student
প্রতীকী ছবি

চণ্ডীগড়: ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষায় ন’বছরে ১৭ বার ব্যর্থ অর্থাৎ ফেল। তার পর হাইকোর্টের দারস্থ। কিন্তু তাতেও মিলল না চাহিদা মতো উত্তর।

মাত্র চার বছরের কোর্স। কিন্তু বারংবার তাতে ব্যর্থ হয়েছিলেন বি-টেকের এই পড়ুয়া। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (নিট)-এর কুরুক্ষেত্র শাখায় ২০০৯ সালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। প্রথম চার বছরে পাশ করতে না পারায় আরও চার বছরের সময় দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হয়নি। ফলাফল ব্যর্থতা। মোট ১৭ বার ফেল করার পর পঞ্জাব হরিয়ানা হাইকোর্টের দারস্থ হন তিনি। হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন জানান, আরও একটি সুযোগ দেওয়া হোক তাঁকে। কিন্তু কোর্ট তাঁর আবেদন বাতিল করে দেয়।

আরও পড়ুন : মেয়ের বিয়ের প্রস্তুতি তুঙ্গে, এরই মাঝে বালাজি মন্দিরে মুকেশ অম্বানি, কেন?

হাইকোর্ট তাঁর আবেদন খারিজ করে এই বলে, যে তাঁর মতো এমন পড়ুয়ার প্রতি কোনো মায়া-দয়া দেখাবে না কোর্ট। এরা জাতীয় সম্পদ নষ্ট করে। তাই আদালত আর জাতির সম্পদ এবং সময় নষ্ট না করার নির্দেশ দেয় আদালত।

আদালত তাঁকে বলে, যখন ৯ বছরে ১৭টা পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে, তখন কেমন করে মাত্র এক বারে ১৭টি পরীক্ষা কী ভাবে পাশ করবেন তিনি? তাই অন্য কোনো পেশার কথা চিন্তা চিনি করুন। তবে আর যাই হোক, কিন্তু ইঞ্জিনিয়ারিং নয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here