Connect with us

কলকাতা

প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ই-পাস নিয়ম শিথিল করল কলকাতা মেট্রো

সকাল সাড়ে ১১টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টে পর্যন্ত ই-পাস ছাড়াই তাঁরা মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন।

Published

on

সোমবার থেকে শুরু হয়েছে মেট্রো পরিষেবা।

কলকাতা: নতুন করে পরিষেবা চালু করার দ্বিতীয় দিনেই প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ই-পাস নিয়ম শিথিল করল কলকাতা মেট্রো। জানানো হয়েছে, নির্দিষ্ট সময়ে প্রবীণ নাগরিকরা ই-পাস ছাড়াই মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন।

১৭৬ দিন পর পর গত সোমবার থেকে নতুন করে কলকাতায় শুরু হয়েছে মেট্রো পরিষেবা। নতুন নিয়মে স্টেশনে প্রবেশ এবং মেট্রোয় যাতায়াত করার জন্য ই-পাস বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু প্ৰথম দিন দেখা যায়, স্মার্ট থাকলেও অনেকের কাছে ই-পাস নেই। বিশেষ করে প্রবীণ নাগরিকরা সমস্যায় পড়ছেন বেশি করে।

প্রবীণ নাগরিকরা জানিয়েছেন, প্রথমত তাঁদের অনেকের কাছেই স্মার্টফোন নেই। আবার স্মার্টফোন থাকলেও পথদিশা অ্যাপ অথবা মেট্রোর অ্যাপ ব্যবহার করে কী ভাবে ই-পাস করাতে হয়, তা তাঁরা বুঝতে পারছেন না। ফলে ই-পাসের অভাবে তাঁরা মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারছেন না। এর পরই প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ই-পাস বিধি শিথিল করার সিদ্ধান্তের কথা জানান মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

বিধি কতটা শিথিল?

ব্যস্ত সময়ের বাইরে ই-পাস ছাড়া মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন প্রবীণ নাগরিকরা।

সকাল সাড়ে ১১টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টে পর্যন্ত ই-পাস ছাড়াই তাঁরা মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন।

তাঁরা শুধুমাত্র স্মার্টকার্ড ব্যবহার করেই মেট্রো পরিষেবা ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রবীণ নাগরিককে বয়সের প্রমাণপত্র দেখাতে হবে।

প্রমাণপত্র হিসেবে সচিত্র ভোটার পরিচয়পত্র, আধার কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স, প্যান কার্ড দেখালেই চলবে।

কোনো যাত্রীর কাছে যদি স্মার্টকার্ড না থাকে, তা হলে তিনি ই-পাস দেখিয়ে স্টেশনে প্রবেশ করে নতুন স্মার্টকার্ড করিয়ে নিতে পারেন। কিন্তু স্মার্টকার্ড রয়েছে, অথচ ই-পাস নেই, তেমন যাত্রীদের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিভিন্ন কারণে নিজেদের অক্ষমতার কথা জানিয়েছেন প্রবীণ নাগরিকরা। যে কারণে তাঁদের জন্য নিয়ম শিথিলের পথ ধরেছেন মেট্রো কর্তৃপক্ষ। তবে সাধারণ যাত্রীদের জন্য ই-পাস একই ভাবে বাধ্যতামূলক থাকছে।

ই-পাস সংগ্রহ করার জন্য স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ বা ডেস্কটপের মাধ্যমে লগইন করতে হবে https://pathadisha.com/metro, এই লিঙ্কে। সেখানে যাত্রীদের নাম, গন্তব্য, মোবাইল নম্বর, দিনের কোন সময় মেট্রো যাত্রা করতে চান তা জানিয়ে ১ ঘণ্টার জন্য স্লট বুক করতে হবে।

কলকাতা

পুজোয় বাড়ছে না ট্রেনের সময়সীমা, আদালতের রায়ের পর ঘোষণা মেট্রোর

Published

on

metro railways

খবরঅনলাইন ডেস্ক: অন্য বারের মতো এ বার পুজোয় সারা রাত মেট্রো যে চলবে না, সেটা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের (Kolkata High Court) রায়ের পর তারা জানিয়ে দিল যে মেট্রো চলাচলের বর্তমান সময়সীমাও আর বাড়ানো হবে না।

অর্থাৎ, রোজ সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্তই মেট্রো চলবে। তবে সপ্তমী থেকে দশমী, সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ট্রেন চলবে ২০ মিনিট অন্তর।

মেট্রোর এক আধিকারিক এই বিষয়ে বলেন, “করোনা পরিস্থিতিতে আমরা শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবাটুকুই দিতে চাই। কোনো ভাবেই ভিড়কে উৎসাহিত করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়।’’

পুজোয় কী ভাবে ট্রেন চালানো হবে, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বিভিন্ন মেট্রো স্টেশনের সুপারদের নিয়ে বৈঠক হয় মেট্রো ভবনে। প্রাক্-করোনা পরিস্থিতির নির্ঘণ্ট মেনে কবি সুভাষ ও দমদম থেকে যথাক্রমে রাত ৯টা ৪৫ ও ৯টা ৫৫-য় অন্তিম মেট্রো ছাড়ার কথা ভাবা হয়েছিল। তবে আপাতত সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে এসেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, করোনা-উত্তর নব্য স্বাভাবিকতা যুগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর, প্রথম বার মেট্রোর চাকা গড়ায় কলকাতায়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভালো ভাবেই পরিষেবা চলছে। কাকতালীয় ভাবে মেট্রো চলাচল শুরু হওয়ার এক সপ্তাহ পর থেকে কলকাতায় উদ্বেগজনক ভাবে বাড়তে শুরু করে কোভিড-আক্রান্তের সংখ্যা। তাতে অনেকেরই ধারণা হয় মেট্রো চলাচলের জন্যই এমনটা হয়েছে।

যদিও, বিশেষজ্ঞরা এই আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়েছেন। মেট্রো নয়, শহরের পুজোর বাজারে ভিড়ের কারণেই যে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, সে বিষয়ে সবাই নিশ্চিত।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

ওনাম নয়, কেরলে কোভিড-সংক্রমণে মাত্রাছাড়া বৃদ্ধির ‘প্রকৃত’ কারণ জানালেন পিনারাই বিজয়ন

Continue Reading

কলকাতা

‘অন্য রকম পুজো ২০২০’, যৌনকর্মীদের পাশে সৃষ্টি ড্যান্স অ্যাকাডেমি

Published

on

স্মিতা দাস

মাত্র দু’ দিন পরই দুর্গাপুজো শুরু। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে যেমন বিশ্বের সমস্ত মানুষের মধ্যে কম বেশি সমস্যা তো হয়েছেই পেশা বা রুজিরোজগারকে কেন্দ্র করে। ঠিক তেমনই ভাঁড়ারে টান পড়েছে সমাজের দুগ্‌গা মায়েদেরও। তাই তাদের পুজোকে আনন্দে ভরাতে ‘অন্য রকম পুজো ২০২০’ উদযাপন করল সৃষ্টি ড্যান্স অ্যাকাডেমি। উদ্যোগে বিশিষ্ট শিক্ষক ও নৃত্যশিল্পী ইন্দ্রাণী গঙ্গোপাধ্যায়। সৃষ্টির উদ্যোগে কালীঘাট নিউ লাইট এলাকায় মাস্ক, স্যানিটাইজার, নতুন কাপড়, খাবার বিতরণ করা হয়।

যৌনকর্মীদের এই আনন্দকে ও সৃষ্টির এই উদ্যোগকে আরও আনন্দময় করে তুলতে উপস্থিত ছিলেন নৃত্যশিল্পী অলকানন্দা রায়, অভিনেতা সোহম মজুমদার, অভিনেতা সায়নী ঘোষ, মিসেস ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল ও অভিনেতা রিচা শর্মা। অনুষ্ঠানে পরিচালনায় ছিলেন রাই চৌধুরী।

সৃষ্টি ড্যান্স অ্যাকাডেমির কর্ণধার ইন্দ্রাণী গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, সমাজের দুর্গামাদের দেবী দুর্গা হিসাবে বরণ করে নেওয়া হল এই উদ্যোগের মাধ্যমে। তাদের ও তাদের সন্তানদের হাতে উপহার তুলে দেওয়া হল। এই কোভিড পরিস্থিতির কারণে তাঁর এই চিন্তাভাবনা। সকলের উপস্থিতিতে তা সাফল্যমণ্ডিত হয়েছে।

নৃত্যশিল্পী অলকানন্দা রায় বলেন, এটা আমাদের দায়িত্ব। যত ব্যস্ততাই থাক না কেন মানুষের পাশে দাঁড়ানো সকলের কর্তব্য। বিশেষ করে সমাজের দুর্গাদের সমাজ এক প্রকার সমাজচ্যুত করে রেখেছে। কিন্তু তারাও মানুষ। তাদের ঘরের মাটি ছাড়া দেবী দুর্গার মূর্তি কিন্তু তৈরি হয় না। সেটাও আমরা মাঝে মাঝে ভুলে যাই। অর্থাৎ এর নিশ্চয়ই কোনো অর্থ আছে। তারাও যেন ভালো জীবন পায়। যেন তাদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য না করি। বিশেষ করে তাদের সন্তানরা যেন সুস্থ সুন্দর জীবন পায়।

মডেল রিচা শর্মা বলেন, পুজোর শুরু যে এত সুন্দর ভাবে হয় তা ভাবাই যায় না। তবে এমন উদ্যোগ বছরে একবার নয়। প্রতি মাসে একবার করে হওয়া উচিত। তাতে এদের উপকার হবে। তা ছাড়া যারা নিজেদের জীবনকে বদলাতে চায়, লেখাপড়া করতে চায় তাদের সেই বিষয়ে সাহায্য করতে হবে। তিনি মনে করেন, সকলে এক সঙ্গে মিলে এই বদল আনতে হবে।

অভিনেতা সোহম বলেন, এই রকম একটি উদ্যোগের অংশ হতে পেরে তিনি খুবই খুশি। এমন উদ্যোগ যেন এখানেই থেমে না যায়।

পুজোর আগে এমন ভালোবাসা এবং উপহার পেয়ে খুশি যৌনকর্মীরা।

পড়ুন – বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়িতে সন্ধিপূজার সময় পুরুষ সদস্যরা নৈবেদ্য সাজান

Continue Reading

কলকাতা

বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়িতে সন্ধিপূজার সময় পুরুষ সদস্যরা নৈবেদ্য সাজান

এই পরিবারের ব্যবসা ছিল বন্দুকের, তাই উত্তর কলকাতার এই ঐতিহ্যমণ্ডিত বনেদিবাড়িকে অনেকেই ‘বন্দুকওয়ালা বাড়ি’ বলেই চেনেন।

Published

on

মায়ের মুখ। বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়িতে।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

শুরু হয়ে গিয়েছে বাঙালির প্রাণের উৎসব শারদীয়া, যার জন্য সারা বছর অপেক্ষা করে বসে থাকা। এ বছর করোনা মহামারির ভয়ংকর পরিস্থিততে মানুষ কিছুটা ভীত হলেও পুজোর সবটুকু আনন্দ উপভোগ করতে তারা তৈরি। মণ্ডপে মণ্ডপে উমা আসতে শুরু করেছেন।

ও দিকে বনেদিবাড়ির ঠাকুরদালান সাজানোর কাজও একেবারে শেষের দিকে। সে সব বাড়ির পরম্পরাগত রীতিপালন শুরু হয়ে গিয়েছে, যা বঙ্গের সংস্কৃতিকে আরও গৌরবান্বিত করে। তেমনই এক পরিচিত বনেদিবাড়ি রয়েছে কলকাতায়, যেখানে লোকশ্রুতি বলে স্বয়ং উমা গহনা পরতে আসেন। জোড়াসাঁকোর দাঁ বাড়ির ঐতিহ্য এবং বনেদিয়ানা আজও পুরো মাত্রায় পাওয়া যায় ঠাকুরদালানে দাঁড়ালে।

বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়ির দুর্গাপ্রতিমা।

এই পরিবারের ব্যবসা ছিল বন্দুকের, তাই উত্তর কলকাতার এই ঐতিহ্যমণ্ডিত বনেদিবাড়িকে অনেকেই ‘বন্দুকওয়ালা বাড়ি’ বলেই চেনেন। আনুমানিক অষ্টাদশ শতকে এই অঞ্চলে বসবাস শুরু করেন ঠাকুর, মল্লিক এবং দাঁ পরিবার। গণেশ টকিজ মোড় থেকে কিছুটা দূরে গেলেই আপনি দেখতে পাবেন সেই ঐতিহ্যপূর্ণ বাড়িটি, যার স্থাপত্য সকলের নজর কাড়ে।

বাঁকুড়ার কোতলপুর থেকে এসেছিলেন দাঁ বাড়ির পূর্বপুরুষ। দাঁ পরিবারের সুসন্তান নরসিংহ দাঁ ১৮৩৫ সাল নাগাদ বন্দুকের ব্যাবসা শুরু করেছিলেন। এই বন্দুকের ব্যাবসায় তিনি প্রভূত সম্পত্তির মালিক হয়ে ওঠেন এবং ১৮৫৯ সালে শুরু করেন দুর্গোৎসব। এই বাড়ির প্রতিমা একচালার ডাকের সাজের এবং সঙ্গে থাকে বিভিন্ন রকমের প্রাচীন গহনা। দাঁ বাড়ির দুর্গাপুজো শুরু হয় রাসযাত্রার দিন কাঠামোপুজোর মাধ্যমে। তার পর মৃন্ময়ী প্রতিমার নির্মাণ শুরু হয় ঠাকুরদালানেই।

এই বাড়িতে সম্পূর্ণ বৈষ্ণবমতে পুজো হয়, তাই বলিদানের প্রথা নেই। দাঁ বাড়ির পুজোর বোধন হয় ষষ্ঠীর দিন এবং এই বাড়িতে অন্নভোগের প্রচলন নেই। এখানে দেবীকে নানান রকমের মিষ্টান্ন (গজা, পানতুয়া, মিহিদানা ইত্যাদি) ও লুচিভোগ নিবেদন করা হয়। দুর্গাপুজোয় সন্ধিপুজোর সময় দেবীকে নিবেদন করা হয় এক মণ চালের নৈবেদ্য, যা বাড়ির পুরুষ সদস্যরা সাজান এবং সন্ধিপূজা শুরুর আগে গোটা বাড়ি পরিষ্কার করেন পরিবারের সদস্যরা।

সন্ধিপুজোয় নৈবেদ্য।

সপ্তমীর দিন রুপোর ছাতা মাথায় দিয়ে নবপত্রিকা গঙ্গাস্নানে যায় এবং মহানবমীর দিন হয় কুমারীপুজো। অতীতে এই বাড়িতে পুজোর সময় নরনারায়ণ সেবার আয়োজন করা হত। এখন তা আর হয় না। দাঁ পরিবারের পুজোর আরও একটি  বৈশিষ্ট্য হল, সন্ধিপূজার সময় গর্জে ওঠে কামান। প্রায় ১৭ ইঞ্চি লম্বা কামানটি তৈরি করেছিল ‘উইনচেস্টার রিপিটিং আর্মস কোম্পানি’।

শুধু সন্ধিপুজোতেই নয়, দশমীর দিন বাড়ি থেকে যখন প্রতিমা বের হয় তখনও বন্দুক দাগা হয়। দশমীর দিন কনকাঞ্জলিপ্রথা রয়েছে পরিবারে, উমা শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছেন তাই দাঁ বাড়ির সদস্যরা অশ্রুজলে বাড়ির মেয়েকে বিদায় জানান। দশমীর দিন অতীতে নীলকণ্ঠ পাখি ওড়ানো হলেও বর্তমানে তা হয় না।

দাঁ পরিবারের মহিলা সদস্যরা।

তবে পরিবার সূত্রে জানা গেল যে, এই বছর করোনা ভাইরাসের কারণে পুজোটি কেবলমাত্র পরিবারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। প্রতিমার উচ্চতাও কমানো হয়েছে এ বার। এই ভাবে ঐতিহ্যের সঙ্গে আজও পুজো করে আসছেন বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়ির সদস্যরা।

খবর অনলাইনে আরও পড়ুন

দর্জিপাড়া দাঁ বাড়িতে দশমীতে দেবীকে বরণ করেন পুরোহিতমশাই

Continue Reading

Amazon

Advertisement
দেশ2 hours ago

বিহারে গোরক্ষপুর-কলকাতা পুজো স্পেশাল ট্রেনের দু’টি কামরা বেলাইন, অল্পের জন্য রক্ষা

দুর্গা পার্বণ2 hours ago

দুর্গোৎসব বাংলাদেশে: করোনা কেড়ে নিয়েছে বরদেশ্বরী কালীমন্দিরের দুর্গাপুজোর উৎসব

রাজ্য2 hours ago

জেপি নাড্ডাকে একহাত নিলেন অধীররঞ্জন চৌধুরী

coronavirus west bengal
রাজ্য2 hours ago

এই প্রথম রাজ্যে এক দিনে আক্রান্ত ৪ হাজার, বাড়ছে সুস্থতাও

দেশ4 hours ago

প্রত্যেক দেশবাসীর কাছে টিকা পৌঁছানোর জন্য চেষ্টা চলছে: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রাজ্য5 hours ago

ডাক্তারি পড়তে আগ্রহীদের জন্য সুখবর দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

দেশ6 hours ago

আজ থেকে ৩৯২টি উৎসব স্পেশাল ট্রেন, দেখে নিন পূর্ণাঙ্গ তালিকা

দেশ6 hours ago

‘বালিয়া গুলিচালনা’য় অভিযুক্তকে সমর্থনের জন্য বিজেপির শোকজ নোটিশ বিধায়ককে

দেশ12 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৪৬৭৯০, সুস্থ ৬৬৩৯৯

দেশ7 hours ago

কোভিড মহামারিতে বিহার ভোটে খরচের ঊর্ধ্বসীমা বাড়ল ১০ শতাংশ

দেশ6 hours ago

আজ থেকে ৩৯২টি উৎসব স্পেশাল ট্রেন, দেখে নিন পূর্ণাঙ্গ তালিকা

ক্রিকেট2 days ago

লাইভ সাক্ষাৎকারে নিজের বাতকর্মের আওয়াজ রেকর্ডিং করে শোনালেন ডেভিড ওয়ার্নার!

ক্রিকেট3 days ago

শিখর ধাওয়ানের শতরানে চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে নাটকীয় জয় দিল্লির

দেশ2 days ago

আসন্ন শীতে করোনা সংক্রমণের ‘দ্বিতীয় ঢেউ’-এর সম্ভাবনা অস্বীকার করছেন না বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রধান

কলকাতা2 days ago

বন্দুকওয়ালা দাঁ বাড়িতে সন্ধিপূজার সময় পুরুষ সদস্যরা নৈবেদ্য সাজান

durga
রাজ্য1 day ago

রাজ্যের সব পুজো প্যান্ডেল ‘নো এন্ট্রি জোন’, ঐতিহাসিক রায় কলকাতা হাইকোর্টের

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 weeks ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 weeks ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা3 weeks ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা3 weeks ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

কেনাকাটা3 weeks ago

পছন্দসই নতুন ধরনের গয়নার কালেকশন, দাম ১৪৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজোর সময় পোশাকের সঙ্গে মানানসই গয়না পরতে কার না মন চায়। তার জন্য নতুন গয়না কেনার...

কেনাকাটা4 weeks ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা4 weeks ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা4 weeks ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 month ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

নজরে