বিশাখাপত্তনম গ্যাস লিক: এলজি পলিমার্সের সিইও এবং এমডি-সহ গ্রেফতার ১২

ওয়েবডেস্ক: বিশাখাপত্তনম (Vishakhapatnam) গ্যাস লিকের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট সংস্থা এলজি পলিমার্সের সিইও এবং এমডি-সহ ১২ জন কর্মী-আধিকারিককে গ্রেফতার করা হল।

জানা গিয়েছে, এলজি পলিমার্সের যে দু’জন এমডি এবং টেকনিক্যাল ডিরেক্টরকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তাঁরা বিদেশি নাগরিক। মঙ্গলবার রাতে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

সেই ভয়ঙ্কর দিন!

গত ৭ মে বিশাখাপত্তনমে গ্যাস লিকের (Gas Leak) ঘটনায় মৃত্যু হয় ১৪ জন সাধারণ নাগরিকের। অসুস্থ হন অন্তত তিন হাজার জন। এই ঘটনা তিন দশক আগে ভূপালের (Bhopal) সেই ভয়াবহ স্মৃতিকে ফিরিয়ে নিয়ে আসে।

বিশাখাপত্তনমের অদূরে গোপালপত্তনমে ‘এলজি পলিমার্স ইন্ডিয়া’ (LG Polymer’s India) নামক একটি সংস্থার রাসায়নিক কারখানায় এই ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয়দের অভিযোগ, গ্যাস লিক শুরু হওয়ার পর থেকেই তাঁদের চোখে জ্বলে যাওয়ার মতো অনুভূতি হতে শুরু করে। আতঙ্কে রাস্তায় বেরিয়ে আসেন অনেকে।

তদন্ত যে ভাবে এগোচ্ছে

দুর্ঘটনার পর গোপালপত্তনম থানার পুলিশ ৭ মে মামলা দায়ের করে। এলজি পলিমার্স কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৭৮ ধারায় (স্বাস্থ্যের জন্য পরিবেশকে উদ্বেগজনক করে তোলা) মামলা দায়ের করে। ওই ঘটনার ঠিক দু’মাসের মাথায় ১২ জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বিশাখাপত্তনম সিটি পুলিশ কমিশনার আর কে মীনা জানান, দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখতে নিযুক্ত উচ্চ-পর্যায়ের কমিটির রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর দিনই অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়।

মুখ্যমন্ত্রী ওয়াইএস জগন্মোহন রেড্ডির কাছে ওই রিপোর্ট জমা করে কমিটি। যেখানে দুর্ঘটনার জন্য সংস্থার বিরুদ্ধে একাধিক গাফিলতির অভিযোগ তোলা হয়েছে। নিরাপত্তা এবং ব্যবস্থাপনা সঠিক ভাবে পরিচালন না করারও জোরালো প্রমাণ খুঁজে পেয়েছে কমিটি।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন