cyclone titli
তিতলি আছড়ে পড়ার পর গোপালপুরে। ছবি: পিটিআই

শ্রীকাকুলম (অন্ধ্রপ্রদেশ): অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে অন্ধ্রপ্রদেশে মৃত্যু হল ৮ জনের। এঁদের মধ্যে ছ’জনই মৎস্যজীবী।

বৃহস্পতিবার সকালে ওড়িশার গোপালপুর এবং অন্ধ্রের শ্রীকাকুলামের মধ্যে দিয়ে স্থলভাগে প্রবেশ করে তিতলি। এর জেরে অন্ধ্রের দুই জেলা শ্রীকাকুলাম এবং বিজয়নগরমের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর থেকে জানানো হয়েছে।

জানা গিয়েছে, ঝড়ের সময়ে মাথায় গাছ পড়ে মৃত্যু হয়েছে ৬২ বছরের এক প্রৌঢ়ার। অন্য দিকে বাড়ি ভেঙে মৃত্যু হয়েছে বছর ৫৫-এর এক ব্যক্তির। মুখ্যমন্ত্রীর অফিস জানিয়েছে, সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে সেখানেই নৌকাডুবিতে মৃত্যু হয়েছে বাকি ছ’জনের।

আরও পড়ুন বাংলার কাছে শাপে বরই হতে পারে ঘূর্ণিঝড় তিতলি, কেন?

মুখ্যমন্ত্রীর অফিস আরও জানিয়েছে, গত কয়েক দিনে মোট ৬৭টা জেলেনৌকা গভীর সমুদ্রে গিয়েছিল। এদের মধ্যে ৬৫টি নিরাপদে ফিরেছে। একটিতে এই ঘটনাটি ঘটেছে। অন্য যে নৌকাটি ফেরেনি, তাকে দ্রুত নিরাপদে ফিরিয়ে আনাই এখন প্রশাসনের প্রাথমিক লক্ষ্য বলা দাবি করা হচ্ছে।

এ দিকে তিতলির প্রভাবে চাষাবাদে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি নারকেল, কলা এবং আম গাছ পড়ে যাওয়ার ফলেও সাধারণ মানুষের এখন মাথায় হাত। তবে তিতলির ফলে ওড়িশায় এখনও পর্যন্ত কোনো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন