২০২০: ট্রেন ছাড়া আমাদের জীবন কেমন হতে পারে, সেটাই দেখিয়ে দিল

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সংকটের বছর হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে শেষ হতে চলা বছর ২০২০। তবে একই সঙ্গে ট্রেন ছাড়া আমাদের জীবন কেমন হতে পারে, তারও একটা ঝলক দেখিয়ে দল এ বছর।

দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণার জেরে ভারতীয় রেল নিজের সমস্ত পরিষেবা বন্ধ করে দেয় ২৪ মার্চ। রেলের ১৬৭ বছরের ইতিহাসে এমন সিদ্ধান্ত এই প্রথম।

Loading videos...

আটকে পড়া অভিবাসী

আচমকা রেল পরিষেবা বন্ধের জেরে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকে পড়লেন লক্ষ লক্ষ মানুষ। সরকারের তরফে কোনো বিকল্প ব্যবস্থাও ছেড়ে রাখা হল না তাঁদের জন্যে। কলকারখানা বন্ধ, কাজ হারিয়ে এমনকী ন্যূনতম মাথা গোঁজার ঠাঁই হারিয়ে রাস্তায় নেমে পড়লেন কয়েক লক্ষ অভিবাসী শ্রমিক। কেউ হেঁটে অথবা সাইকেল, পণ্যবাহী ট্রাকে করে বাড়ি ফিরতে গিয়ে প্রাণ হারালেন অনেকেই।

পণ্যবাহী ট্রেনগুলি চালানো হলেও বাতিল করা হল যাত্রীদের বুকিং করা টিকিট। রেলের ইতিহাসে এক সঙ্গে এই লক্ষ লক্ষ টিকিট বাতিলের দ্বিতীয় নজির আর নেই।

শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন

১ মে থেকে রেল অভিবাসী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে বিশেষ ট্রেন চালু করল। ১ মে থেকে ৩০ আগস্ট রেলওয়ে ৬৩.১৫ লক্ষ অভিবাসী শ্রমিককে ঘরে ফেরাতে চার হাজারের বেশি ট্রেন চালায়। শুধু অভিবাসী শ্রমিকই নন, অন্য আটকে পড়া মানুষকে কিছুটা স্বস্তি দিল ভারতীয়দের এই লাইফলাইন।

তবে বিতর্কের শেষ রইল না। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি অভিযোগ তোলে, শ্রমির ট্রেনগুলির যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। যদিও রেলওয়ে জানিয়েছিল, তারা শ্রমিকদের কাছ থেকে একটি পয়সাও নেয়নি এবং এই পরিবহণে ২,০০০ কোটি টাকারও বেশি ব্যয় করেছে। যদিও বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক তরজা অব্যাহত রয়েছে।

স্পেশাল ট্রেন

লকডাউনে শুরু করলেও এখনও বন্ধ স্বাভাবিক ট্রেন চলাচল। এখনও চলছে স্পেশাল ট্রেন। সারা দেশের নির্ধারিত রুটগুলিতে ১,০৮৯টি স্পেশাল ট্রেন চলছে। এই ট্রেনগুলি ভাড়া নিয়ে সাধারণ যাত্রীরা ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন।

রেল সূত্রে খবর, গত বছরের তুলনায় যাত্রী চলাচল কমে যাওয়ার ফলে আনুমানিক ৮৫% লোকসান হয়েছে।

লোকাল ট্রেন

করোনাভাইরাস লকডাউনে বন্ধ থাকা লোকাল ট্রেন পরিষেবা প্রায় সাড়ে সাত মাস পর ফের শুরু হয় রাজ্যে। রাজ্য জুড়ে সাধারণ মানুষের দাবিকে মান্যতা দিয়েই রাজ্য-রেল মতৈক্যে ১১ নভেম্বর ভোরসকালেই সাধারণ যাত্রীদের জন্য গড়াতে শুরু করে লোকাল ট্রেনের চাকা।

কোভিডবিধি মেনে প্রাথমিক ভাবে নির্দিষ্ট সংখ্যক লোকাল ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত কার্যকর করে রেল। রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা মতোই প্রাথমিক ভাবে ৬৯৬টি ট্রেন চালানো হয়। এর মধ্যে শিয়ালদহ ডিভিশনে ৪১৩টি, হাওড়া ডিভিশনে ২০২টি এবং খড়গপুর ডিভিশনে ৮১টি লোকাল ট্রেন চালানো হয়। তবে পরিস্থিতি বিবেচনা করে সেই সংখ্যা ধাপে ধাপে বাড়ানো হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: শেষ সাত দিনে ভারতে গড় কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজারের নীচে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.