বেহালা জোড়া খুনে নয়া মোড়! উদ্ধার মোবাইল ফোন, বাজেয়াপ্ত ব্যাগ

0

কলকাতা: বেহালার পর্ণশ্রীতে মা ও ছেলের জোড়া খুনকাণ্ডে নতুন মোড়! উদ্ধার হল সেই মোবাইল ফোন। জানা গিয়েছে, গোপাল মিশ্র রোড থেকে ওই মোবাইল ফোনটি উদ্ধার হয়েছে।

গত ৬ আগস্ট একটি আবাসনের বাসিন্দা সুস্মিতা মণ্ডল (৪৫) এবং তাঁর ছেলে তমোজিৎ মণ্ডল (১৪)-কে নৃশংস ভাবে খুন করা হয়। জানা যায়, ঘটনার সময় অনলাইনে ক্লাস করছিল তমোজিৎ। এই ঘটনার তদন্তে নেমে সুস্মিতার দুই মাসতুতো ভাই সন্দীপ এবং সঞ্জয় দাসকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তবে মোবাইল ফোনটি এত দিন অধরা ছিল পুলিশের।

লালবাজার সূত্রে খবর, ধৃতদের জেরা করে পর্ণশ্রীর আবাসনের কাছেই সুস্মিতার মোবাইল উদ্ধার করে পুলিশ। দুই অভিযুক্তের বাইক, হেলমেট করা হয়েছে। এমনকী খুনের সময় তাদের কাছে থাকা ব্যাগও বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। সেগুলিতে রক্তের দাগ রয়েছে কি না, তা পরীক্ষার জন্য ফরেন্সিক ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশের মতে, ধৃতরা অপেশাদারি খুনি হলেও যে ধরনের কৌশল তারা নিয়েছিল, তাতে পেশাদারি মনোভাব ছিল। ঘটনার সময় অনলাইনে ক্লাস করছিল সুস্মিতার ছেলে। যে মোবাইল ফোনে সে ক্লাস করছিল, খুনের পর সেটাকেও সঙ্গে নিয়ে যায় ধৃতরা। রাস্তায় বেরনোর পর তারা ভাবে, মোবাইল ফোন নিয়ে গেলে, পরবর্তীতে পুলিশ তাদের হদিশ পেয়ে যেতে পারে। যে কারণে তারা গোপাল মিশ্র রোডের একটি জায়গায় তারা ফোনটি লুকিয়ে রেখে দেয়।

Shyamsundar

পুলিশের তরফে আগেই দাবি করা হয়, ধৃত দুই সন্দীপ এবং সঞ্জয় মহেশতলা থানার অন্তর্গত ঘোষপাড়া শ্যামপুরের বাসিন্দা। আর্থিক অনটনে ভুগছিল তারা। ঋণের বোঝাও ছিল মাথার উপর। টাকার জন্যই তারা পরিকল্পনা মাফিক দিদিকে খুন করে। আর সেই দৃশ্য দেখে ফেলে তমোজিৎ। প্রমাণ লোপাট করতে তাকেও খুন করে ধৃতরা। পুলিশি জেরায় এ কথা স্বীকারও করে নেয় তারা।

ঘটনায় প্রকাশ, দিদির গয়নার উপর লোভ ছিল দু’ভাইয়ের। না পেয়েই লুট করতে গিয়ে নৃশংস খুন। আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ধৃতদের পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

আরও পড়তে পারেন: 

দিদির গয়নার উপর ছিল নজর! বেহালা জোড়া খুনের জট খুলল পুলিশ

বেহালায় জোড়া খুনের কারণ ঘিরে ধোঁয়াশা, খুলছে না একাধিক জট

বেহালার পর্ণশ্রীতে মা ও ছেলের নৃশংস খুনের ঘটনায় গৃহশিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন