ব্রিটেন, হিডকোর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে তিন কোভিডযোদ্ধাকে সম্মান জানাল গো-জিরো মবিলিটি

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: কলকাতায় ব্রিটিশ ডেপুটি হাই-কমিশন, ওয়েস্ট বেঙ্গল হাউজিং ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন লিমিটেড (WBHIDCO) এবং ব্রিটেনের গো-জিরো মবিলিটি (GoZero Mobility UK) একত্রিত হয়ে অতিমারি চলাকালীন তিন কোভিডযোদ্ধার (COVID Warriors) নিরলস প্ররিশ্রমের স্বীকৃতি দিল।

মঙ্গলবার নিউটাউনের ইকো পার্কে একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তাঁদের হাতে স্বচ্ছ ও দূষণহীন পরিবহণের সরঞ্জাম তুলে দিয়ে সম্মানিত করা হয়।

ব্রিটিশ সরকার চলতি বছরের নভেম্বর মাসে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত রাষ্ট্রসঙ্ঘের গঠনমূলক সম্মলেন ‘সিওপি২৬’ (COP26) আয়োজন করবে। এই “জলবায়ু সম্মেলন”-এর মূল অগ্রাধিকার হল কার্বনশূন্য পরিবহণ। এটি শক্তি সুরক্ষা সরবরাহ করবে এবং পরিবহণ ক্ষেত্রে বায়ুদূষণ এবং নির্গমন উভয়ই হ্রাস করবে। সিওপি২৬-এর প্রচারে ব্রিটিশ সরকার শহর, ব্যবসা-বাণিজ্য, গবেষণা সংস্থা, সৃজনশীল সংস্থা এবং অন্যান্যদের সঙ্গে নিয়ে বৈদ্যুতিন গতিশীলতা বাড়িয়ে তুলতে এবং নতুনত্ব প্রদর্শনের লক্ষ্যে কাজ করছে।

ব্রিটেন এবং পশ্চিমবঙ্গ সরকার জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় একটি যৌথ শক্তি হিসাবে কাজ করছে এবং এ জাতীয় বিভিন্ন সহযোগিতামূলক উদ্যোগের মধ্যে এটি একটি অন্যতম উদ্যোগ।

গো-জিরো মবিলিটি একটি ব্রিটিশ সংস্থা। বৈদ্যুতিন সাইকেল প্রস্তুতকারক সংস্থাটির সদর দফতর বার্মিংহামে। কলকাতাকে কেন্দ্র করে দেশের ৬০টির বেশি শহরে উপস্থিতি রয়েছে তাদের।

মঙ্গলবার যে তিন জন কোভিডযোদ্ধাকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়, তাঁরা হলেন পূর্ণিমা সেন দাস (এনকেডিএ-তে রক্ত ​​সংগ্রহ সহায়ক), সৌমিতা ঘোষ ( টাটা মেডিকেল সেন্টারের অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড পলিসি, কোয়ালিটি কন্ট্রোলের প্রধান) এবং অনুপকুমার ঘোষ (ইকো পার্কের ওয়েলফেয়ার ও স্যানিটেশন টিম)।

হিডকো চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন বলেন, “নিউটাউন বাংলার ‘সাইকেল’ রাজধানী হয়ে ওঠার আশাবাদী। আমরা সাধারণ মানুষকে সাইকেল ব্যবহার করতে উৎসাহিত করতে পেরে খুশি। সাইকেল ব্যবহার একটি সঠিক পদক্ষেপ এবং আমরা এই বিষয়ে ব্রিটিশ ডেপুটি হাই-কমিশনের সঙ্গে সহযোগিতা করে খুশি।

কলকাতায় ব্রিটিশ ডেপুটি হাই-কমিশনার নিক লো বলেন, “নিউটাউন কলকাতার সেরা প্রথমসারির কর্মীদের মধ্যে তিনজনকে সম্মান জানাতে এই অনুষ্ঠানে এসে আমি খুব আনন্দিত। যে তিন জন কোভিডযোদ্ধা আজ সম্মানিত হলেন তাঁরা প্রকৃতঅর্থে প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য”।

গো-জিরো মবলিটির প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও অঙ্কিত কুমার বলেন, “এই অনুষ্ঠানটি ‘মেডেল অব অনার’ অনুষ্ঠানের অংশ। গো-জিরো গতিশীলতার মাধ্যমে সমাজসেবা করছে। বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষকে এই উদ্যোগে শামিল করতে স্বীকৃতি দিচ্ছে। বিশ্বব্যাপী বৈদ্যুতিন সাইকেলের বিক্রি তীব্র গতিতে বাড়ছে”।

আরও পড়তে পারেন: রয়্যাল এনফিল্ড হিমালয়ান ২০২১ বাজারে আসছে, জেনে নিন চমকদার কিছু বৈশিষ্ট্য

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন