কলকাতা: বৃহস্পতিবার শহিদ মিনারের নীচে এসএলএসটি চাকরিপ্রার্থীদের ধর্না মঞ্চে ধুন্ধুমার! বলপ্রয়োগ করে আন্দোলনকারীদের তুলতে গেলে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক ধস্তাধস্তি বাঁধে। তবে টেনেহিঁচড়ে আন্দোলনকারীদের তুলে নিয়ে যেতে দেখা যায় পুলিশকে।

শহিদ মিনারের নীচে ধর্নায় বসেছিলেন এসএসসির শারীরশিক্ষা এবং কর্মশিক্ষা বিভাগের চাকরিপ্রার্থীরা। ৭০ দিন ধরে দিনরাত এখানেই পড়ে রয়েছেন তাঁরা। শহিদ মিনারের সামনে থেকে বিক্ষোভ অবস্থান তুলে নেওয়ার জন্য মাইকিং করে পুলিশ।

পুলিশের নির্দেশিকায় বলা হয়েছিল, সারা দিন ধরে অনশন মঞ্চে বসে থাকা যাবে না। বিকেল ৫টার মধ্যে ধর্না তুলে নিতে হবে। আন্দোলনস্থলে ৩০ জনের বেশি থাকা যাবে না। কিন্তু নিজেদের অবস্থানে অনড় ছিলেন আন্দোলনকারীরা।

পুলিশের তরফে অবশ্য দাবি করা হয়েছে, নির্দিষ্ট কিছু শর্ত মেনে আন্দোলন চালানোর অনুমতি দিয়েছিল আদালত। কিন্তু সেই সব শর্ত মানেননি আন্দোলনকারীরা।

এরই মধ্যে প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে আশংকাও রয়েছে। খোলা আকাশের নীচে এ ভাবে আন্দোলনকারীদের থাকতে দিলে ঝুঁকি বাড়তে পারে। সে সব বিষয় মাথায় রেখেই আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর এখনও চাকরির নিয়োগপত্র পাননি। নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে শিক্ষক হিসেবে যোগ্যতা প্রমাণের পরও নিয়োগ হয়নি ২৫০০ প্রার্থীর। ফলে দ্রুত নিয়োগের দাবিতে একাধিকবার পথে নেমেছেন এসএলএসটি প্রার্থী।

এসএসসি চাকরি প্রার্থীদের কথায়, যদি আন্দোলন উঠিয়ে দিতেই হয় তবে কাউন্সিলিং শুরু হোক। তা হলেই আন্দোলনস্থল ছেড়ে দেবেন তাঁরা। তাই থানা থেকে ফের অনশন মঞ্চে যাবেন বলেই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।

আরও পড়তে পারেন:

আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ২০২২: অ্যাক্টিভিটি চ্যালেঞ্জ আসছে অ্যাপল ওয়াচ

আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ২০২২: কেন যোগের প্রয়োজন, ব্যাখ্যা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

শরীর ফিট রাখবেন কীভাবে? মেনে চলুন এই ৩ টি টিপস

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন