kalighat

কলকাতা: কালীঘাটের নিখোঁজ ছাত্রীর রহস্য মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত দু’জনকে আজ আলিপুর আদালতে তোলা হয়। আদালত অভিযুক্ত বিবেক ও গুরদীপকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়ার আবেদন মঞ্জুর করে।

গতকাল জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের থানায় ডাকা হয়। দীর্ঘ সময় জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। আজ পুলিশ আদালতে জানায়, অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিজেদের হেফাজতে নিতে চায়।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, এই দু’জনের সঙ্গেই সম্পর্ক ছিল সুস্মিতার। স্বাবাবিক ভাবেই সম্পর্কের টানাপোড়ন শুরু হয়। দু’জনেই ঘাটশিলা থেকে এখানে এসেছিল সুস্মিতার সঙ্গে দেখা করতে। রাতে তারা মেসের সামনেও এসেছিল বলে সহ-আবাসিকদের সূত্রে জানা গিয়েছে। মেস ছাড়ার আগে টেলিফোনে কারোর সঙ্গে কথা হয় সুস্মিতার। কান্নাকাটিও করছিলেন তিনি। তবে কার সঙ্গে সে কথা বলছিলেন, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এই ঘটনায় সুস্মিতার সহ-আবাসিক ও বাড়িওয়ালাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।

পরিবার সুত্রে খবর, বিবেকের সঙ্গে প্রায় একবছর আগেই আলাপ হয় সুস্মিতার। তাঁরা একটি প্রাইভেট স্কুলে কাজ করতেন। সেই সূত্রে আলাপ। গুরদীপের সঙ্গে নভেম্বর মাসে ফেসবুকের মাধ্যমে আলাপ হয় বলে জানা গিয়েছে। দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এই দু’জনের নামেই গতকাল কালীঘাট থানায় খুনের অভিযোগের মামলা রুজু করে পরিবার।

তিনজনের মধ্যে প্রকৃত সম্পর্ক কী ছিল? ঘটনার মোটিভ ও পুনর্নির্মাণ এই তিন কারণে রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। ফৌজদারি ধারার ৩৬৫ ও ১২০ বি ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। দু’জনই ২৮ তারিখ পর্যন্ত  পুলিশই হেফাজত থাকবে। ঘটনার তদন্তে আজই ঘাটশিলা যাবে পুলিশ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here