নিজস্ব প্রতিনিধি: এক দিকে ইউজিসির সপ্তম পে কমিশনের দাবিতে শিক্ষকদের কর্মবিরতি, অন্য দিকে ‘হোক ইউনিয়ন’-এর দাবিতে রাজপথে যাদবপুরের পড়ুয়ারা – এই নিয়ে সরগরম যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। কাউন্সিল নয়, ইউনিয়ন হোক, এই মর্মে আচার্য তথা রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর কাছে স্মারকলিপি দিতে যান পড়ুয়ারা। যদিও রাজভবনের অনুমতি ছাড়াই রাজভবন অভিযান কর্মসূচির ফলে আচার্যের দেখা পেলেন না পড়ুয়ারা।

বুধবার দুপুর ২টো থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেন যাদবপুরের দুই শিক্ষক সংগঠন আবুটা ও জুটার সদস্যরা। অরবিন্দ ভবনের গাড়িবারান্দায় প্রায় ২৫০ জনের বেশি শিক্ষক এই কর্মসূচিতে যোগ দেন। জুটার পার্থপ্রতিম রায় ও আবুটার গৌতম মাইতির দাবি, “ইউজিসির সপ্তম রিভিশন স্কিম কার্যকর করা ও স্ট্যাটুটরি বডিগুলিতে নির্বাচিত প্রতিনিধিত্বের সংস্থান কার্যকর করার জন্য স্ট্যাটিউটের সংশোধন, চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকদের জন্য সুনির্দিষ্ট বেতন কাঠামো এবং কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের জনবিরোধী শিক্ষানীতি বাতিল করতে হবে।”

আরও পড়ুন এ বার কলকাতা থেকেও বুলেট ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা

পাশাপাশি ইউনিয়নের দাবিতে যাদবপুরের প্রায় শ’ খানেক পড়ুয়া নন্দন থেকে রাজভবন পর্যন্ত মিছিল করে যান। মিছিল শেষে ছ’ জন প্রতিনিধি নিজেদের দাবিদাওয়া নিয়ে আচার্য তথা রাজ্যপালের কাছে স্মারকলিপি জমা দিতে গেলে বিপত্তি শুরু হয়। রাজভবন থেকে তাঁদের জানিয়ে দেওয়া হয়, বিনা অনুমতিতে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করা যাবে না। হতাশ পড়ুয়ারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাঁরা কলেজভিত্তিক ইউনিয়নের দাবিতে এ বার পদযাত্রা করবেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী আফরিন বেগম বলেন, “ইউনিয়নের দাবি আমাদের দীর্ঘদিনের। আমরা ত্রিপাক্ষিক বৈঠক চাই। এই বিষয়ে সরকারের কাছে আমরা চিঠি দিলেও তার কোনো জবাব এখনও পাইনি। তাই আমরা এ দিন রাজ্যপালের কাছে মিছিল করে গিয়েছিলাম। কিন্তু রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা হয়নি। আমরা এই দাবি নিয়ে আচার্যের সঙ্গে পরে দেখা করব।”

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here