hawkers eviction
ছবি: ইউটিউব থেকে

কলকাতা: আগামী শনিবার সল্টলেক সেক্টর ফাইভে শুরু হতে চলেছে হকার উচ্ছেদ অভিযান। প্রশাসনের তরফে  পুর ও নগরোন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম আগেই বলেছেন, “বৈধ হকারদের পুনর্বাসনের বন্দোবস্ত করবে সরকার”। কিন্তু ওই এলাকায় ব্যবসা করা ৮০ শতাংশের উপর অস্থায়ী দোকানের নেই কোনো সরকারি বৈধতা। স্বাভাবিক ভাবেই এই হকার উচ্ছেদ কর্মসূচিকে ঘিরে চলছে বিক্ষোভ-আন্দোলন। শুক্রবার সারা দিন বন্‌ধ পালন করার পর বিকালে মিছিলে অংশ নেন ওই এলাকার হকাররা। মাঝখান থেকে খাবার না পেয়ে বিপাকে পড়েন এখানে কাজ করতে আসা প্রায় দেড় লক্ষ কর্মী।

অসমর্থিত সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, সল্টলেক সেক্টর ফাইভে অস্থায়ী দোকান রয়েছে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার। এর মধ্যে মাত্র সাড়ে সাতশোর মতো দোকানের সরকারি বৈধতা রয়েছে। ফলে এই বিপুল সংখ্যক দোকান ভাঙা পড়বে বহু মানুষকে হারাতে হবে রুজি-রুটির উৎস। সে ক্ষেত্রে সরকারি ভাবে দায় নেওয়ার কথা এখনও পর্যন্ত জানানো হয়নি। উল্টো দিকে স্থানীয় প্রশাসনের তরফে জানা গিয়েছে, এক ব্যক্তি একাধিক দোকান করে ব্যবসা করছেন। যার ফলে স্বাভাবিক যান চলাচল ব্যহত হচ্ছে। সে কারণেই যে সমস্ত রাস্তাগুলি দিয়ে বাস-সহ বড়ো যানবাহন চলাচল করে সেখানকারই অস্থায়ী দোকানগুলি ভাঙার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

পড়তে পারেন: পচা ইলিশ বিক্রি হচ্ছে, সরাসরি মানিকতলা বাজারে হাজির ক্রেতা সুরক্ষা মন্ত্রী

স্থানীয় হকারদের দাবি, সরকারি ভাবে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে তার পরেই দোকান ভাঙা হোক। পুনর্বাসনের ঘোষণা এবং তালিকা প্রকাশ না করা হলে তাঁরা কিছুতেই উচ্ছেদ চালাতে দেবেন না।

এখন দেখার এই চরম হকার বিক্ষোভের মাঝে আগামী শনিবার নিউটাউন কলকাতা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি কী পদক্ষেপ নেয়?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here