সানি চক্রবর্তী :

টানা তিন ম্যাচে জয়, আত্মবিশ্বাসে টগবগ করে ফুটছে ইস্টবেঙ্গল শিবির। অ্যাওয়ে ম্যাচে আই লিগে নতুন দল মিনার্ভার উপরে রোলার চালিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েই পঞ্জাবে গিয়েছ লাল-হলুদ ব্রিগেড। সেই লক্ষ্যে ম্যাচের আগের দিন গুরুনানক স্টেডিয়ামে অনুশীলন। আর সেখানেই হোঁচট। কারণ, খেলার মাঠ। কয়েক দিন আগে অনুষ্ঠানের জন্য যে মাঠ ব্যবহৃত হয়েছে। ফলে মাঠে একাধিক স্থানে রয়েছে গর্ত, পড়ে রয়েছে পেরেক। ম্যাচের দিনে মাঠ পরিষ্কার করা হলেও গর্ত বোজানোর পরে তা হয়ে থাকে অসমান। আর এ হেন মাঠে খেললে চোট-আঘাত লাগার সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে। চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াইয়ে দৌড় শুরু করা ইস্টবেঙ্গলের গতি, তাই প্রতিপক্ষ মিনার্ভা নয়, কমিয়ে দিয়েছে গুরু নানক স্টেডিয়াম। মিনার্ভা এমনিতে চণ্ডীগড়ের দল। তবে তাদের আই লিগ খেলার উপযোগী মাঠ না থাকায় তারা ব্যবহার করছে জেসিটির স্টেডিয়ামটি। আর সেই মাঠের অবস্থা দেখেই হতবাক সকলে। স্টেডিয়ামে রবিবারই মরশুমের প্রথম ম্যাচ খেলবে মিনার্ভাও। টানা চারটি অ্যাওয়ে ম্যাচে খেলার পরে এটাই তাদের প্রথম হোম ম্যাচ।

মাঠের পাশাপাশি লুধিয়ানার প্রচণ্ড ঠান্ডা ও কনকনে হিমেল বাতাসও চিন্তায় রেখেছে ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলারদের। যদিও বিকেলে ম্যাচ হওয়ায়, ঠান্ডার প্রকোপ খেলায় খুব একটা পড়ার সম্ভাবনা নেই। তবে এ হেন পরিবেশের সাহায্য পেতে পারেন ইল্ডার আমিরভ। কিরঘিজস্থানের মাইনাস ১৫ ডিগ্রি না হলেও তুলনামূলক ঠান্ডা আবহাওয়া সাহায্য করতে পারে এই বিদেশি স্ট্রাইকারের খেলায়। মরগ্যানও তাঁর উপরেই ভরসা রাখছেন। তাঁকে সময় দিতে চাইছেন দলের সঙ্গে মানিয়ে নিতে। ব্রিটিশ কোচের মতে, “বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার পরে একটা নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছেছি। এ বার সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোতে হবে।” মরগ্যানের কথার ইঙ্গিত ধরলে, বেঙ্গালুরু ম্যাচের উইনিং কম্বিনেশন ভাঙতে চাইছেন না তিনি। তাই আগের ম্যাচে ব্যর্থ আমিরভ-প্লাজা জুটিই হয়তো এই ম্যাচেও আপফ্রন্টে শুরু করছে।

শক্তিশালী ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে তাঁর দল সাধ্যমতো লড়াই করবে বলেই জানিয়েছেন মিনার্ভার কোচ সুরিন্দর সিং। দলের সঙ্গে কয়েক দিন আগেই যোগ দিয়েছেন টেকনিক্যাল ডিরেক্টর তথা একাধিক ভারতীয় ফুটবলার তৈরির কারিগর কলম টোল। জুয়েল রাজা, অসপ্রীত সিং, মননদীপ সিং, অনিরুদ্ধ থাপাদের বিরুদ্ধে লড়াইটাকে মোটেই সহজ লড়াই হিসেবে দেখছেন না মরগ্যানও। যে প্রসঙ্গে তিনি চার্চিল-বেঙ্গালুরু ম্যাচের উদাহরণ দিয়েছেন ঘুরিয়ে। বলেছেন, “ছোটো দল বলে কিছু হয় না। শক্তিশালী দলেরাও তুলনায় কমজোরিদের কাছে হারবে, আটকাবে। তাই আত্মতুষ্টির কোনো জায়গা নেই।” মাঠ, ঠান্ডা সহ একাধিক প্রতিবন্ধকতার মাঝেই মরগ্যানের নজর টানা চতুর্থ জয়ের দিকে।

খেলা : বিকেল ৪টে ৩০ মিনিট। দেখা যাবে টেন ২ চ্যানেলে। 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here