লখনউ: ভারত দেশটা যে মূলত দরিদ্র, তা বোঝার উপায় নেই উত্তর প্রদেশের নবনির্বাচিত বিধায়কদের সম্পত্তির হিসাব জানতে পারলে। রাজ্যের ৮০ শতাংশ বিধায়কই ক্রোড়পতি। আগেকার বিধানসভায় এই সংখ্যাটা ছিল ৬৭ শতাংশ। এ বার সেটা আরও ১৩ শতাংশ বেড়েছে। অ্যাসোসিয়েশন অব ডেমোক্র্যাটিক রিফর্মস-এর এক সমীক্ষা অনুসারে এই তথ্য জানা গিয়েছে।

সব চেয়ে বেশি সম্পদের অধিকারী হলেন মুবারকপুর থেকে নির্বাচিত বসপা বিধায়ক শাহ আলম উরফ গুড্ডু জামালির। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ১১৮ কোটি টাকার। এর পরেই চিল্লুপুর থেকে নির্বাচিত বিনয়শঙ্করের স্থান, তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৬৭ কোটি টাকার। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন বিজেপি বিধায়ক রানি পাকশালিকা সিং, সম্পদ ৫৮ কোটি টাকার।

সব চেয়ে কম সম্পত্তি (১০ লক্ষ টাকার কম) আছে এমন তিন জন বিধায়ক হলেন তমকুহি রাজ থেকে নির্বাচিত কংগ্রেস বিধায়ক অজয় কুমার লাল্লু, বেলথরা রোড থেকে নির্বাচিত বিজেপির ধনঞ্জয় এবং রথ থেকে নির্বাচিত বিজেপির মনীষা।

সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, শতাংশের হিসাবে সব চেয়ে বেশি কোটিপতি  বিধায়ক বসপার, ৯৫ শতাংশ। এর পরেই স্থান কংগ্রেসের, ৯১ শতাংশ। সপার ৮৫ শতাংশ এবং বিজেপির ৭৯ শতাংশ বিধায়ক কোটিপতি।

নবনির্বাচিত ৪০২ জনের সমীক্ষার পর জানা গিয়েছে, ১৪৩ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা আছে। তার মধ্যে মারাত্মক ধরনের ফৌজদারি অভিযোগ আছে ১০৭ জন বিধায়কের বিরুদ্ধে। বিজেপির নির্বাচিত ৩১২ জন বিধায়কের মধ্যে ১১৪ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা আছে, তার মধ্যে ৮৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর। ধামপুর থেকে নির্বাচিত অশোক কুমার রানার বিরুদ্ধে মহিলাঘটিত অপরাধের অভিযোগ রয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here