egg price going up

ওয়েবডেস্ক : বাতাসে হিমেল হাওয়ার ‘পরশ’ মিললেও কমছে না সবজির দাম। এরই মধ্যে পোলট্রির ডিমের দাম এক লাফে সাড়ে চার টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৬ টাকা। শীত না পড়তে পড়তেই কেন হঠাৎ বাড়তে শুরু করেছে ডিমের দাম?

কারণটা জানালেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডিম বিপণনের সঙ্গে জড়িত এক ব্যক্তি। তিনি জানালেন, ডিমের দাম বাড়ার পিছনে দু’টি কারণ রয়েছে। গ্রীষ্মকালের তুলনায় শীতকালে বেশি দিন ডিম ভালো থাকে। ফলে আড়তদাররা বেশি দিন ডিম ঘরে রেখে বিক্রি করতে পারেন।

গ্রীষ্মকালে যেখানে নষ্ট হওয়ার ভয়ে কম দামে ডিম বাজারে ছেড়ে দেন, সেখানে শীতকালে তাঁরা বেশি দামে ডিম বাজারজাত করেন। এর ফলে প্রতি বছরই শীতকালে ডিমের দাম চড়া থাকে।

তিনি জানালেন, শীতকালে সাধারণত ডিমের চাহিদা গরমকালের তুলনায় বেশি থাকে। পশ্চিমবঙ্গে চাহিদার তুলনায় ডিমের উৎপাদন যথেষ্ট কম হয়। অর্থাৎ মোট ডিমের চাহিদার মাত্র ৩০ ভাগ পূরণ করতে পারে পশ্চিমবঙ্গ। বাকি ৭০ ভাগ আনতে হয় ভিন্‌ রাজ্য থেকে।  মূলত অন্ধ্রপ্রদেশ এবং ওড়িশা থেকে ডিম আমদামি করা হয় পশ্চিমবঙ্গে। এর মধ্যে অন্ধ্র থেকে সব চেয়ে বেশি পরিমাণ ডিম আমদানি করা হয়। ফলে পরিবহণ খরচ বেড়ে যায়। বাড়ে ডিমের দাম।

আরও পড়ুন : অজ্ঞতার কারণে লোভনীয় খাদ্য ডিম বিষাক্ত খাবারে পরিণত হচ্ছে : গবেষণা 

তাঁর মতে, এক লাফে ডিম দাম এতটা বাড়া উচিত নয়। সরকার আড়তদারদের নিয়ন্ত্রণে রাখলে ডিমের দাম অনেকটাই কম রাখা যেতে পারে।

ন্যাশনাল এগ কোঅর্ডিনেশন কমিটির নির্ধারিত পাইকারি ডিমের দামের দিকে তাকালেই বোঝা যাবে এই দশ দিনে কলকাতায় ডিমের দাম কতটা বড়েছে। ১ নভেম্বর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন বিক্রয় কেন্দ্রে ডিমের দাম ছিল যথাক্রমে ৪৫৬, ৪৬২, ৪৭০, ৪৭৬, ৪৮৭, ৪৯০, ৪৯৫, ৫০০, ৫০৪, ৫০৪ টাকা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here