ওয়াশিংটন : ড্রোন কাণ্ডে টুইস্ট। রবিবার ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি টুইট করেন। তিনি মন্তব্য করেন, মার্কিন ড্রোন হাতিয়েছে চিন, সেই ড্রোন তারাই রেখে দিক। যুক্তরাষ্ট্র তা ফেরত চায় না।

ড্রোনটি ফেরত দেওয়া নিয়ে চিনের সঙ্গে মার্কিন প্রতিরক্ষা বাহিনী কথাবার্তা বলেছে বলে ঘোষণা করে মার্কিন সেনা। কিন্তু ঠিক তার পরই ট্রাম্পের এই মন্তব্য।

 

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ চিন সাগরের আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকা থেকে চিন ড্রোনটি উদ্ধার করে। এই ড্রোনটির ব্যাপারে চিন মন্তব্য করে, মার্কিন সেনারা চিনে সেনা অভ্যূত্থানের চেষ্টা করছে। এটা ঠিক নয়। তাই চিন এর বিরুদ্ধে দৃঢ়ভাবে প্রতিবাদ জানায়। সঙ্গে এই ধরনের কাজ না করার জন্য মার্কিন দেশকে অনুরোধ জানায়। তা ছাড়াও নিয়ম মেনে ওটি ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারেও আশ্বস্ত করে চিন। জলপথে নৌ চলাচল সুরক্ষিত করার জন্য চিন এই যন্ত্রটি আটক করেছে বলেও জানায়।

অন্য দিকে পেন্টাগনের তরফে জানানো হয়, ওই এলাকায় কিছু ভৌগোলিক কারণ, মানচিত্র তৈরি ও কিছু নথিহীন বৈজ্ঞানিক তথ্য সংগ্রহের উদ্দেশ্যেই ওই ড্রোন আর জাহাজটি  ওখানে স্থাপন করা হয়েছিল। চিনের বক্তব্য বস্তুত ঠিক নয়। আন্তর্জাতিক সীমানা থেকে বেআইনি ভাবে চিন তা আটক করেছে। ওটি ফিরিয়ে দিতে হবে।

তবে দু’দেশের তরফের খবর, চিন ড্রোনটি নিয়ম মেনে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত। ঠিক সেই সময় ভাবী প্রেসিডেন্টের এই ধরনের মন্তব্য বেজিং-এর সঙ্গে সমঝোতায় কী প্রভাব ফেলবে সেটা সময়ই বলে দেবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here