পালাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। ছবি: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

অমদাবাদ: একটি ধর্ষণের ঘটনা এবং তার প্রতিবাদে রাজ্য জুড়ে বিহার এবং উত্তরপ্রদেশের হিন্দিভাষী মানুষের ওপরে হামলা। সব মিলিয়ে উত্তপ্ত গুজরাত। ইতিমধ্যেই রাজ্য থেকে অন্তত ৫০ হাজার মানুষ পালিয়েছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন সূত্রে।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর সবরকণ্ঠা জেলার হিম্মতনগরে ১৪ মাসের এক শিশুকে ধর্ষণ করে বিহারনিবাসী এক শ্রমিক। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করলেও তার পর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় হিন্দিভাষীদের ওপরে আক্রমণ শুরু হয়ে যায়। মূল লক্ষ্য বিহার এবং উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দারা। রাজ্য পুলিশের ডিজি শিবানন্দ ঝা বলেন, ‘ছ’টি জেলায় হিংসা ছড়িয়েছে, যার মধ্যে সব চেয়ে খারাপ অবস্থা মেহসানা এবং সবরকণ্ঠার।’’ ডিজি জানান, গাঁধীনগর, পাটান এবং অমদাবাদেও হামলার অভিযোগ উঠেছে।  এখনও পর্যন্ত হামলার ঘটনায় ৩৪২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিহারের মানুষের ওপরে আক্রমণ বন্ধ করার আবেদন জানিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানির সঙ্গে কথা বলেছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। সব রকম ভাবে হিন্দিভাষীদের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছে গুজরাত সরকার।
এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপির বিরুদ্ধে তীব্র তোপ দেগেছে কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা। কংগ্রেস নেতা সঞ্জয় নিরুপম বলেন, “উত্তর ভারতীয়দের ওপরে আক্রমণ হচ্ছে গুজরাতে। নরেন্দ্র মোদীর বোঝা উচিত যে একদিন তাকে বারাণসী যেতে হবে ভোট চাওয়ার জন্য।”
এই ঘটনায় গুজরাতের বিজেপি সরকার যে বেশ চাপে রয়েছে সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় হামলার সংখ্যা অনেকটাই কমেছে বলে দাবি করেছেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপসিংহ জাদেজা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন