কাবুল: জিবিইউ-৪৩ বা ‘সব বোমার মা’-এর হানায় মৃত্যু হয়েছে ৩৬ জন আইসিস জঙ্গির। দাবি আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের আধিকারিকদের। বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ পূর্ব আফগানিস্তানের নানগড়হর প্রদেশের আচিন জেলায় প্রায় ১০ হাজার কিলোগ্রাম ওজনের বোমা ফেলে আমেরিকা। এর আগে পৃথিবীর কোনো যুদ্ধক্ষেত্রে এত বড়ো অপারমাণবিক বোমা ব্যবহার করা হয়নি।

সেই বোমায় মাত্র ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি আফগানিস্তান সরকারের। সঙ্গে তাদের বক্তব্য, কোনো সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়নি। অর্থাৎ মৃত ৩৬ জনই আইএস জঙ্গি।

আফগান সরকারের দাবি নিরপেক্ষ ভাবে যাচাই করতে পারেনি, কোনো সংবাদ সংস্থা। 

প্রশ্ন উঠেছে, এত কম সংখ্যক জঙ্গিকে মারাই যদি  লক্ষ্য হয়, তাহলে এতবড়ো আকারের যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার করা হল কেন?

মার্কিন সরকারের পক্ষ থেকে অবশ্য দাবি করা হয়েছে, আইসিস জঙ্গিদের গুহা ও সুড়ঙ্গগুলো ধ্বংস করার জন্যই এত বড়ো বোম ফেলা হয়েছে। 

আফগান আধিকারিকদের বক্তব্য, আচিনে আইসিসের যে শাখাটি সক্রিয়, তার বেশিরভাগই পাকিস্তানই ও উজবেক। 

আরও পড়ুন: আফগানিস্তানে সবচেয়ে বড়ো অপারমাণবিক বোমা ফেলল আমেরিকা

কৃষিপ্রধান ওই জেলায় একসময় প্রায় ৯০হাজার মানুষ থাকতেন। কিন্তু বছর দুয়েক আগে সেখানে শক্তিবৃদ্ধি করে আইসিস জঙ্গিরা। তারপরই জেলা ছেড়ে চলে আসেন বহু সাধারণ মানুষ। এই মুহূর্তে জেলার জনসংখ্যা কত, তা জানা যায়নি। 

বস্তুত, শুধু আফগান সেনা বা মার্কিন সেনা নয়, আচিনে আইসিসের সঙ্গে লড়াই চলে অন্য ইসলামি মৌলবাদী গোষ্ঠী তালিবানেরও।

যদিও মার্কিন বোমাবাজির পর তালিবানের পক্ষ থেকে ভাইবারে একটি বার্তা ছাড়নো হয়। তাতে এই হানাদারিকে ‘অযৌক্তিক’ বলা হয়েছে। সঙ্গে বলা হয়েছে, আমেরিকা আইসিসের বিরুদ্ধে লড়ছে, এটা গোটা দুনিয়াকে ‘দেখানো’র জন্যই এত বড়ো বোমা মারতে হয়েছে, ট্রাম্প প্রশাসনকে।  

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here