child death in barpeta hospital

নিজস্ব সংবাদদাতা, গুয়াহাটি: এক থেকে চার দিন ওদের বয়স। মাত্র এই কয়েক ঘণ্টাই পৃথিবীর আলো দেখা ওদের ভাগ্যে ছিল। ‘মা’ ডাক ডাকতে পারল না। জন্মের চার দিনের মধ্যেই মায়ের কোল খালি করে চলে গেল ১০টি নবজাতক। হ্যাঁ, গত ২৪ ঘণ্টায় এমনটাই ঘটেছে অসমের বরপেটার ফকরুদ্দিন আলি আহমেদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। এখনও বেশ কয়েকটি শিশু আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। বাড়তে পারে মৃতের সংখ্যা।

মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালটি যেন মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হয়েছে। জানা গিয়েছে, হাসপাতালটির আইসিইউ-তে এখনও ২৯টি শিশু চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনায় এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, আইসিইউ-তে অক্সিজেনের অভাবের দরুন এ ভাবে একের পর এক নবজাতকের মৃত্যু হচ্ছে।

রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডঃ হেমন্তবিশ্ব শর্মা অবশ্য দাবি করেছেন, যে সব নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে, তাদের মধ্যে ২-৩ জনের ওজন খুব কম ছিল। বাকিদের মায়ের বয়স কুড়ি বছরের কম। এতে শিশুদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে।  ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, কম বয়সে মাতৃত্বের বোঝা নিলে শিশুর ওপর প্রভাব পড়বেই। আইসিইউ-তে চিকিৎসকরা নবজাতকের বাঁচাতে চেষ্টা চালিয়েছিলেন।

অন্য দিকে বরপেটা মেডিক্যাল কলেজের সুপার সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, মৃত নবজাতকদের ওজন ছিল এক থেকে দু’ কেজি। বেশ কয়েকটি নবজাতক জন্ম থেকেই জটিল রোগে আক্রান্ত ছিল। চিকিৎসকরা এদের বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালান।

চিকিৎসায় গাফিলতির জন্য এই সব নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে স্বাস্থ্য বিভাগের আধিকারিকদের ঘটনাস্থলে দ্রুত যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ দিকে ঘটনাকে সহজে নিতে পারছে না বিভিন্ন মহল। এতে রহস্যের গন্ধ পাচ্ছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ-সহ বিভিন্ন বিরোধী দলের নেতারা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here