cm's press conference at nabanna
ফাইল ছবি।

কলকাতা: গত ৪ সেপ্টেম্বর দিনের ব্যস্ত সময়ে ভেঙে পড়েছিল মাঝেরহাট সেতুর একাংশ। মৃত্যু হয় ৩ জনের, আহত প্রায় ২৫। সেই দুর্ঘটনার পর রাজ্য সরকার, পূর্ত দফতর এবং মেট্রো রেলের মধ্যে চলেছে পারস্পরিক দোষারোপের পালা। উঠেছে রাজনৈতিক সমালোচনার ঝড়ও। তবে শুক্রবার রাজ্য প্রশাসনের সদর দফতর নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুর্ঘটনার নেপথ্যে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষের উপর দায় চাপিয়েও রাজ্যের পূর্ত দফতরের গাফিলতির কথাও স্বীকার করে নিয়ে নতুন সেতু নির্মাণের কথা ঘোষণা করলেন।

এ দিন মমতা বলেন, ওখানে দীর্ঘ দিন ধরে মেট‌্রোর কাজ চলছে। ভাইব্রেটর মেশিনের কম্পনে সেতুর কাঠামোয় আঘাত লেগেছে। পাশাপাশি তিনি বলেন, পূর্ত দফতরেরও গাফিলতি ছিল। এ নিয়ে বিশদ তথ্য তাদের হাতে থাকলেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

মমতা জানান, সেতুর অবশিষ্ট অংশকেও যত দ্রুত সম্ভব ভেঙে ফেলা হবে। ওই জায়গাতেই শুরু হবে নতুন সেতু নির্মাণের কাজ। এই কাজ আগামী এক বছরের মধ্যেই হবে।


আরও পড়ুন: মহানগরের ৭টি সেতুকে সব থেকে অসুরক্ষিত হিসাবে চিহ্নিত করল পূর্ত দফতর

উল্লেখ্য, রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ভাঙা সেতুর নীচ দিয়ে একটি রাস্তা তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সেতুর নীচে একদিকে রয়েছে রেল লাইন। অন্য দিকে একটি খাল। ওই খালের উপর কালভার্ট তৈরি করে রেল লাইনে লেভেল ক্রশিং স্থাপনের মাধ্যমেই নতুন রাস্তাটি তৈরির পরিকল্পনা নেয় পূর্ত দফতর। কিন্তু রাস্তার মুখে পড়ছে একটি বাড়ি। ফলে সেই বাড়ির সামনের অংশটি না ভাঙলে রাস্তাটি সরু হয়ে যাবে।

যদিও নতুন সেতু তৈরি হলে সে রকম কোনো সমস্যা থাকছে না। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন রাজ্যের মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে ওই নতুন সেতু নির্মাণ করা হবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন