কলকাতা: বৃহস্পতিবার টালা ব্রিজ উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রায় তিন বছর পর নতুন রূপে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে উত্তর কলকাতার এই গুরুত্বপূর্ণ সেতু।

সূত্রের খবর, উদ্বোধনের পর থেকেই যানবাহন চলাচল করবে এই সেতু দিয়ে। তবে ৮-১০ টনের বেশি ওজনের গাড়ি আপাতত চলবে না। ২৯ সেপ্টেম্বরের পর থেকে এই বিধিনিষেধ প্রায় উঠে যাবে। এই সেতু চালু হলে উত্তর কলকাতা ও শহরতলির বাসিন্দাদের তিন বছরের ভোগান্তির ইতি ঘটবে। নতুন টালা ব্রিজ তৈরি করতে ৪৬৮ কোটি টাকা খরচ করেছে রাজ্য সরকার।

কী কারণে ভাঙা হয়েছিল টালা ব্রিজ

২০১৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর মাঝেরহাট সেতু বিপর্যয়ের পর রাজ্যের সব সেতুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা শুরু করার কাজে হাত দেয় রাজ্য সরকার। ২০১৯ সালে দুর্গাপুজোর ঠিক আগে সরকারি সংস্থা রাইটস স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে জানায়, টালা ব্রিজের হাল খারাপ। সেতুটি অনেক পুরনো হয়ে গিয়েছে। সেতুর গায়ে একাধিক জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। এটি ভেঙে ফেলা দরকার। বিশিষ্ট ব্রিজ বিশেষজ্ঞ ভিকে রায়নাও একই সুপারিশ করেন। তাই পুজোর আগে এই ব্রিজ দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ব্রিজ ভাঙার কাজ শুরু হয় ২০২০ ফেব্রুয়ারি মাসে।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার টার্গেট থাকলেও করোনার জন্য অনেক কাজ পিছিয়ে যায়। প্রায় ৮০০ মিটার লম্বা নতুন টালা রেলওভার ব্রিজের ২৪০ মিটার পুরোপুরি রেলপথের উপরে রয়েছে।এই অংশে কোনও স্তম্ভ বা পিলার নেই। ১৯৬২ সালে উত্তর কলকাতা ও শহরতলীর মধ্যে সংযোগ রক্ষাকারী টালা ব্রিজের উদ্বোধন হয়। আর ক’দিন বাদেই নতুন ভাবে তৈরি টালা ব্রিজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে।

পুজো নয়, মহালয়ার আগেই

টালা ব্রিজ ভেঙে ফেলার কাজ শুরু হওয়ার পর বিপাকে পড়েন উত্তর কলকাতা ও শহরতলির মানুষ। এখন সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ থেকে কাশীপুরের লকগেট ব্রিজ দিয়ে ডানলপের দিকে গাড়ি চলছে। আবার সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ থেকে শ্যামবাজার, আরজি কর রোড হয়ে পাইকপাড়া পর্যন্তও একটি বিকল্প রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। 

পুজোর আগেই নতুন টালা ব্রিজ খুলে দিতে চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু আশংকা ছিল, যদি ভারী বৃষ্টি হয়, সে ক্ষেত্রে সেতুর উপর ম্যাস্টিক অ্যাসফল্ট রাস্তা ও বিটুমিন ধুয়ে যাবে। ফলে কাজ সময় শেষ করা যাবে না। কিন্তু শেষপর্যন্ত তেমনটা হল না। পুজো নয়, মহালয়ার আগেই খুলে যাচ্ছে টালা ব্রিজ।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন