Connect with us

কলকাতা

ভাষা দিবসে উত্তর কলকাতার অলিতেগলিতে ‘বর্ণপরিচয় ওয়াক’

‘ওয়াক ক্যালকাটা ওয়াক’-এর উদ্যোগে হাটা।

Published

on

শ্রয়ণ সেন

চমৎকার একটি বাড়ি। সাবেকি। লম্বা টানা রক। সবুজ খড়খড়ি আর দরজা। নামটাও তার চমৎকার– ‘চমৎকার বাড়ি।’

Loading videos...

হাঁদাভোঁদা, বাঁটুল দি গ্রেট, ছবিতে রামায়ণ, মহাভারত, সব কিছুই এই বাড়ি থেকেই প্রকাশিত হয়। কারণ এই বাড়িতেই যে রয়েছে দেব সাহিত্য কুটিরের প্রেস। উত্তর কলকাতার ঝামাপুকুর লেনের এই বাড়িটায় এক সময়ে বরেণ্য সব মানুষের যাতায়াত লেগে থাকত। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহাশয়ের সেই গোলাপি মলাটের ‘বর্ণপরিচয়’ও তো পরবর্তী কালে এই বাড়ি থেকেই প্রকাশিত হয়।

‘বর্ণপরিচয়’-এর মধ্যে দিয়ে সংস্কৃত ভাষার অযৌক্তিক শাসনজাল থেকে বাংলা ভাষাকে মুক্ত করেন বিদ্যাসাগর। সেই সঙ্গে যুক্তি ও বাস্তবতাবোধের প্রয়োগ করে বর্ণমালাকে সংস্কার করেন তিনি। সেই কারণেই রবিবার উত্তর কলকাতা অলিতে গলিতে ঘুরিয়ে দেখার বিশেষ যে পরিকল্পনা ‘ওয়াক ক্যালকাটা ওয়াক’ করেছিল, তার নামকরণ হয়েছিল ‘বর্ণপরিচয় ওয়াক’।

সংগঠনের দুই কান্ডারি – দীপ ভট্টাচার্য আর অয়ন মণ্ডল। ২০১৯ সালে এই দু’ জনের উদ্যোগে জন্ম ‘ওয়াক ক্যালকাটা ওয়াক’-এর। উদ্দেশ্য ছিল, নিজেরা যেমন কলকাতার সঙ্গে পরিচিত হবেন, তেমনই অন্যদেরও শহরের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেবেন। আমার সঙ্গে দু’ জনেরই পরিচয় হল গত মাসে। ২৬ জানুয়ারিও এমনই একটা হাঁটা হেঁটেছিলাম আমরা। তেমনই আজ আবার পথে। আগের বারের মতো এ বারও কোভিডের সব রকম বিধি কঠোর ভাবে মেনেই হাঁটা হয়েছে।

প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে মিলিত হয়ে হাঁটা শুরু। প্রথমে দাঁড়ানো হল সংস্কৃত কলেজের সামনে। বিদ্যাসাগর মহাশয় এই কলেজের অধ্যক্ষ থাকাকালীন এই কলেজের পরিচিতি বাড়ে। এই কলেজের নিয়মনীতি সংস্কার করে ১৮৫১-এর জানুয়ারিতে কায়স্থদের এবং ১৮৫৪-এর ডিসেম্বরে সব বর্ণের হিন্দুদের জন্য কলেজের দরজা খুলে দেওয়া হয়।

এ দিনের হাঁটায় মাঝেমধ্যেই ফিরে এসেছেন বাঙালির সমাজসংস্কারের অন্যতম কান্ডারি বিদ্যাসাগর। তবে সংস্কৃত কলেজের পর আমাদের গন্তব্য ছিল উত্তর কলকাতার এক বিখ্যাত মিষ্টির দোকান, পুঁটীরাম (দোকানের সাইনবোর্ডে এই বানানই লেখা)। উদ্দেশ্য প্রাতরাশ করা। আলুর তরকারি-সহ চারটে কচুরি, নতুন গুড়ের রসগোল্লা এবং ১০০ গ্রামের এক ভাঁড় মিষ্টি দই খেয়ে ফের হাঁটা শুরু।

কলেজ স্কোয়ারে ডেভিড হেয়ারের সমাধিস্থল, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে মৃত্যু বরণ করা বাঙালি সেনাদের সৌধটি দেখে চলে এলাম উত্তর কলকাতার বিখ্যাত গলিগুলিতে। এই রাস্তাগুলোর পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস। এখান দিয়ে হাঁটলে এবং বাড়িগুলোর দিকে তাকালে সময় যে কয়েক দশক পিছিয়ে যাবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

হাঁটতে হাঁটতেই এগিয়ে চলা। ঝামাপুকুর লেন দিয়ে হাঁটতে হাঁটতেই চলে এল রামকৃষ্ণ সংঘ। এটা আদতে দিগম্বর মিত্রের বাড়ি, যা পরিচিত ছিল ঝামাপুকুর রাজবাড়ি হিসেবে। দাদা রামকুমারের হাত ধরে কলকাতায় পৌঁছে ঝামাপুকুর লেনের এই বাড়িতেই উঠেছিলেন গদাধর চট্টোপাধ্যায় তথা শ্রীরামকৃষ্ণ। বাড়িটি খুব ভালো ভাবে সংস্কার করা হয়েছে। ঠাকুর দালানে শ্রীরামকৃষ্ণ, জগজ্জননী সারদা দেবী এবং স্বামী বিবেকানন্দের ছবি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নিত্য পুজো হয় সেখানে।

ঝামাপুকুর লেনের রামকৃষ্ণ সংঘের সেই বাড়ি।

বাড়ির দালানে বেশ কিছুটা সময় জিরিয়ে নেওয়া গেল। ফের হাঁটা শুরু। এসে পৌঁছোলাম সেই চমৎকার বাড়িতে।

দেব সাহিত্য কুটির-এর বীজ বুনেছিলেন বরদাপ্রসাদ মজুমদার। কলকাতার বটতলা অঞ্চলে থাকতেন তিনি। বটতলা তখন ছিল কলকাতার প্রকাশনার এক কেন্দ্র। তাঁর যে স্বল্প সঞ্চয় ছিল তা-ই নিয়ে তিনি আবির্ভূত হলেন পুস্তকবিক্রেতা হিসাবে। এই কাজে আয়‌ও হচ্ছিল ভালোই।

বরদাপ্রসাদ শীঘ্র‌ই বেশ কিছু টাকা জমিয়ে নিজের একটা ছোটো প্রেস খুললেন।বরদাপ্রসাদের সেজো ছেলে আশুতোষ উত্তরাধিকারসূত্রে বাবার ব্যবসার অধিকারী হলেন। সেই সময় থেকেই তিনি ডিকশনারি প্রকাশের পরিকল্পনা করেন। শীঘ্র‌ই এই ডিকশনারি প্রকাশিত হল।

এর পর ১৯২৪ সালে তিনি বিদ্যাসাগর মহাশয়ের অনেক পাঠ্যপুস্তকের স্বত্বও কিনে নেন। তার মধ্যে অবশ্যই ছিল বর্ণপরিচয়। ওই বছর‌ই প্রতিষ্ঠিত হল ‘দেব সাহিত্য কুটির’। ব্যবসায় লক্ষ্মী মুখ তুলে চাইলেন। প্রচুর সম্পত্তি হল আশুতোষ দেবের।

চমৎকার বাড়ি ও ‘নন্টে ফন্টে’

প্রায় ৩০টি বাড়ির মালিক হলেন তিনি। ঝামাপুকুর লেনে ৫টি বাড়ি কেনেন তিনি। ২১ নম্বর লেনের বাড়ির নাম রাখলেন নিজের স্ত্রী, চমৎকার সুন্দরী দাসীর নামে – চমৎকার বাড়ি। আর তার পাশে ২১/১-এর নাম – বরদাকুটীর।

পথ চলতে চলতে ফের বিদ্যাসাগর মশাই এসে গেলেন। সেই সূত্র ধরেই এ বার তাঁর বাড়িতে পৌঁছে যাওয়া। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর প্রথম জীবনে নিজে কোনো বাড়ি তৈরি না করলেও পরে তাঁর বিপুল গ্রন্থসম্ভার রাখার জন্য ১৮৭৬-এ মধ্য কলকাতায় ২৫ বৃন্দাবন মল্লিক লেনে, অধুনা ৩৬ বিদ্যাসাগর স্ট্রিটে এক খণ্ড জমির ওপরে একটি দোতলা বাড়ি তৈরি করেন৷ জীবনের শেষ চোদ্দো বছর মাঝেমধ্যে তিনি কাটিয়েছেন এই বাড়িতে৷ এই বাড়িতেই মারা যান তিনি।

বিদ্যাসাগরের বাড়ি।

বাড়িটিতে এখন সংস্কারের কাজ চলছে। তাই সামনের বাগানটার বেশি এগোতে পারলাম না। সংস্কারের কাজ শেষ হলে একদিন সবাই আসব, এই প্রতিজ্ঞা করে শেষ দফার হাঁটা শুরু হল। এ বার আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রোড পেরিয়ে ঢুকলাম গড়পাড় রোডে। কিছুটা এগোতেই ডান দিকে দেখলাম এক বিদ্যালয় ভবন।

ঢোকার দরজার ওপরে একটি ফলকে লেখা এথেনিয়াম ইনস্টিটিউশন। পাশেই রয়েছে তিন মহাপুরুষের মূর্তি। উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, সুকুমার রায় এবং সত্যজিৎ রায়। ১৯১৪ সালে উপেন্দ্রকিশোর ১০০এ গড়পাড় রোডের ওপর এই বাড়িটি তৈরি করেন। এখানেই ১৯২১ সালের ২ মে জন্মগ্রহণ করেন সত্যজিৎ রায়। ঐতিহাসিক এই বাড়িটি এথেনিয়াম বিদ্যালয় কিনে নেয় ১৯৩১ সালে।

প্রতিবেদক-সহ ‘ওয়াক ক্যালকাটা ওয়াক’-এর অন্য সদস্যরা।

এখানেই শেষ হল রবিবারের ‘বর্ণপরিচয় ওয়াক।’ শেষ করার আগে ফের একবার স্লোগান উঠল, ‘শহর চিনতে হলে হেঁটে দেখো বন্ধু।’ সেই সঙ্গে আওয়াজ উঠল “আসছে মাসে আবার হবে।” ‘বর্ণপরিচয় ওয়াক’ হয়তো শেষ, কিন্তু হাঁটা শেষ করছে না ‘ওয়াক ক্যালকাটা ওয়াক।’ ফের রাস্তায় নামবে তারা, হয়তো সামনের মাসেই।

কলকাতা

Bengal Polls 2021: মঙ্গলবার নিজাম প্যালেসে যাচ্ছেন না, সিবিআইয়ের কাছে আরও কিছুদিন সময় চাইলেন অনুব্রত মণ্ডল

ভোট না কি শরীর খারাপ? কী কারণে হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত?

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: গরু পাচার-কাণ্ডে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে সিবিআই তলব করলেও, মঙ্গলবার তিনি নিজাম প্যালেসে হাজিরা দিচ্ছেন না। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার থেকে আরও কিছুদিনের জন্য তিনি সময় চেয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

অনুব্রতবাবুর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, কোভিডের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় আপাতত বাইরে যেতে ভয় পাচ্ছেন তিনি। তাঁর শরীরও খুব একটা ভালো যাচ্ছে না বলে জানানো হয়েছে দলের তরফে।

Loading videos...

তবে অন্য একটি মহলের ধারণা অনুব্রতবাবুর নিজাম প্যালেসে না যাওয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ থাকতে পারে। সোমবারই মিনার্ভা থিয়েটারের সভায় মমতা অনুব্রতকে যেতে নিষেধ করেন। তিনি বলেন, ‘‘২৯-এ ওদের ওখানে ভোট। আমি বলে দিয়েছি, একদম যাবি না। স্ট্রেট বলবি, ইলেকশন প্রসিডিউর ওভার হবে। তার পর যাব।’’ সেই কারণেই হয়তো নিজাম প্যালেসে হাজিরা এড়ালেন কেষ্ট।

এর আগে, শুক্রবার আয় বহির্ভূত সম্পত্তি মামলায় অনুব্রতকে নোটিস ধরায় আয়কর দফতর। নোটিস পাঠানো হয় তাঁর কয়েক জন আত্মীয়কেও। আয়কর দফতরের আধিকারিকদের অভিযোগ, আসানসোল, পুরুলিয়া এবং বাঁকুড়ায় হিসেব বহির্ভূত সম্পত্তি রয়েছে অনুব্রতর। এর পরেই কেষ্টকে তলব করে সিবিআই।

আরও পড়তে পারেন Bengal Polls 2021: শীতলকুচির সেই বুথে ভোট বৃহস্পতিবার

Continue Reading

কলকাতা

Bengal Polls 2021: ‘নোটা’য় ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত কলকাতার বাড়িওয়ালা সংগঠনের

বঞ্চনার জবাব দিতে নোটা চিহ্নে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

Published

on

শৈবাল বিশ্বাস      

কলকাতার বাড়িওয়ালা সংগঠন দ্য ক্যালকাটা হাউস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন এ বার বঞ্চনার জবাব দিতে নোটা চিহ্নে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুকুমার রক্ষিত জানিয়েছেন, রেন্ট কন্ট্রোল দফতরে কলকাতার বাড়িওয়ালাদের ৪০০ কোটি টাকা আটকে রয়েছে। বারবার চেয়েও এই টাকা পাওয়া যাচ্ছে না। নানা অজুহাতে বাড়িওয়ালাকে ঘোরানো হচ্ছে। অথচ কলকাতা হাইকোর্টের মাননীয় রেজিস্ট্রার এক নোটিফিকেশনে বলেছিলেন, রেন্ট কন্ট্রোল নয়, বিতর্কিত ভাড়া জমা দিতে হবে বাড়িওয়ালাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। রেন্ট কন্ট্রোলে জমা দেওয়া যাবে না। এই নির্দেশ সত্ত্বেও রাজ্য সরকার রেন্ট কন্ট্রোল বাতিল করেননি। এর প্রতিবাদ হওয়া প্রয়োজন।

Loading videos...

জোর করে কলকাতায় ইউনিট এরিয়া অ্যাসেসমেন্ট চালু করা হয়েছে। এর ফলে পুরোনো বাড়ির মালিকরা সংকটে পড়েছেন। এই আইন অনুযায়ী, বাড়ির মূল্যায়ন করা হবে তার অবস্থান এবং এলাকা বিচার করে। এ ভাবে কর নির্ধারণ করলে বহু পুরোনো বাড়ির ট্যাক্স চার-পাঁচশো গুণ বেড়ে যাবে। ফলে কলকাতার মধ্যবিত্ত বাড়িওয়ালারা বাড়ি বিক্রি করে দিতে বাধ্য হবেন। বারবার এই নিয়ে রাজ্য সরকার ও পুরসভার কাছে দরবার করা সত্ত্বেও সমস্যার সুরাহা হয়নি। প্রোমোটারের করাল গ্রাস থেকে পুরোনো বাড়ি রক্ষা করা যাচ্ছে না।

শুধু তা-ই নয়, পুরোনো বাড়ির ভাড়া বাড়ানোরও কোনো উপায় নেই। ১৯৯৭ সালের প্রেমিসেস টেনেন্সি অ্যাক্টে বলা হয়েছিল, পর্যায়ক্রমে পরিস্থিতি বিচার করে সরকার ভাড়া বৃদ্ধির হার ঘোষণা করবে। বছরের পর বছর কেটে গেলেও ভাড়া বৃদ্ধি হয়নি।

অন্য দিকে, বাড়ির মালিককে সম্পূর্ণ বঞ্চিত করে তা প্রোমোটারদের হাতে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে সরকারি মদতে। মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন, জরাজীর্ণ বাড়ির মালিক বাড়ি সারাতে না পারলে তা সরকার অধিগ্রহণ করে প্রোমোটারদের হাতে তুলে দেবে। বাড়িওয়ালা পাবে শুধুমাত্র বসবাসের অধিকার। মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছেকে মর্যাদা দিতে কলকাতা পুরসভা আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধনও করিয়ে নিয়েছে।

সুকুমারবাবুর বক্তব্য, বস্তাপচা বাড়িভাড়া আইনের জন্য বাড়িওয়ালারা ভাড়া বাড়াতে পারেন না। তারা মেরামতের জন্য কোনো আলাদা টাকাও ভাড়াটিয়ার কাছ থেকে আদায় করতে পারেন না। এই পরিস্থিতিতে বাড়ির সংস্কার হবে কী করে? সংবিধানের তোয়াক্কা না করে ব্যক্তিসম্পত্তি নিয়ে ছেলেখেলা করলে অজস্র মামলায় সরকার জেরবার হয়ে যাবে। এই পরিস্থিতির হাত থেকে উদ্ধার পেতে সরকারের উচিত ছিল সহজ শর্তে বাড়িওয়ালাকে ঋণের ব্যবস্থা করে দেওয়ার।

নির্বাচন কমিশন বারবার সতর্ক করে দেওয়া সত্ত্বেও দেওয়ালে লেখা কোনো রাজনৈতিক দলই বন্ধ করছে না। বাড়িওয়ালার অনুমতিরও তোয়াক্কা করছে না। এই পরিস্থিতিতে নোটা ভোটের মাধ্যমে বাড়িওয়ালারা প্রতিবাদ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

Continue Reading

কলকাতা

Weather Update: কালবৈশাখী এল কলকাতায়, কিন্তু মন ভরল না দক্ষিণের

বৃহস্পতিবারও ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

Published

on

thunderstorm in kolkata

খবরঅনলাইন ডেস্ক: চলতি মরশুমে প্রথম বার পুরোদমে একটি কালবৈশাখী ঝড় হানা দিল কলকাতা শহরে। মাঝারি বৃষ্টি দিল সে। আবহাওয়া ঠান্ডাও করল। কিন্তু মধ্যে এবং উত্তর কলকাতাতেই তার দাপট বেশি ছিল। দক্ষিণ শহরতলিতে মন ভরাতে পারেনি সে।

বুধবার রাতে এই ঝড়ের কারণে যখন কলকাতার অধিকাংশ এলাকার মানুষ হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন, তখন যাদবপুর, গড়িয়া, পাটুলির বাসিন্দারা হাপিত্যেশ করেছেন। একটু ঠান্ডা হাওয়া এবং মেঘের গর্জন ছাড়া বেশি কিছুই জোটেনি তাঁদের জন্য। অবশ্য বৃহস্পতিবারও ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

Loading videos...

ঝাড়খণ্ডে তৈরি হওয়া বজ্রগর্ভ মেঘপুঞ্জ রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের পাশাপাশি মুর্শিদাবাদ, মালদায় ব্যাপক ঝড়বৃষ্টি নামিয়ে বুধবার রাত ১০টা নাগাদ পৌঁছে যায় কলকাতায়। সারা দিন প্রবল গরমে হাপিত্যেশ করা কলকাতাবাসীর মনে তখন কিছুটা শান্তি আসতে শুরু করে। প্রথম দমকা হাওয়া দিয়ে শুরু, তার পর নামে স্বস্তির বৃষ্টি।

আলিপুরের রেকর্ডই জানিয়ে দিচ্ছে যে মোটামুটি ভালোই বৃষ্টি পেয়েছে কলকাতা। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে বৃষ্টি হয়েছে ১২ মিলিমিটার। তবে বুধবারের ঝড়বৃষ্টির ব্যাপক প্রভাব পড়েছিল বাঁকুড়ায়। সেখানে বৃষ্টি হয়েছে ৪০ মিলিমিটারেরও বেশি। এপ্রিলে মাত্র কয়েক ঘণ্টায় ৪০ মিলিমিটার বৃষ্টি হওয়া কম কথা নয়।

এ ছাড়াও, দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সর্বত্র বৃষ্টি হয়েছে মোটামুটি ভালোই। বৃহস্পতিবারও সকাল থেকে দক্ষিণবঙ্গের আকাশ জুড়ে মেঘের আনাগোনা। অনেক জায়গায় ফের ঝড়বৃষ্টি শুরু হয়েছে। দুপুরের দিকে কলকাতার ভাগ্য কিছু জোটে কী না, সেটাই দেখার।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

Coronavirus Second Wave: সংক্রমণ থিতু হলেও কমার লক্ষ্মণ এখনও নেই, কড়াকড়ি আরও বাড়াল মহারাষ্ট্র

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ55 mins ago

ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত আরও ১৪ দিন বন্ধ রাখছে বাংলাদেশ

রাজ্য4 hours ago

ভোট মিটতেই দিব্যেন্দু অধিকারীকে নিয়ে ‘সক্রিয়’ জেলা তৃণমূল

রাজ্য4 hours ago

Bengal Corona Update: সংক্রমণের হার ফের ৩০ শতাংশ পার, বাড়ল মৃতের সংখ্যাও, তবে কলকাতা-সহ ৯ জেলায় কমল সক্রিয় রোগী

Car dealer
গাড়ি ও বাইক4 hours ago

মৃত্যুর পর গাড়ির মালিক কে? এ বার আগে থেকেই তা নির্ধারণ করা যাবে

insurance
শিল্প-বাণিজ্য5 hours ago

জীবন বিমা পলিসি কত রকমের হয়? কেনার সময় নিজের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রাখুন

দেশ6 hours ago

কোভিডের মধ্যে অক্সিজেন বণ্টনে নজর রাখতে টাস্কফোর্স গঠন করল সুপ্রিম কোর্ট

রাজ্য6 hours ago

Covid Crisis: রাজ্যকে সাহায্য করুক কেন্দ্র, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন অধীররঞ্জন চৌধুরী

দেশ7 hours ago

Covid Crisis: জলে গুলে খেতে হবে, করোনারোধী ওষুধে ছাড়পত্র দিল ডিজিসিআই

sourav ganguly
ক্রিকেট2 days ago

Covid Crisis in IPL: জৈব সুরক্ষা বলয়ে কোনো ফাঁক ছিল বলে মনে করেন না সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

দেশ3 days ago

Corona Update: দু’তিনটে রাজ্যে সংক্রমণবৃদ্ধির জের, ভারতের দৈনিক সংক্রমণ ভেঙে দিল অতীতের রেকর্ড

ক্রিকেট1 day ago

England vs India 2021: ঋদ্ধি, শামি ছাড়াও ইংল্যান্ডগামী টেস্ট দলে ঠাঁই পেলেন বাংলার আরও এক

রাজ্য2 days ago

Post-Poll Violence: ইন্ডিয়া টুডে-র সাংবাদিকের ছবি পোস্ট করে হিংসায় মৃত হিসেবে বর্ণনা বিজেপির

রাজ্য2 days ago

সুখবর! রাজ্য সরকারি কর্মীরা পাচ্ছেন অ্যাড-হক বোনাস

পরিবেশ3 days ago

২০ বছরে বাংলাদেশের সুন্দরবনে ২৫ বার আগুন, পুড়ে গেছে প্রায় ৮১ একর বনভূমি

দেশ1 day ago

Coronavirus Second Wave: নয়টি রাজ্যে চূড়ায় পৌঁছে গিয়েছে সংক্রমণ, জানাল স্বাস্থ্য মন্ত্রক

রাজ্য1 day ago

‘যা বলার পরে ডেকে বলব’, জল্পনা বাড়ালেন মুকুল রায়

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে