কলকাতা: সার্ধশতবর্ষ উদ্‌যাপনের মঞ্চ থেকেই কলকাতা বন্দরের নতুন নাম ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এত দিন বন্দরটি কলকাতা পোর্ট ট্রাস্ট নামে পরিচিত ছিল।

রবিবারের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু নির্ধারিত সময় পার হয়ে গেলেও সেখানে উপস্থিত হননি মমতা। নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে বন্দর কর্তৃপক্ষের অনুষ্ঠানে উপস্থিত মোদীর উদ্দেশে বিক্ষোভ দেখান বাম-কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকেরা।

মোদী এ দিন ঘোষণা করেন, কলকাতার পোর্ট ট্রাস্টের নতুন নাম হবে ড. শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় পোর্ট। তিনি বলেন, “শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় দেশে শিল্পায়নের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। একাধিক শিল্পক্ষেত্রে উন্নয়নে তাঁর ভূমিকা ছিল উল্লেখ্যনীয়। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি এবং বাবাসাহেব আম্বেদকর স্বাধীনতার পরে ভারতের জন্য নতুন নীতি, পরিকল্পনা করেছিলেন”।

শ্যামাপ্রসাদের নামে কলকাতা বন্দরের নামকরণ নিয়ো যৌক্তিকতা হিসাবে তিনি বলেন, “বাংলার সুপুত্র শ্যামাপ্রসাদ দেশে বিনিয়োগের সূচনা করেছিলেন। চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ কারখানা, হিন্দুস্তান এয়ারক্র্যাফট ফ্যাক্টরি এবং ডিভিসির মতো অনেক প্রকল্পে শ্যামাপ্রসাদের বড়োসড়ো যোগদান ছিল। ড. শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বাংলার শিল্পোদ্যোগের পথিকৃৎ। বাংলার এই সুপুত্রকে উপযুক্ত সম্মান দিতে আজ থেকে কলকাতা বন্দরের নাম আমি শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বন্দর রাখলাম”।

[ আরও পড়ুন: নাগরিক-সংঘাতের আবহে রাজভবনে মোদী-মমতা বৈঠক ]

একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী এ দিন ঘোষণা করেন, ২০২১ সালের মধ্যেই গঙ্গায় জাহাজ চলাচল করবে। যে কারণে এখন থেকেই গঙ্গার নাব্যতাবৃদ্ধির কাজ চলছে। তাঁর সরকার ক্ষমতায় আসার পরেই জলপথ পরিবহণে বাড়তি গুরুত্ব দিয়েছে। সাগরমালা প্রকল্পে নতুন নতুন বন্দর নির্মাণ এবং পুরনো বন্দরের আধুনিকীকরণের কাজ চলছে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন