আরিয়ান খান মামলায় নয়া মোড়! সাক্ষীকে কোটি কোটি টাকা ঘুষের অভিযোগ, অস্বীকার এনসিবি-র

0

মুম্বই: মাদক মামলায় গ্রেফতার বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের (Shah Rukh Khan) পুত্র আরিয়ান খানের (Aryan Khan) বিরুদ্ধে মুখ খুলতে কোটি কোটি দিচ্ছে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (NCB)। মাদক মামলার এক সাক্ষীর এ ধরনের মন্তব্যে তোলপাড় গোটা দেশ। তবে এহেন মন্তব্যকে ‘সম্পূর্ণ মিথ্যে রটনা’ বলে দাবি করেছে তদন্তকারী সংস্থা।

সর্বভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম ওই সাক্ষীর মন্তব্য উদ্ধৃত করে জানায়, “শাহরুখ-পুত্রের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে ১৮ কোটি টাকার চু্ক্তি হয়েছে বলে শোনা গিয়েছে”।

ঘটনায় প্রকাশ, আরিয়ানের গ্রেফতারির পর তাঁর সঙ্গে কিরণ পি গোসাভি নামে এক ব্যক্তির ছবি নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই মনে করেন, ওই ব্যক্তি হয়তো এনসিবির কোনো আধিকারিক। তবে বিষয়টি নিয়ে জলঘোলা শুরু হতেই এনসিবি-র তরফে সাফ জানানো হয়, কিরণ সংস্থার কেউ নন। এই ঘটনার পর থেকে কিরণকে অন্যতম সাক্ষী হিসেবে দাঁড় করাতে খোঁজ চালাতে শুরু করেন আধিকারিকরা। কিন্তু তার পর থেকেই না কি ‘রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ’ ওই ব্যক্তি।

রবিবার কিরণের ওই সহযোগী প্রভাকর সেইল হলফনামায় পুরো ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছেন। তাঁর দাবি, ২ অক্টোবর প্রমোদতরীর বোর্ডিং এলাকায় তিনিও উপস্থিত ছিলেন। সেখানে আসা কিছু লোককে শনাক্ত করতে বলা হয় তাঁকে। এ ব্যাপারে তাঁর হোয়াটসঅ্যাপে বেশ কিছু ছবিও পাঠানো হয়। এমনকী আরিয়ান-সহ বাকি অভিযুক্তদের এনসিবি অফিসে নিয়ে যাওয়ার পর এনসিবি আধিকারিক সমীর ওয়াংখেড়়ে এবং গোসাভি তাঁকে দিয়ে ফাঁকা পঞ্চনামায় সই করিয়েছেন।

প্রভাকরের দাবি, সমীর ওয়াংখেড়়ের থেকে বিপদের আশঙ্কা করছেন তিনি। এমনকী জীবনের ঝুঁকি রয়েছে বলেও দাবি প্রভাকরের। কিরণের দেহরক্ষী বলে নিজের পরিচয় দিয়ে তিনি দাবি করেন, শাহরুখ-পুত্রের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে ১৮ কোটি টাকার চু্ক্তি হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন।

[শাহরুখ-পুত্রের সঙ্গে গোসাভির নিজস্বী। নেটমাধ্যমে ছড়িয়েছিল এই ছবি।]

একটি হলফনামায় প্রভাকর বলেছেন, গাড়িতে বসে থাকা অবস্থায় স্যাম ডি’সুজা নামে এক জনের সঙ্গে ১৮ কোটি টাকার চুক্তির কথা বলতে শুনেছিলেন প্রভাকরকে। যার মধ্যে আট কোটি টাকা দেওয়ার কথা ছিল সমীর ওয়াংখেড়েকে। ওই দিন সন্ধ্যায়, গোসাভি, স্যাম ডি’সুজা এবং শাহরুখ খানের ম্যানেজার পূজা দাদলানি একটি গাড়ির ভিতরে ১৫ মিনিটের বৈঠক করেছিলেন। তিনি আরও বলেন, গোসাভির কাছ থেকে নগদ টাকা পেয়েছিলেন তিনি এবং স্যাম ডি’সুজার হাতে তা তুলেও দিয়েছিলেন।

সংবাদমাধ্যমে এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই এনসিবি-র আধিকারিকরা জানান, এই রটনা সম্পূর্ণ মিথ্যে। অফিসের ভিতরে সিসিটিভি রয়েছে। চাইলেই প্রমাণ পাওয়া যাবে। ঠিক সময়ে এর জবাব দেবে তদন্তকারী সংস্থা। এনসিবি সূত্রে জানা গিয়েছে, এ ধরনের দাবি ‘ভিত্তিহীন’। যদি টাকা হাতবদল হয়, তা হলে “কেন কেউ জেলে থাকবে”? “শুধু (এজেন্সির) ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্যই” এ ধরনের মন্তব্য বলে দাবি করেছে একটি সূত্র।

আরও পড়ুন: শাহরুখ খান বিজেপি-তে যোগ দিলেই মাদক হবে চিনির গুঁড়ো, কটাক্ষ মহারাষ্ট্রের মন্ত্রীর

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন