মোহনবাগান-২            চেন্নাই সিটি-১

   (জেজে, সোনি)            (ট্যাঙ্ক)

চেন্নাই: কয়েকটা মুহূর্ত বাদে কখনোই মনে হয়নি মোহনবাগান ম্যাচটা হারতে বা ড্র করতে পারে। কিন্তু ম্যাচের ৫২ মিনিটে গতির বিরুদ্ধে গোল করে দিলেন চেন্নাই সিটির ২৩ বছর বয়সি ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার ট্যাঙ্ক। প্রথমার্ধে যেভাবে ডিফেন্সে লোক বাড়িয়ে সবুজমেরুনকে রুখে দিয়েছিল অনভিজ্ঞ চেন্নাই সিটি, সেটা মনে করে নিশ্চয় রক্তচাপ বেড়ে গিয়েছিল বেঙ্গালুরু থেকে প্রিয় দলের খেলা দেখতে আসা ৭০-৭৫ জন সবুজমেরুন সমর্থকের। তবে চাপ নামতেও সময় লাগেনি। ৪ মিনিট পরেই ডাফির শটে ফ্লিক করে সমতা ফেরান জেজে। গত ম্যাচে দু’গোলের পর এদিন আবার। তারপরই হঠাৎ খেলাটা বিরক্তিকর হয়ে যায়। প্রথম আই লিগ খেলতে নামা ফ্র্যানচাইজি দলের মানেই নেমে আসে সঞ্জয় সেনের ছেলেরা। কিন্তু মোহনবাগানে তো একজন সোনি নর্দে আছেন। ম্যাচের প্রথম থেকেই বাঁদিকে যখনই সোনির পায়ে বল যাচ্ছিল, মনে হচ্ছিল কিছু একটা হবে। কিন্তু হয়নি। কিন্তু আস্তে আস্তে দেখা গেল সোনি বল ধরলেই দু’জন মার্কার সামনে চলে আসছেন। এর মধ্যেই ফাউলের সুযোগে ৩২ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি পেয়েছিল বাগান। কিন্তু সোনির দুর্বল শট আটকে দিলেন চেন্নাইয়ের গোলকিপার করণজিৎ সিং। 

সেই পাপ স্খালন করতেই যেন ৭৬ মিনিটে ঠান্ডামাথায় কিছুটা দৌড়ে জয়সূচক গোলটা করে দিলেন হাইতির স্ট্রাইকার। সঙ্গে এবারের আই লিগে তার প্রথম গোলটাও। ২ মিনিট পরেই অবশ্য প্রায় গোল করার জায়গায় চলে গেছিলেন চেন্নাইয়ের আরেক ব্রাজিলিয় স্ট্রাইকার চার্লস। কিন্তু চমৎকার সেভ করেন দেবজিত।

ম্যাচের শেষ মুহূর্তে সোনির সাজানো বল গোলে পরিণত করতে পারলেন না প্রবীর দাস। বাড়ল না গোলের ব্যবধান। লম্বা দৌড়ের আই লিগে এই সব মিস গুলোই হয়তো পরে মূল্যবান হয়ে যেতে পারে। 

চমৎকার ঘাসে ঢাকা মাঠে প্রথমার্ধটা ভালই শুরু করেছিল সবুজমেরুন। কিন্তু ক্রমেই নিজেদের রক্ষণাত্মক স্ট্র্যাটেজিটা মেলে ধরতে শুরু করে প্রথম আই লিগ খেলতে নামা চেন্নাই সিটি। সব মিলিয়ে ডিফেন্সে লোক বাড়িয়ে সঞ্জয় সেনের ছেলেদের হতাশ করে দিচ্ছিল স্থানীয় কোচ রবিন চার্লস রাজার দল। প্রথমার্ধে দু-একবার কাউন্টার অ্যাটাকে গোল করার মতো পজিশনেও চলে গিয়েছিল চেন্নাই।

পয়েন্ট না পেলেও চেন্নাই সিটির করণজিৎ, হারুন আমিরি, ট্যাঙ্ক, চার্লসদের চেষ্টাটা ভোলা কঠিন।

যাই হোক। চার ম্যাচে ১২ পয়েন্ট হয়ে গেল সঞ্জয় সেনের ছেলেদের। চার ম্যাচই ইঞ্জিনের মতো মাঠ চষে বেরিয়েছেন অধিনায়ক কাতসুমি। চমৎকার খেলছেন অনূর্ধ্ব ২২ শুভাশিস বসু। ডিফেন্সটা এতদিন বেশ ভালই লাগছিল। কিন্তু আজ কয়েকবার বোঝাপড়ার অভাব চোখে পড়েছে। তবে যে দলে ডাফি চোট পেলে বলবন্ত নামেন, তাদের ওপর বাজি ধরাই যায়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here