স্বাগত জানান ও ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’ পোর্টালটির দীর্ঘায়ু কামনা করেন। তিনি ‘জিমাস’ সম্পর্কে জানান। বলেন, আমরি হাসপাতালের কয়েক জন চিকিৎসক মিলে এই সংস্থাটির জন্ম দিয়েছেন। এটির বয়স খুব কম। কিন্তু কার্যকারিতা অনেক। তাঁদের প্রচেষ্টা, ‘এভিডেন্স বেসড্‌ হেলথকেয়ার’কে ‘অ্যাফর্ডেবল হেলথকেয়ার’-এর মধ্যে আনা। পাশাপাশি তাঁরা অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজও করে থেকেন। দুর্গতদের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থা থেকে হেপাটাইটিস বি, থেলাসেমিয়ায় আক্রান্তদের জন্য চিকিৎসা সংক্রান্ত কর্মশালা করা, দুঃস্থ ছাত্রদের পড়াশোনায় সাহায্য করা, চিকিৎসাশাস্ত্রের পড়ুয়াদের স্কলারশিপ দেওয়া থেকে শুরু করে বহু কাজ ইতিমধ্যেই করেছে ‘জিমাস’।

চিকিৎসক দেবকুমার রায় বলেন, আজকাল খবরের কাগজের গুরুত্ব অনেক কমে গিয়েছে। অনেকেই আর কাগজ পড়েন না। কিন্তু অনলাইনে সবাই খুব মন দিয়ে তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করেন। তাই ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’ এই ক্ষেত্রে একটি খুবই ভালো উদ্যোগ। এই পোর্টালের নানান রকমের স্বাস্থ্য বিষয়ক আলোচনা, বিভিন্ন হাসপাতাল, রোগ চিকিৎসক সম্পর্কে তথ্য ইত্যাদি থাকবে। পরবর্তী ধাপে এই পোর্টালটিকে আরও অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তোলারও চেষ্টা হবে বলে জানান তিনি।

আরও – ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে ৫টি আদর্শ খাবার

বিজ্ঞান-লেখক আশীষ লাহিড়ী বলেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল আজকের দিনের চল হলেও তাতে ‘মিসইনফরমেশন’ থাকে। তিনি চান, ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’ যেন সেই দোষ থেকে মুক্ত থাকে।

স্বাস্থ্যঅনলাইনকে দ্বিভাষিক করা যায় কিনা তা ভেবে দেখতে বলেন লিটল ম্যাগাজিন বিশেষজ্ঞ দেবজ্যোতি সেনশর্মা।  

মিডিয়া ফাইভের পক্ষ থেকে চিরঞ্জীব পাল পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেনটেশন দেন। তাতে তিনি ‘স্বাস্থ্যঅনলাইন’ পোর্টালটির খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ করেন। ‘মিডিয়া ফাইভ’-এর উপদেষ্টা শম্ভু সেনের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানে সমাপ্তি টানা হয়। তিনি বলেন, খুব সহজবোধ্য ভাষায় স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এই জার্নালের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে তিনি ‘মিডিয়া ফাইভ’-এর তরফ থেকে ধন্যবাদ জানান।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.