কলকাতা: গত ১ সেপ্টেম্বর উল্টোডাঙার ম্যানহোল থেকে উদ্ধার করা শিশুকন্যার মৃত্যু তদন্তে নাটকীয় মোড়। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শিশুটিকে খুন করেছিলেন তাঁর মা। সম্ভবত পরকীয়া প্রেমের চূড়ান্ত পরণতি দিতেই শিশুটিকে সরিয়ে দেওয়ার ছক কষেছিলেন ওই মহিলা।

জানা গিয়েছে, শিশুটির মা পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল এক ১৭ বছরের নাবালকের সঙ্গে। মাঝখান থেকে তিনি অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়েন। ফলে পিছনের অতীতকে যত দ্রুত সম্ভব ঝেড়ে ফেলে নতুন সংসার পাতার চিন্তা কাজ করেছিল তাঁর মাথায়। যার ফলশ্রুতিতে নির্মম বলি হতে হল ওই একরত্তি শিশুকে।

পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় জড়িত থাকার সূত্র ধরেই ওই মহিলা ও তাঁর নাবালক প্রেমিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। দু’জনকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আদালতে তোলা হলে তাঁদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানানো হবে।

উল্লেখ্য, দেশবন্ধু পার্ক লাগোয়া শ্যামলাল স্ট্রিটের ওই ফুটপাথবাসী শিশুকন্যাটি চার-পাঁচ দিন ধরে নিখোঁজ ছিল। ১ সেপ্টেম্বর ম্যানহোল থেকে দুর্গন্ধ বের হতে স্থানীয় মানুষের সন্দেহ হয়। কোথা থেকে ওই দুর্গন্ধ আসছে তার খোঁজ চালাতে গিয়েই নজরে পড়ে ওই ম্যানহোলটি। দেখা যায়, ম্যানহোলে পড়ে রয়েছে ওই শিশুর মৃতদেহ। তৎক্ষণাৎ খরব যায় উল্টোডাঙা থানায়। পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠালে জানা যায়, তাকে গলা টিপে খুন করে ওই ম্যানহোলে ফেলে দেওয়া হয়েছে।


আরও পড়ুন: শ্যামবাজারে ম্যানহোল থেকে উদ্ধার মৃত শিশুকন্যার দেহ

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন