নয়াদিল্লি: গরু নয়, আইনি পথে মহিষ নিয়ে যেতে গিয়েও মার খেতে হল দিল্লিতে। গ্রেফতারও হলেন ৩ ব্যক্তি। যদিও নিগ্রহকারীরা রয়েছেন বহাল তবিয়তে।

হরিয়ানার গুরুগ্রাম থেকে গাজিয়াবাদের গাজিপুর মান্ডিতে মহিষ নিয়ে যাওয়ার সময় একদল লোকের হাতে প্রহৃত হন তিন ব্যক্তি। নিগ্রহকারীরা পশুদের সুরক্ষা নিয়ে কর্মরত ‘পিপল ফর অ্যানিমাল’ সংগঠনের সদস্য। শনিবার রাতের ঘটনা। ‘অজ্ঞাত পরিচয়’ নিগ্রহকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হলেও গ্রেফতার করা হয়েছে, যাঁরা মহিষ নিয়ে যাচ্ছিলেন তাঁদেরই। অভিযোগ, ট্রাকে থাকা ১৪টি মহিষের প্রতি নিষ্ঠুর আচরণ করা হয়েছে। মহিষগুলির অবস্থা অত্যন্ত খারাপ ছিল। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ দিল্লির কালিকাজি এলাকায়।

পুলিশ আধিকারিক জানান, পিএফএ সদস্যদের অভিযোগের ভিত্তিতে, প্রাণীদের ওপর নিষ্ঠুরতা প্রতিরোধ আইনে ওই ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্তরা জানিয়েছেন, তাঁদের কাছে মহিষ বহন করার  লাইসেন্স ও উপযুক্ত কাগজপত্র রয়েছে। তাঁদের উপযুক্ত চিকিৎসা করানো হয়েছে। পুলিশের দাবি, নিগ্রহকারীরা ‘গো-রক্ষক’ নন। তাঁদের সংগঠন ‘পিপল ফর অ্যানিমাল’-এর চেয়ারপার্সন কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী মানেকা গান্ধী। যদিও মানেকা ওই ঘটনার সঙ্গে তাঁর সংগঠনের সদস্যদের জড়িয়ে থাকার কথা মানতে চাননি। পরে সংগঠনের ওয়েবসাইটটি-ও বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন : ছাড় নেই পশুপালকদের, গো-রক্ষকদের হাতে কাশ্মীরে আক্রান্ত ন’বছরের শিশু-সহ ৫

নিগ্রহকারীদের এক জন গৌরব গুপ্তা দাবি করেছেন, তাঁরা মোটেই ওই ৩ জনকে মারধর করেননি। মহিষগুলির অবস্থা খুব খারাপ, তা জানতে পেরে, তাঁরা শুধু গাড়িটিকে অনুসরণ করেন। পরে পুলিশে খবর দেন। এইমস-এর চিকিৎসক অবশ্য জানিয়েছেন, ধৃত ৩ ব্যক্তির শরীরে চোট ছিল।

পশুদের ওপর অত্যাচারের অপরাধে পাঁচ বছরের কারাবাস ও অর্থদণ্ড হতে পারে।

উত্তরপ্রদেশে গো হত্যা নিষিদ্ধ হলেও মহিষ হত্যা নিষিদ্ধ নয়। বরং মহিষের মাংস রফতানি, সে রাজ্যের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শিল্প। যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর, বেআইনি হওয়ার অভিযোগে অনেকগুলি কসাইখানা বন্ধ করে দেন। তার পর থেকে গো হত্যা নিয়ে বিতর্ক তীব্র হয়। গো-রক্ষকদের দাপাদাপি বাড়তে থাকে।

তবে এই প্রথম নয়। গো-রক্ষকদের দাপট গত কয়েক বছরে বারবার শিরোনামে এসেছে। গত বছর এ নিয়ে মুখ খুলতে হয় খোদ প্রধানমন্ত্রীকেও। তিনি বলেন, রাতে যারা সমাজবিরোধী কাজ করে, তারাই দিনে গো-রক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here