নয়াদিল্লি: ৩০০ বছরের পুরোনো একটি গোটা দোতলা বাড়িকে দক্ষিণ থেকে উত্তরে প্রায় ২ হাজার ৬০০ কিলোমিটার দূরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হল। শুনে আশ্চর্য লাগলেও ঘটেছে ঠিক এমনটাই।

কেরালার এই বাড়িটিকে গুরুগ্রামে সরিয়ে নিয়ে গেলেন বাস্তুকার প্রদীপ সচদেব। বন্ধুর মারফত জানতে পেরে শুধু ছবিতে দেখেই বাড়িটা কিনে ফেলার কথা মনস্থ করেন প্রদীপ। তবে জমি না শুধু বাড়িটা কিনবেন প্রদীপ – এ কথা প্রথম দিনই জানিয়ে দিয়েছিলেন।

প্রদীপ বলেন, তখনই তিনি জানতে পারেন এই বাড়ি স্থানান্তর করা যায়। ঠিক করেন বাড়িটাকে নিজের কৃষি খামারে নিয়ে যাবেন। কেনার পরই বাড়ি স্থানান্তরের কাজ শুরু করেন। কথা বলেন সেখানকার কাঠের কারিগরদের সঙ্গে। তাঁরাও কাজটা করতে রাজি হয়ে যান।

৫৯ বছরের প্রদীপ বলেন, পুরো বাড়িটাই শুধু কাঠের তৈরি। এর আগে তিনি কখনও শুধু কাঠের কোনো বাড়ি তৈরি করেননি। এটা দেখে তিনি খুবই অবাক হয়ে যান, যে সেই সময় এই বাড়িটি তৈরি করতে একটাও পেরেক ব্যবহার করা হয়নি।

কেরালায় বাড়িটা ছিল একটা নদীর ধারে। গোটা বাড়িটার গঠন কৌশল দারুণ। আর বাড়ির ছাউনির কাজ তো অসাধারণ, বলেন প্রদীপ। যত্ন করে প্রতিটা অংশ খুলতে সময় লেগেছে গোটা একটা বছর।

নতুন করে বাড়িটা বসানোর সময় বেশ কিছু পরিবর্তন করেছেন প্রদীপ। আগে এর নিচের তলাটায় পাথরের মেঝে ছিল। প্রদীপ সেটা ইঁটের বানিয়ে তাতে টাইলস বসিয়েছেন। বাড়িতে স্নানঘর আর বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেছেন, যেগুলো আগে ছিল না।

প্রদীপ জানান, ৩০০ বছরে প্রাচীন একটা ঐতিহ্য বাঁচাতে পেরে তিনি খুব খুশি। এখন আপাতত সপ্তাহান্তে এখানে আসেন। তবে এর পর এখানেই স্থায়ী ভাবে বসবাস করতে চান তিনি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here