Dantewada-government-high-school.

রায়পুর: ব্লু হোয়েল গেম নিয়ে অদ্ভুত এক সংস্কার ছড়িয়ে পড়েছে মাওবাদী অধ্যুষিত ছত্তীসগঢ়ের দন্তেওয়াড়া জেলায়। শুক্রবার পুলিশ জানিয়েছে, জেলায় অন্তত ৩০জন আদিবাসী কিশোর-কিশোরীকে পাওয়া গিয়েছে যারা এই গেমটি খেলছিল।

হিন্দুস্থান টাইমস এ খবর দিয়ে জানিয়েছে, পুলিশের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারিন্টেন্ডেন্ট অভিষেক পল্লব জানিয়েছেন,‘‘দন্তেওয়াড়ার একটি সরকারি স্কুলে ৩০ জনকে খুঁজে পাওয়া গিয়েছে যারা এই গেমটি খেলছিল।’’ বৃহস্পতিবার স্কুল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে জানায় কিছু ছাত্র ব্লেড বা ধারালো কিছু দিয়ে হাতে তিমি মাছের মতো ছবি আঁকছে।

পল্লব জানিয়েছে,‘‘ছাত্রছাত্রী ব্লু হোয়েল গেমটির স্থানীয়করণ করে নিয়েছে। তারা মনে করছে এই গেমটি খেললে তাদের ব্যক্তিগত সব সমস্যার সমাধান হবে। তারা একটা বিশ্বাস থেকে গেমটি খেলতে শুরু করেছে।”

পুলিশ তাদের বাবা-মার সঙ্গেও কথা বলছে এবং আরও তথ্য বাড়িতে গিয়ে তল্লাশিও করছে।

অভিষেক পল্লব হিন্দুস্থান টাইমসকে জানিয়েছেন, ‘‘এক ছাত্র জানিয়েছে, যদি সে এই গেমটি খেলে তবে তার বাবা মদ ছেড়ে দেবে। অন্য একজন ছাত্রী জানিয়েছে, ব্লু হোয়েল খেললে তার বাবা জোর করে বিয়ে দেবে না।’’

কোথা থেকে তারা জানল এই গেমটি সম্পর্কে? ছাত্রছাত্রীরা জানিয়েছে, খবরের কাগজ  বা ইন্টারনেট থেকে তারা এই গেমটির সম্পর্কে জানতে পেরেছ।

আরও পড়ুন: ‘এক বার ঢুকলে আর বেরোনো যায় না’, ব্লু-হোয়েলের শিকার হওয়ার আগে লিখে গেল তামিলনাড়ুর ছাত্র

এই ঘটনার পর পুলিশ অন্য স্কুলগুলিতেও তল্লাশি শুরু করেছে। এক অধিকারিক জানিয়েছেন, গেমটি সম্পর্কে সচেতন করতে গিয়ে অনেক সময় উলটো ফল হয়েছে, ছাত্রছাত্রীদের আগ্রহ বেড়ে গিয়েছে গেমটির প্রতি। ছাত্রছাত্রীরা মনে করে, গেমটির নির্দেশ অনুযায়ী শরীরে ক্ষত সৃষ্টি করলে, যন্ত্রণা পেলে, তার ব্যক্তিগত সমস্যার সমাধান হবে।

ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন