kolkata eye proposed

ওয়েবডেস্ক: কলকাতা আই নিয়ে অবশেষে সংঘাত মিটল পুরসভা এবং রাজ্য সরকারের মধ্যে। লন্ডন আইয়ের আদলে প্রস্তাবিত এই প্রকল্পের নকশা নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে কলকাতা পুরসভার টানাপোড়েন চলছিল গত কয়েক বছর ধরেই। গঙ্গা-পার্শ্ববর্তী মিলেনিয়াম পার্কের গা-ঘেঁষে প্রস্তাবিত এই চক্রাকার ঘূর্ণায়মান টাওয়ারটি (ফেরি হুইলস)-র জন্য পর্যাপ্ত স্থান না মেলার কারণে ঠিক হয়েছিল এর উচ্চতা কমিয়ে ফেলা হবে। কিন্তু নগরোন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সাফ জানিয়ে দিলেন, লন্ডন আইয়ের উচ্চতা মাথায় রেখেই এটির উচ্চতা নির্ধারণ করা হচ্ছে ১৩৫ মিটার এবং ব্যাস ১২০ মিটার। এই কাজে সর্বোচ্চ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। নিয়োগ করা হবে অভিজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ারদের। প্রকল্পের কাজকে ত্বরান্বিত করতে আগামী ১১ ডিসেম্বর টেন্ডার ডাকার কথা ঘোষণা করেন মন্ত্রী। সমগ্র পরিকল্পনাটি পরিচালনা করবে কেএমডিএ।

অর্থাৎ কলকাতা পুরসভা এত দিন ধরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের এই প্রকল্প নিয়ে যে গড়মসি ভাব দেখাচ্ছিল, তাতে যবনিকা পড়ল বলে ধারণা করা হচ্ছে।আপাতত টাওয়ার নির্মাণের কাজ দিয়ে শুরু হলেও কয়েক মাসের মধ্যেই হুইলস সংলগ্ন এলাকায় একটি বিনোদন পার্ক নির্মাণের প্রস্তাব দিয়েছেন মমতা। সেই টেন্ডার ডাকার তোড়জোড় চলছে। পাশাপাশি নির্মাণের পর প্রকল্পের দেখভালের জন্যও পৃথক কোনো সংস্থাকে টেন্ডারের মাধ্যমে দায়িত্ব দেওয়া হবে।

কেএমডিএ এক আধিকারিক জানান, পুনর্বিবেচিত প্রকল্পটির বাস্তবায়নে আনুমানিক ব্যয় ধার্য করা হয়েছে ৪০০ কোটি টাকা। ঘূর্ণায়মান এই টাওয়ারে ৬০০-৭০০ জন দর্শক এক সঙ্গে বসে শহর দর্শন করতে পারবেন। প্রায় ৪৫ মিনিটি সময় লাগবে প্রতি ঘূর্ণনে।সম্পূর্ণ ইস্পাত নির্মিত এই টাওয়ারটি যে আগামী দিনে ‘আইকন’ হয়ে উঠবে তেমনটাই ধারণা কেএমডিএ কর্তাদের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here