ব্রেমেরহাভেন  (জার্মানি): জার্মানির বন্দর-শহর ব্রেমেরহাভেনে একের পর এক এসে পৌঁছচ্ছে মার্কিন জাহাজ। নামছে শ’খানেক ট্যাঙ্ক, হাউইৎজার ও বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্র। শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে এই দক্ষযজ্ঞ। এরপর এগুলি ছড়িয়ে পড়বে গোটা পূর্ব ইউরোপে। ন্যাটোর প্রতিরক্ষাকে আরও জোরদার করতেই এই পদক্ষেপ মার্কিন প্রশাসনের। কারণ ‘রাশিয়ার আক্রমণের সম্ভাবনা’ রয়েছে পূর্ব ইউরোপে।

আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে পৌঁছে যাবে সাড়ে তিন হাজার সেনাও।

us-tank-in-europe-2

সেনা ও অস্ত্র জড়ো করার এই গোটা প্রক্রিয়াকে বলা হচ্ছে ‘আটলান্টিক সমাধান অভিযান’ (অপারেশন আটলান্টিক রিজলভ)-এর নতুন পর্যায়। যে পর্যায়ে আগামী ন’মাস মার্কিন সেনা ব্রিগেড থাকবে ইউরোপে।

রাশিয়ার কার্যকলাপ নিয়ে ‘অনিশ্চয়তায়’ ভোগা এস্তোনিয়া, লাতভিয়া, লিথুয়ানিয়া, পোল্যান্ড ও অন্যান্য ন্যাটো-অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির চিন্তা কমাতেই এই নয়া মার্কিন অভিযান।

এই নতুন বাহিনী প্রথমে যাবে পোল্যান্ডে। তার পর ছড়িয়ে পড়বে এস্তোনিয়া থেকে বুলগেরিয়া পর্যন্ত সাতটি দেশে। বাহিনীর সদর দফতর হবে জার্মানি।

us-tank-in-europe-1

এই সেনা নিয়োগের সিদ্ধান্ত ঘোষণার সময়, গত বছর, মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব অ্যাশ কার্টার বলেছিলেন, এই বাহিনী গোটা পূর্ব ইউরোপ জুড়ে ন্যাটো-অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়া চালাবে। আমেরিকার সেনাবাহিনীর ইউরোপ অঞ্চলের কমান্ডার লেফটেনান্ট জেনারেল বেন হজেস বলেন, এই সেনা নিয়োগ আমেরিকার “ইউরোপীয় বন্ধু ও সহযোগীদের ওপর কোনো আগ্রাসন রুখতে ও তাদের রক্ষা করতে মার্কিন অঙ্গীকারের বস্তুগত রূপায়ণ”।

us-tank-in-europe-3

শুধু স্থলবাহিনী নয়, এর পর ইউরোপে বিমানবাহিনীও পাঠাতে চলেছে আমেরিকা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here