গত সোমবার, তুষারপাতের পরে হিমাচলের কেলং শহর। ছবি: পিটিআই

শিমলা: গত কয়েকদিনের বৃষ্টি-তুষারপাতের দুর্যোগের পরে অবশেষে উন্নতি হচ্ছে হিমাচল প্রদেশের আভাওয়ার। কিন্তু এখনও লাহুল-স্পিতি অঞ্চলে অন্তত দেড় হাজার পর্যটক আটকে রয়েছে বলে খবর। এঁদের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গেরও বেশ কিছু পর্যটক রয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার তিনশোজনকে নিরাপদে উদ্ধার করেছিল প্রশাসন। এঁদের মধ্যে আইআইটি রুরকির আটকে পড়া ৩৫জন পড়ুয়াকেও উদ্ধার করা হয়। বুধবার আবহাওয়া পরিষ্কার হতেই বায়ুসেনার মদতে উদ্ধার কাজে জোর লাগিয়েছে হিমাচল সরকার।  পর্যটকদের নিরাপদে উদ্ধার করাই এখন মূল লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর।

গত কয়েকদিনে প্রবল বৃষ্টি এবং তুষারপাতে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কুলু এবং লাহুল-স্পিতি জেলা। কুলুর ডেপুটি কমিশনার ইউনুস খান বলেন, “বায়ুসেনার চপার এবং রাজ্য সরকার উদ্ধার কাজে হাত লাগিয়েছে। সবাইকে নিরাপদে উদ্ধার করে কুলু শহরে নিয়ে আসা হবে।”

প্রবল বৃষ্টির পাশাপাশি মরশুমের প্রথম তুষারপাতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে লাহুল-স্পিতি। প্রবল তুষারপাতের জন্য রোহটাং পাসে কিছুদিনের জন্য যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়। এর ফলে স্পিতি এবং লেহগামী অনেক পর্যটকই রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় আটকে পড়েন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন